বাইডেনকে দেখে নেয়ার হুমকি ট্রাম্পের

প্রেসিডেন্ট পদ থেকে নিজের অপসারিত হওয়ার ঝুঁকি নেই দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি

বাইডেনকে দেখে নেয়ার হুমকি ট্রাম্পের

ট্রাম্প বলেন, ’২৫তম সংশোধনীতে আমার কিছু হবে না। কিন্তু আমি জো বাইডেন ও তার প্রশাসনকে দেখে নিব।’

সংবিধান অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট পদ থেকে নিজের অপসারিত হওয়ার ঝুঁকি নেই দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। এ সময় নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিতে যাওয়া জো বাইডেনকেও ‘দেখে নেয়ার’ হুমকি দিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার টেক্সাসের মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের কাজ দেখতে যাওয়ার আগে ট্রাম্প বলেন, ‘২৫তম সংশোধনীতে আমার কিছু হবে না। কিন্তু আমি জো বাইডেন ও তার প্রশাসনকে দেখে নেব।’

বুধবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ক্যাপিটল হিল তাণ্ডবের পর এটিই তার প্রথম জনসমক্ষে আসা।

গত সপ্তাহে ক্যাপিটল হিলে সমর্থকরা তাণ্ডব চালানোর আগে নিজের দেয়া বক্তব্য ঠিক ছিল বলেও দাবি করেছেন ট্রাম্প।

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি (অপসারণ প্রক্রিয়া) আমাদের দেশের ভয়ঙ্কর ক্ষতি করছে। এর কারণে সারা দেশে প্রচণ্ড ক্ষোভ তৈরি হয়েছে।’

অপসারণ প্রক্রিয়াকে ‘হাস্যকর’ অভিহিত করে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি সহিংসতা চাই না।’

৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিল তাণ্ডবের আগে দেয়া বক্তব্য ঠিক ছিল দাবি করে ট্রাম্প বলেন, ‘লোকজন মনে করে আমি যা বলেছিলাম তা পুরোপুরি ঠিক ছিল।’

২০ জানুয়ারি ট্রাম্পের মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। এ দিন নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন।

ক্যাপিটল হিলের সহিংসতার জেরে ট্রাম্পকে অপসারণের চেষ্টা করছেন ডেমোক্র্যাটরা।

বুধবার কংগ্রেসে এ সংক্রান্ত একটি ভোটে অংশ নেবেন হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের সদস্যরা।

ক্যাপিটল হিলে তাণ্ডবের আগে সমর্থকদের সামনে দেয়া ভাষণে ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘আমরা ক্যাপিটল ভবনে যাচ্ছি। আমাদের সাহসী সিনেটর ও কংগ্রেস সদস্যদের অভিনন্দন জানাতে। তবে তাদের সবার জন্য নয়।’

ওই ভাষণে তিনি বলেন, ‘দুর্বলতা দিয়ে দেশের দখল নেয়া যাবে না। আমাদের শক্তি দেখাতে হবে।’

৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে জয় লাভ করেন জো বাইডেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডনাল্ড ট্রাম্প দাবি করে আসছিলেন নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে।

নির্বাচনের বাইডেনের জয় আটকাতে মামলাও করেছিল ট্রাম্পের প্রচার শিবির। তবে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট মামলাগুলো খারিজ করে দেয়। এরপরেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেকে জয়ী দাবি করে আসছিলেন ট্রাম্প।

৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী প্রার্থীর নাম ঘোষণার তারিখ ছিল। ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়া ট্রাম্প সমর্থকদের কংগ্রেসে অবস্থান নিতে আহ্বান জানান। এ দিন তার ডাকে সাড়া দিয়ে ক্যাপিটল হিল ভবনে অনুপ্রবেশ করে সমর্থকরা। এ সময় সংঘর্ষে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ পাঁচ জন নিহত হন।

তবে ট্রাম্পের শেষ রক্ষা হয়নি। ওই দিনই নিয়মতান্ত্রিকভাবে জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে দেশটির কংগ্রেস।

আরও পড়ুন:
বাইডেনের শপথের দিনও তাণ্ডব চালাতে পারে ট্রাম্প সমর্থকরা
ফখরুল হাছানদের মুখে মুখে ক্যাপিটল হিল কাণ্ড
ট্রাম্পকে অভিশংসনে ডেমোক্র্যাটরা প্রস্তুত
এবার ডিগ্রি হারালেন ট্রাম্প
ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট স্থায়ী বন্ধ

শেয়ার করুন

মন্তব্য