রাজশাহীতে দোকান খোলা রাখার সময় কমল

রাজশাহীতে দোকান খোলা রাখার সময় কমল

ঈদের পর থেকে রাজশাহীতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। প্রতিদিনই রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা রোগীর মৃত্যু হচ্ছে। সংক্রমণ কমাতে প্রতিদিন বিকেল পাঁচটা থেকে পরের দিন সকাল ছয়টা পর্যন্ত সব দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই সময়ে নগরীতে বন্ধ থাকবে অটোরিকশাসহ সব ধরনের যান চলাচল।

করোনা পরিস্থিতির অবনতিতে রাজশাহীতে চলমান লকডাউন আরও কঠোর করা হয়েছে।

প্রতিদিন বিকেল পাঁচটা থেকে পরের দিন সকাল ছয়টা পর্যন্ত সব দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই সময়ে নগরীতে বন্ধ থাকবে অটোরিকশাসহ সব ধরনের যান চলাচল।

নগরবাসীকে বাড়ি থেকে বের না হওয়ার জন্য বলা হয়েছে। আগামীকাল সোমবার বিকেল থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর হবে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে রোববার বিকেলে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে সাংবাদিকদের সামনে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানান রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন।

এর আগে রাজশাহীতে করোনা সংক্রমণে মাঠের চিত্র জানতে রাস্তায় করোনা পরীক্ষা করা হয়। রোববার সকাল থেকে নগরীর ৫টি পয়েন্টে ভ্রাম্যমাণ এই টেস্ট ক্যাম্পেইন চালানো হয়।

ঈদের পর থেকে রাজশাহীতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। প্রতিদিনই রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা রোগীর মৃত্যু হচ্ছে।

করোনা ইউনিটে সব শেষ এক দিনে আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টার মধ্যে তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে ২ জন করোনায় মারা গেছেন। আরও ৪ জন করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃতদের মধ্যে একজন রাজশাহীর আর ৩ জনের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায়। এ ছাড়া নাটোরের একজন এবং একজনের বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলায়।

গত ২৪ মে থেকে ৬ জুন পর্যন্ত ১৪ দিনে রাজশাহী হাসপাতালের করোনা ইউনিট ও আইসিউতে মারা গেছেন ১০৭ জন। রোববার সকালে করোনা ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিলেন ২৩৫ জন। এর মধ্যে আগের ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হন ৩০ জন। ৮ জন চাঁপাইনবাবগঞ্জের, ১৮ জন রাজশাহীর, ৩ জন নওগাঁর এবং নাটোরের একজন।

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের দুটি ল্যাবে শনিবার ৫৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৯২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩৬৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৮৪ জনের পজিটিভ এসেছে। আর চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১০৮ জনের পজিটিভ এসেছে।

করোনা পরিস্থিতির অবনতির কারণে গত বৃহস্পতিবার থেকে কঠোর অবস্থানে জেলা প্রশাসন। প্রতিদিন সন্ধ্যা সাতটা থেকে সকাল ছয়টা পর্যন্ত চলাচলে নিষেধাজ্ঞা ছিল।

তবে, স্থানীয় ১৪ দলীয় জোট ছাড়াও বিশেষজ্ঞরা কঠোর লকডাউনের দাবি করছিল। এ অবস্থায় রোববার বিকেলে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পর্যালোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা শেষে নতুন করে কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
লকডাউন বাড়ল ১৬ জুন পর্যন্ত
বাড়তে পারে চলমান বিধিনিষেধ
দামুড়হুদায় আরও ৯টি গ্রামে ৭ দিনের লকডাউন
রাজশাহীতে কঠোর লকডাউন চায় ১৪ দল
৭ জনে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট, গ্রাম মহল্লায় বিশেষ লকডাউন

শেয়ার করুন

মন্তব্য