যৌন নিপীড়ন মামলায় অসহযোগিতা করেছিলেন নেইমার: নাইকি

পিএসজির হয়ে মাঠে নেইমার। ফাইল ছবি

যৌন নিপীড়ন মামলায় অসহযোগিতা করেছিলেন নেইমার: নাইকি

প্রতিষ্ঠানটি বলছে তাদের এক কর্মচারীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগের তদন্তে সাড়া দেননি ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার, যে কারণে তারা নেইমারের সঙ্গে তাদের ২১ কোটি ডলার (১৭৮৫ কোটি টাকা) এর চুক্তি বাতিল করে।

গত বছর সেপ্টেম্বরে জার্মান ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুতকারক পুমার সঙ্গে নতুন চুক্তি করেন নেইমার। তার আগের মাসে বাতিল করেন নাইকির সঙ্গে তার দীর্ঘ ১৪ বছরের চুক্তি। এর প্রায় নয় মাস পর, ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুকারক আমেরিকান বিখ্যাত এই কোম্পানি জানাল নেইমারের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করার কারণ।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে তাদের এক কর্মচারীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগের তদন্তে সাড়া দেননি ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার, যে কারণে তারা নেইমারের সঙ্গে তাদের ২১ কোটি ডলার (১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা) এর চুক্তি বাতিল করে।

নাইকি এক বিবৃতিতে জানায় ২০১৮ সালে তাদের কাছে দুই বছর আগে ঘটনাটি রিপোর্ট করা হয়। তখন তাদের তদন্ত অসম্পূর্ণ থেকে যায়।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘তদন্তে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য আমরা পাইনি, যাতে করে এ নিয়ে আমরা যথাযথ কথা বলতে পারব।’

নেইমারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নাইকির সঙ্গে চুক্তি বাতিলের ঘটনাটি ব্যবসায়িক স্বার্থে করা হয়েছে এবং এর সঙ্গে অভিযোগের কোনো সম্পর্ক নেই।

বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলারের মুখপাত্র তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে আমেরিকান পত্রিকা ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বলেন, ‘এই ধরনের ভিত্তিহীন আক্রমণ এবং যা ঘটেনি সেই ঘটনার অভিযোগের বিরুদ্ধে নেইমারের অবস্থান অত্যন্ত দৃঢ়।’

তবে নাইকি নিজেদের বিবৃতিতে পরিষ্কার করেছে যে নেইমারের সঙ্গে তাদের চুক্তি বাতিল হওয়ার কারণ আসলে ওই অসম্পূর্ণ তদন্ত ও নেইমারের অসহযোগিতা।

‘সুনির্দিষ্ট প্রমাণ ছাড়া নাইকির পক্ষ থেকে কোনো ধরনের অভিযোগ করা অনুচিত হবে। প্রতিষ্ঠানের এক কর্মীকে হেনস্তার বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগের তদন্তে তিনি সাড়া না দেয়ায় নাইকি নেইমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে।’

নাইকি আরও জানায় তারা ২০১৯ সালে তদন্ত শুরু করে এবং তদন্ত চলাকালীন সকল বিজ্ঞাপণ থেকে নেইমারকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। তারা তদন্তটি এর আগের বছর শুরু করতে চেয়েছিল কিন্তু ভুক্তভোগী তখন তদন্ত করতে চাননি ও বিষয়টির গোপনীয়তা ব্জায় রাখতে চেয়েছিলেন।

নেইমারের বাবা পুরো বিষয়টিকে নাইকির ব্ল্যাকমেইল হিসেবে অভিযোগ করেছেন। ব্রাজিলিয়ান সংবাদপত্র ফলিয়া দে সাও পাওলোকে নেইমার সিনিয়র বলেন, ‘পুরো বিষয়টা অদ্ভূত। নেইমার এই মেয়েটাকে চেনেই না। আর এইসব সামনে এসেছে আমরা নাইকি থেকে সরে আসার পর।’

নেইমার এই মাসেই পিএসজির সঙ্গে আরও চার বছরের চুক্তি নবায়ন করেছেন। বার্সেলোনা থেকে ২০১৭ সালে পিএসজিতে যোগ দেয়ার পর তিনটি লিগ ও দুটি ফ্রেঞ্চ কাপ জিতেছেন এই ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আত্মঘাতী গোলে ফ্রান্সের জার্মানি বধ

আত্মঘাতী গোলে ফ্রান্সের জার্মানি বধ

প্রথম গোলের পর ফ্রান্সের উদযাপন। ছবি: টুইটার

নিঃসন্দেহে ইউরোর চতুর্থদিনের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচটা দেখল ফুটবল সমর্থকরা। ডেথ গ্রুপের দুই দল চারবারের বিশ্বকাপজয়ী জার্মানী বনাম দুবারের বিশ্বকাপের শিরোপা ছুঁয়ে দেখা ফ্রান্স। ম্যাচটা এক গোলে জার্মানিকে হারায় ফ্রান্স।

বিশ্বকাপজয়ী ফ্রান্স তাদের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের মিশন শুরু করেছে জয় দিয়ে। অবশ্য আত্মঘাতী গোলের সৌভাগ্য নিয়ে জার্মানী বধ করেছে গত ইউরোর রানার আপরা। তবে, বাঘে-মহিষের লড়াইয়ে জমজমাট ম্যাচ দেখেছে ফুটবল বিশ্ব।

নিঃসন্দেহে ইউরোর চতুর্থদিনের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচটা দেখল ফুটবল সমর্থকরা। ডেথ গ্রুপের দুই দল চারবারের বিশ্বকাপজয়ী জার্মানী বনাম দুবারের বিশ্বকাপের শিরোপা ছুঁয়ে দেখা ফ্রান্স। ম্যাচটা এক গোলে জার্মানিকে হারায় ফ্রান্স।

মিউনিখে ঘরের মাঠে ফ্রান্সকে আতিথ্য দেয় জার্মানি।

নির্দ্বিধায় ম্যাচে দুই দলের মধ্যে বেশ এগিয়ে ছিল ফ্রান্স। বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল জার্মানি। আক্রমণে সেভাবে ভয়ংকর হতে পারেনি ওয়াকিম লোভের শিষ্যরা।

এই ফায়দাটাই কড়ায় গণ্ডায় তুলেছে দিদিয়ের দেশঁমের বাহিনী। কাউন্টার অ্যাটাকে বারবারই জার্মান রক্ষণ চুর্ণবিচুর্ণ করেছে এমবাপে-পগবা-গ্রিজমানরা।

গোলশূন্য চলতে থাকা ম্যাচের ২০ মিনিটে ম্যাটস হামেলসের আত্মঘাতী গোলে লিড নেয় ফ্রান্স। ডান প্রান্ত থেকে পল পগবার সৃজনশীল বাঁকানো ক্রস বাম প্রান্তে ফাঁকায় পেয়ে যান লুকাস হার্নান্দেজ।

সঙ্গে সঙ্গে সিক্স ইয়ার্ডের সামনে বাড়িয়ে দেন বায়ার্ন মিউনিখের এই লেফটব্যাক। ক্লিয়ার করতে গিয়ে বল নিজেদের জালে জড়ান জার্মানির ডিফেন্ডার হামেলস।

পরে এমবাপের দারুণ একটা সুযোগও দারুণভাবে ট্যাকল করে সেভ করেন হামেলস। নাহলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলত ফ্রান্স।

এটা ছাড়াও আরও দুটি গোল বাতিল হয়ে যায় অফসাইডের কারণে। এমবাপের ডান পায়ে বাঁকানো শটে জালে জড়ানো গোল আর বেনজেমার প্রত্যাবর্তনের ফিনিশিং বাতিল হয় অফসাইডের ফাঁদে পড়ে।

এসবের মাঝে বলতে গেলে সুবর্ণ সুযোগ একটাই পায় স্বাগতিকরা। সার্জ জিনাব্রি ডি-বক্সের ভেতরে থেকে প্রায় ফাঁকা গোলপোস্ট পেয়েও বারের উপর দিয়ে মেরে সমতায় ফেরার সুযোগ নষ্ট করেন।

পুরো ম্যাচে যোগ্য দল হিসেবেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ফ্রান্স। এ জয়ে এক ম্যাচে পয়েন্ট টেবিলে দুইয়ে উঠে আসে তারা। একে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকা পর্তুগাল।

দ্বিতীয় ম্যাচে সহজ প্রতিপক্ষ হাঙ্গেরিকে পাচ্ছে ফ্রান্স। আগামী ১৯ ‍জুন ম্যাচটি খেলবে দুই দল। আর প্রথম জয়ের লক্ষ্যে জার্মানির প্রতিপক্ষ হাঙ্গেরিকে তিন গোলে হারানো পর্তুগাল।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

ওমানের কাছে হেরে বাছাইপর্ব শেষ বাংলাদেশের

ওমানের কাছে হেরে বাছাইপর্ব শেষ বাংলাদেশের

ছবি: বাফুফে

জসিম বিন স্টেডিয়ামে ওমানের কাছে ৩-০ গোল ব্যবধানে হেরে যায় বাংলাদেশ। ছয় হার ও দুই ড্রয়ে বিশ্বকাপ মিশন শেষ করেছে জেমি ডের বাহিনী।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পরের রাউন্ডে যাওয়ার স্বপ্ন আগেই শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশের। এশিয়ান কাপের মূল পর্বে সরাসরি খেলার সুযোগও শেষ হয়েছে ভারতের কাছে হেরে। বাছাইয়ে শেষ ম্যাচে তাই ওমানের সঙ্গে শুধু সম্মানের লড়াই ছিল লাল-সবুজদের।

সেই সম্মান বাঁচানোর ম্যাচে জসিম বিন স্টেডিয়ামে ওমানের কাছে ৩-০ গোলে হেরে যায় বাংলাদেশ। ছয় হার ও দুই ড্রয়ে বিশ্বকাপ মিশন শেষ করেছে জেমি ডের বাহিনী।

জামাল ভূঁইয়াসহ পাঁচ গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার ছাড়া বলা যায় প্রথম লেগের থেকে কম ব্যবধানেই হেরেছে বাংলাদেশ। প্রথম লেগে ৪-১ গোলে ওমান জেতে। আজকের ম্যাচে দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে মাঠে নেমেছিল ওমান।

এতে পারফরম্যান্সে কোনো পার্থক্য দেখা যায়নি। পুরো ম্যাচ আধিপত্য নিয়ে খেলেছে দলটি। আর রক্ষণ সামলানোই ছিল যেন বাংলাদেশের নিয়তি।

ম্যাচের ১৮ মিনিটে কর্নার থেকে ভয়ংকর একটি আক্রমণ সাজায় ওমান। সিক্স ইয়ার্ডের সামনে থেকে ওমানের হেড জালে ঢোকার সময় বল গোললাইন থেকে ঠেকিয়ে দেন বাংলাদেশের ডিফেন্ডার ইব্রাহিম।

তার পাঁচ মিনিট পরে ওমানকে আর থামানো যায়নি। আলী আল গাফ্রির গোলে লিড নেয় ওমান।

ম্যাচের ২৯ মিনিটে একটা থ্রো পায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে একটি কর্নার আদায় হয়। কর্নার থেকে ম্যাচে সমতায় ফেরার সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া হয় বাংলাদেশের। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলটা তপুর মাথা ছুঁয়ে সিক্স ইয়ার্ডের সামনে একেবারে ফাঁকায় পান ইয়াসিন আরাফাত।

একেবারে খালি পোস্ট পেয়েও হেডটা গোলকিপার সোজা করেন এই ডিফেন্ডার। ওমানের গোলকিপার ফায়াজ বল ফিস্ট করে বিপদমুক্ত করেন। কৃতিত্ব দিতে হবে তাকেও।

ম্যাচের ৩৮ মিনিটে ওমানের নেয়া ফ্রি-কিক বাম দিকে ঝাপিয়ে দারুণভাবে ক্লিয়ার করে দেন গোলকিপার জিকো। নাহলে ব্যবধান প্রথমার্ধেই বড় করে বিরতিতে যেতো ওমান।

দ্বিতীয়ার্ধেও সমানভাবে বাংলাদেশকে চেপে রাখে ওমান। ধারাবাহিক আক্রমণে ব্যবধান দ্বিগুণ করে মধ্যপ্রাচ্যের দলটি। ওমানকে দ্বিতীয় গোলের সন্ধান খুঁজে দেন খালিদ আল হাজরী।

ম্যাচের ৮০ মিনিটে আল হাজরীর আরেকটি স্ট্রাইকে তিন গোলের জয় নিশ্চিত করেছে ওমান।

এরপরে কিছুটা গোছানোর চেষ্টা করলেও ওমানের বক্সে বল নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি বাংলাদেশের। বড় হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে জেমির বাহিনী।

এর মধ্য দিয়ে বিশ্বকাপ বাছাই মিশন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ছিটকে গেছে বাংলাদেশ। সুযোগ আছে এশিয়ান কাপের মূল পর্বে খেলার। তবে পেরুতে হবে প্লে-অফ বাধা।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

রোনালডোর রেকর্ডের ম্যাচে বড় জয় পর্তুগালের

রোনালডোর রেকর্ডের ম্যাচে বড় জয় পর্তুগালের

দ্বিতীয় গোলের পর রোনালডোর উদযাপন। ছবি: টুইটার

রোনালডো করলেন জোড়া গোল, গড়লেন ইউরোয় সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড। তাতে গেলবারে চ্যাম্পিয়নরা ইউরোর শুরুটা করল হাঙ্গেরির বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয় দিয়ে।

ইউরোপ সেরার শিরোপা ধরে রাখার ম্যাচে বুদাপেস্টে স্বাগতিক হাঙ্গেরির মুখোমুখি হয় পর্তুগাল। শুরুটা ভালোই হয় তাদের। শুধু গোলটা হচ্ছিল না। সময় যত গড়াচ্ছিল, ড্রয়ের আশঙ্কা বড় হচ্ছিল ততই।

সে আশঙ্কা মুছে যায় ৮০ মিনিটের পর। রোনালডো করেন জোড়া গোল, গড়েন ইউরোয় সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড। তাতে গেলবারে চ্যাম্পিয়নরা ইউরোর শুরুটা করে হাঙ্গেরির বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয় দিয়ে।

শুরু থেকে শ্রেয়তর প্রতিপক্ষ হলেও পর্তুগিজরা বিরতিতে গিয়েছিল গোলশূন্যভাবে। রোনালডোদের গোলের অপেক্ষা শেষ হয় ৮৪ মিনিটে। রাফায়েল গুয়েরেরো বক্সের ভেতর থেকে শট নেন। হাঙ্গেরিয়ান ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বল দিক বদলে জড়ায় জালে।

এর মিনিট চারেক পর পেনাল্টি পায় দলটি। সেখান থেকে গোল করে ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো বনে যান ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ইউরোয় ১০ গোলের মালিক।

শেষ বাঁশির ঠিক আগে পঞ্চম ইউরো আসর খেলতে নামা রোনালডো করেন আরেকটি গোল। সতীর্থ রাফা সিলভার সঙ্গে ওয়ান টু ওয়ান পাস খেলে গোলরকিপারকে একা পেয়ে যান তিনি। তাকেও ধোঁকা দিয়ে আলতো টোকায় বল জড়ান জালে।

তাতে নিশ্চিত হয় পর্তুগালের ৩-০ ব্যবধানের জয়। শনিবার জার্মানির বিপক্ষে রাত দশটায় নামবে সেলেকাওরা।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

একাদশে পাঁচ ডিফেন্ডার নিয়ে নামছে বাংলাদেশ

একাদশে পাঁচ ডিফেন্ডার নিয়ে নামছে বাংলাদেশ

ছবি: সংগৃহীত

গোলকিপার পজিশনে আনিসুর রহমান জিকোর উপর আস্থা রেখেছেন। রক্ষণে তপুর সঙ্গে রাফি, তারিক কাজী, রিমন ও ইয়াসিনকে দলভুক্ত করেছেন। আর মাঝমাঠে মানিক, রাকিব, আব্দুল্লাহ, ইব্রাহিম এবং আক্রমণে মতিন মিয়াকে স্কোয়াডে নিয়েছেন জেমি।

ওমানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের শেষ ম্যাচের একাদশ দিয়েছে বাংলাদেশ। দলে পাঁচ ডিফেন্ডার রাখা হয়েছে। মাঝমাঠে চারজন ও আক্রমণে একজনকে রাখা হয়েছে।

ওমানকে রুখে দেয়ার অসম্ভব চ্যালেঞ্জে আর কিছুখন পরেই কাতারের জসিম বিন স্টেডিয়ামে নামবে বাংলাদেশ।

তার আগে দল সাজানো নিয়ে বেশ চিন্তায় পড়তে হয়েছে জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি ডেকে। কেননা, জামাল ভূঁইয়াসহ মোটে পাঁচ ফুটবলার নেই এই ম্যাচে।

তাই বেশ সাবধানী হয়ে রক্ষণে ডিফেন্ডার বাড়িয়েছেন এই ইংলিশ ট্যাকটিশিয়ান।

গোলকিপার পজিশনে আনিসুর রহমান জিকোর উপর আস্থা রেখেছেন। রক্ষণে তপুর সঙ্গে রাফি, তারিক কাজী, রিমন ও ইয়াসিনকে দলভুক্ত করেছেন। আর মাঝমাঠে মানিক, রাকিব, আব্দুল্লাহ, ইব্রাহিম ও আক্রমণে মতিন মিয়াকে স্কোয়াডে নিয়েছেন জেমি।

দেড় বছর আগে ওমানের বিপক্ষে খেলাদের মধ্যে মোহাম্মদ ইব্রাহিম ও রিয়াদুল হাসান রাফি আছেন। ওই ম্যাচের বাকি ৯ জনই নেই এবারের ম্যাচে।

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশ একাদশ
গোলকিপার: আনিসুর রহমান জিকো, ডিফেন্ডার: তপু বর্মন, রিয়াদুল হাসান রাফি, তারিক কাজী, ইয়াছিন আরাফাত, রিমন হোসেন, মিডফিল্ডার: মানিক মোল্লা, রাকিব হোসেন, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, আবদুল্লাহ ফরোয়ার্ড: মতিন মিয়া।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

হাসপাতাল থেকে এরিকসেনের সেলফি

হাসপাতাল থেকে এরিকসেনের সেলফি

হাসপাতাল থেকে এরিকসেনের সেলফি। ছবি: ইনস্টাগ্র্যাম

কোপেনহেগেনের হাসপাতালে ভর্তি ইন্টার মিলান তারকা হাসপাতালের বিছানায় শোয়া অবস্থায় নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে এক সেলফি দিয়েছেন।

ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে ফিনল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে হার্ট অ্যাটাক করে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়া ডেনমার্কের মিডফিল্ডার ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন এখন ভালো আছেন। বর্তমানে কোপেনহেগেনের হাসপাতালে ভর্তি ইন্টার মিলান তারকা হাসপাতালের বিছানায় শোয়া অবস্থায় নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে এক সেলফি দিয়েছেন।

পুরো বিশ্বকে নাড়িয়ে দেয়া এরিকসেন মঙ্গলবার তোলা সেলফির সঙ্গে সবাইকে ধন্যবাদ জানান। লেখেন, ‘হ্যালো সবাই! বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা অসাধারণ ও ভালোবাসাপূর্ণ সব শুভেচ্ছা ও বার্তার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। আমার ও আমার পরিবারের জন্য এ এক অনেক বড় পাওয়া।’

নিজে সুস্থ বোধ করলেও এখনই তার হাসপাতাল ছাড়া হচ্ছে না। আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা বাকি আছে জানান ২৯ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

‘চলমান পরিপ্রেক্ষিতে আমি ভালো আছি। হাসাপাতালে আমাকে এখনও বেশ কিছু পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। কিন্তু আমার ভালো লাগছে এখন,’ লেখেন তিনি।

মাঠে হার্ট অ্যাটাকের পর প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে মাঠের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়। রোববার রাতে প্রায় দেড় ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর আবারও শুরু হয় ম্যাচ। ডেনমার্ক ফিনল্যান্ডের কাছে একমাত্র গোলে হেরে গেলেও হার-জিতের চেয়ে দুই দলের কাছেই বড় ছিল এরিকসেনের সুস্থতা।

ডেনমার্কের বাকি ম্যাচে দলের পাশে একজন পাঁড় ভক্তের মতোই থাকবেন বলে জানান এরিকসেন। পরের ম্যাচগুলোতে ডেনমার্কের জয় আশা করে লেখেন, ‘আমি এখন ডেনমার্ক দলে আমাদের ছেলেদের সমর্থন করব পরের ম্যাচগুলোতে। আশা করি তারা পুরো ডেনমার্কের জন্যই খেলবে।’

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

মৃত্যুকূপ জয়ের চ্যালেঞ্জ রোনালডোর সামনে

মৃত্যুকূপ জয়ের চ্যালেঞ্জ রোনালডোর সামনে

পর্তুগাল জাতীয় দলের অনুশীলনে ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো। ছবি: টুইটার

টুর্নামেন্টের আগে পর্তুগালের জন্য দুঃসংবাদ ছিল ম্যানচেস্টার সিটির উইংব্যাক জোয়াও কানসেলোর কোভিড পজিটিভ হওয়া। দুর্দান্ত এক মৌসুম কাটানো এই ডিফেন্ডারকে দলে না পেয়ে কিছুটা হতাশ হলেও বেশি ভাবতে চান না রোনালডো।

প্রায় দুই বছর আগে যখন ইউরো ২০২০-এর ড্র অনুষ্ঠিত হয় তখন থেকেই সবার নজর গ্রুপ এফ-এ। ইউরো চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল, বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ও চারবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন জার্মানি পড়েছে একই গ্রুপে।

তিন শিরোপা প্রত্যাশী দলের সঙ্গে রয়েছে নতুন শক্তি হাঙ্গেরি। সব মিলিয়ে এফ-গ্রুপ হয়ে দাঁড়িয়েছে মৃত্যুকূপ। আর এই ডেথগ্রুপের ডেথ ম্যাচগুলো শুরু হচ্ছে পর্তুগাল-হাঙ্গেরি লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে।

বরাবরের মতো পর্তুগালের মেগাস্টার অধিনায়কের দিকেই সবার নজর। ৩৬ বছরের ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো মাঠে কী করতে পারেন, সেটা গত দেড় দশকে বহুবার দেখেছে ফুটবল বিশ্ব।

তরুণ না হলেও নিজেকে আরও পরিপক্ব ভাবছেন রোনালডো। এখনও চনমনে আছেন ১৮ বছর আগের মতোই। হাঙ্গেরির বিপক্ষে ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে রোনালডো বলেন, ‘আমি ১৮ বছর, ১০ বছর বা পাঁচ বছর আগের মতো নেই। নিজেকে খাপ খাইয়ে নিতে হবে। এখন আমি অনেক পরিপক্ব। দীর্ঘদিন খেলতে হলে খাপ খাইয়ে নেয়া ছাড়া উপায় নেই। ১৮ বছরে আমি খাপ খাইয়ে নিতে শিখেছি। সব সময় ব্যক্তিগত ও দলীয়ভাবে জিতেই এসেছি।’

রাতের ম্যাচে মাঠে নামলেই পাঁচটি ইউরোতে খেলার অনন্য রেকর্ড গড়বেন রোনালডো। আর আলি দাইয়ি সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক ১০৯ গোলের রেকর্ডের চেয়ে মাত্র পাঁচ গোল পিছিয়ে আছেন সিআর সেভেন।

তবে আপাতত ব্যক্তিগত রেকর্ড নিয়ে ভাবছেন না পর্তুগিজ অধিনায়ক। হাঙ্গেরির বিপক্ষে জিতে ডেথ গ্রুপে এগিয়ে যেতে চায় তার দল।

‘আমার মনে হয় শারীরিক ও মানসিকভাবে দল প্রস্তুত। খেলোয়াড়রা অনেকেই তরুণ। এর মানে এই না যে তারা স্বপ্ন দেখতে পারবেন না। আমি জানি, সবাই মুখিয়ে আছে মাঠে নামতে।’

মৃত্যুকূপ জয়ের চ্যালেঞ্জ রোনালডোর সামনে
বুদাপেস্টে অনুশীলনে পর্তুগাল দল। ছবি: টুইটার



একই সুর পর্তুগালের হেড কোচ ফার্নান্দো সানতোসের কণ্ঠেও। নিজেদের শিরোপার জন্য অন্যতম ফেভারিট উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা এখন শিরোপা জিততে কী করা লাগবে, সেটা নিয়ে ভাবছি। প্রতিপক্ষ খুবই শক্তিশালী। টুর্নামেন্টে সাত-আটটা দল আছে, যারা শিরোপার দাবিদার। ডার্ক হর্স কয়েকটা দল আছে যাদেরও জেতার সুযোগ আছে। তাদের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য একটা যে, আমরা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন।’

টুর্নামেন্টের আগে পর্তুগালের জন্য দুঃসংবাদ ছিল ম্যানচেস্টার সিটির উইংব্যাক জোয়াও কানসেলোর কোভিড পজিটিভ হওয়া। দুর্দান্ত এক মৌসুম কাটানো এই ডিফেন্ডারকে দলে না পেয়ে কিছুটা হতাশ হলেও বেশি ভাবতে চান না রোনালডো।

‘কোভিড নিয়ে আর কথা বলতে চাই না। বলতে বলতে আমরা ক্লান্ত। দুঃখজনক পরিস্থিতি তবে আমাদের মনোযোগ নষ্ট হয়নি। খেলায় আমাদের পুরো মনোযোগ রয়েছে,’ বলেন রোনালডো।

কোভিডের কারণে ইউরোর অনেকগুলো ভেন্যুতে দর্শকসংখ্যা সীমিত রাখা হলেও, বুদাপেস্টের ফেরেঙ্ক পুসকাস স্টেডিয়ামে থাকছে পরিপূর্ণ। ৬৮ হাজার দর্শকের নামা নিয়ে বেশ এক্সাইটেড রোনালডো। বলেন, ‘এটা পার্ফেক্ট। সবগুলো ভেন্যু ভরা থাকলে ভালো লাগত। খেলোয়াড় ও দর্শকদের জন্য ব্যাপারটা দারুণ হতো। তবে এটা আমাদের হাতে নেই।’

হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে রাত ১০টায় স্বাগতিকদের মুখোমুখি হচ্ছে পর্তুগাল। তাদের পরই মিউনিখের আলিয়াঞ্জ আরেনায় জার্মানির মোকাবিলা করবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন

‘আমাদের মাথা ঠান্ডা ছিল না’

‘আমাদের মাথা ঠান্ডা ছিল না’

চিলির বিপক্ষে ম্যাচে গোল করার পর মেসির উচ্ছ্বাস। ছবি: টুইটার

বিশ্বকাপ বাছাই ও কোপা আমেরিকা মিলিয়ে টানা তিন ম্যাচে ড্র করল আর্জেন্টিনা। মার্তিনেস, দি মারিয়া, সার্হিও আগুয়েরোদের অভিজ্ঞ ও পরীক্ষিত ফরোয়ার্ড থাকার পরও গোলের দেখা পাচ্ছে না আলবিসেলেস্তেরা।

কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষে জয় দিয়ে শুরু করতে চেয়েছিল আর্জেন্টিনা। কিন্তু গোলমুখে সুযোগ হাতছাড়া করার মহড়ায় ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে দক্ষিণ আমেরিকান জায়ান্টদের।

অধিনায়ক লিওনেল মেসির অসাধারণ ফি-কিকে লিড নেওয়ার পর সেটি ধরে রাখতে পারেনি আর্জেন্টিনা। এদুয়ার্দো ভার্গাসের পেনাল্টি গোলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে দুই দল।

ম্যাচ শেষে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় লিওনেল মেসি জানান, ম্যাচে শান্ত থাকতে পারেননি তারা। যার কারণে পুরো তিন পয়েন্ট পাওয়া হয়নি।

‘ম্যাচটা সহজ ছল না। আমরা মাথা ঠান্ডা রাখতে পারিনি। বলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দ্রুত খেলতে পারিনি। পেনাল্টিটাই ম্যাচটা পালটে দেয়।’

বরাবরের মতো মেসির একমাত্র উজ্জ্বল ছিলেন ম্যাচে। একের পর এক সুযোগ নষ্ট করেছেন লাউতারো মার্তিনেস, নিকোলাস গনসালেসরা। চিলির বিপক্ষে ড্রয়ে মেসি তবুও হতাশ হচ্ছেন না।

পরের ম্যাচে শক্তিশালি উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়েই এখন ভাবছে পুরো স্কোয়াড এমনটাই জানালেন ছয়বারের ব্যলন ডর জয়ী।

‘আমরা জেতা শুরু করতে চেয়েছিলাম। এখন উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলা। এটাও একটা কঠিন ম্যাচ হতে যাচ্ছে। ব্যাপার না! পরের ম্যাচ নিয়েই আমরা ভাববো।’

বিশ্বকাপ বাছাই ও কোপা আমেরিকা মিলিয়ে টানা তিন ম্যাচে ড্র করল আর্জেন্টিনা। মার্তিনেস, দি মারিয়া, সার্হিও আগুয়েরোদের অভিজ্ঞ ও পরীক্ষিত ফরোয়ার্ড থাকার পরও গোলের দেখা পাচ্ছে না আলবিসেলেস্তেরা।

হেড কোচ লিওনেল স্কালোনির বিশ্বাস দল শিগগিরই জেতা শুরু করবে। শিষ্যদের সামর্থ্য নিয়ে সন্দেহ নেই তার। বলেন, ‘গোলের সুযোগ তৈরি করতে না পারলে আমি চিন্তায় পড়তাম। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আমরা সুযোগ তৈরি করছি। বক্সে প্রচুর খেলোয়াড় আমরা রাখতে পেরেছি। আমাদের স্কোয়াড বেশ শক্তিশালী। যারা আছেন সবাই দারুণ খেলোয়াড়।’

উরুগুয়ের বিপক্ষে শনিবার ভোর ছয়টায় আর্জেন্টিনা তাদের দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামছে। তাদের পরের ম্যাচ ২২ জুন প্যারাগুয়ের বিপক্ষে। আর ২৯ জুন বলিভিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আর্জেন্টিনা শেষ করবে তাদের গ্রুপ পর্ব।

আরও পড়ুন:
ব্রাজিল দলে ফিরলেন ফ্রেড ও আলভেস
‘সেরা সময় পেরিয়ে এসেছে নেইমার’
পিএসজিতেই থাকছেন নেইমার

শেয়ার করুন