শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হলো না বাংলাদেশের

২-১ ব্যবধানে নেপালের কাছে হেরে ট্রফি পাওয়ার সুযোগ হারায় বাংলাদেশ। ছবি: বাফুফে

শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হলো না বাংলাদেশের

দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে সোমবার বিকেল পৌনে ছয়টা শুরু হওয়া ম্যাচে যে বাংলাদেশ হেরেছে ২-১ গোল ব্যবধানে। দশরথ জেতা হলো না। ট্রফি না ছোঁয়ার হতাশা নিয়ে দেশে ফিরতে হচ্ছে লাল-সবুজদের।

রেফারি ম্যাচ সমাপ্তির বাঁশি বাজিয়ে দিলেন। মাঠে মাথা নিচু করে শুয়ে আছেন জামাল ভূঁইয়া-জনিরা। ক্রন্দনরত জাতীয় ফুটবলারদের এ দৃশ্য ট্রফি না পাওয়ার। ১৭ বছর ধরে কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা না পাওয়া আক্ষেপের দৃশ্য। এই ছবি তীরে এসে তরী ডোবানোর ছবি।

দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে সোমবার বিকেল পৌনে ছয়টা শুরু হওয়া ম্যাচে যে বাংলাদেশ হেরেছে ২-১ গোল ব্যবধানে। দশরথ জেতা হলো না। ট্রফি না ছোঁয়ার হতাশা নিয়ে দেশে ফিরতে হচ্ছে লাল-সবুজদের।

প্রথমার্ধে দুই গোলে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে দারুণভাবে ব্যাক করে সমতায় ফিরতে ফিরতে ফেরা হলো না বাংলাদেশের। দশরথের ময়দানে হার বরণ করে মাঠ ছাড়তে হয়েছে জাতীয় ফুটবল দলকে।

কত প্রস্তুতি কত হিসেব, কত আক্ষেপ মেটানোর গল্প। কত ইতিহাস। সবই মিলিয়ে গেল নেপালের কাছে হেরে।

এটাই কি হওয়ার কথা ছিল?

ফাইনালের মতো ম্যাচে মূল একাদশেই চমক দেখে শুরু। স্কোয়াডে টুর্নামেন্টে অভিষেক করা দুই নবাগত ডিফেন্ডার রিমন হোসেন ও মেহেদী হাসানকে মূল একাদশে সুযোগ করে দেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি ডে। ফরোয়ার্ড লাইন আপ শক্তিশালী করতে মাঠে নামানো হয় পাঁচ আক্রমণভাগের ফুটবলার। ফরোয়ার্ড সাদ উদ্দীন খেলেন ডিফেন্ডার হিসেবে।

গোলের দেখা পেতে মরিয়া জেমি আক্রমণ সাঁজায় হাফ ডজন ফরোয়ার্ড নিয়ে। দৃশ্যত তার মাসুল দিতে হলো প্রথমার্ধে। এই ৪৫ মিনিটেই যা করার করে ফেলেছে নেপাল। মাঝমাঠ দখল করে ম্যাচটাকে বগলবন্দী করে ফেলেছে।

ম্যাচের শুরু থেকেই আধিপত্য নিয়ে খেলতে থাকে নেপাল। মাঝমাঠ যেন নিজেদের সম্পত্তি বানিয়ে ‍কড়ায়গণ্ডায় উসুলও করে ফেলে নেপাল।

ম্যাচের ১৭ মিনিটে নেপালের দারুণ একটা সুযোগ কর্নারের বিনিময়ে ফিরিয়ে দেন আনিসুর রহমান জিকো।

তাতে অবশ্য লাভ হয় না। কর্নার থেকে পরের মিনিটেই লিড নিয়ে ফেলে নেপাল। কর্নার থেকে আসা বলটা প্রাথমিকভাবে রাকিব ক্লিয়ার করলে ফিরতি শটে বল ডান প্রান্ত দিয়ে জালে জড়ান আনমার্ক থাকা সঞ্জক রাই।

গোল খেয়েও ম্যাচে ফেরার কোনো সমন্বিত প্রয়াস দেখা যায়নি হাফ ডজন ফরোয়ার্ডের।

উল্টো পাল্টা আক্রমণে ম্যাচের ৩০ মিনিটে ডিফেন্ডার রিয়াদুল রাফির ভুলে ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারত নেপাল। রাফি বল ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে বল নিয়ে ডি-বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়েন নেপালের ফরোয়ার্ড অঞ্জন বিস্তা। এই অবস্থায় এগিয়ে আসেন গোলকিপার আনিসুর রহমান জিকো। তাকে আসতে দেখে চিপ করে জালে জড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন বিস্তা। বল চলে যায় বারের একটু উপর দিয়ে।

ম্যাচে সমতায় ফেরার চেষ্টায় কিছুটা গুছিয়ে ওঠার চেষ্টা করে বাংলাদেশ। কর্নার আদায় করে নেয় ম্যাচের ৩৪ মিনিটে। জামালের নেয়া শট সহজেই ক্লিয়ার করে নেপাল। ওই আক্রমণে আরেকটি ফাউল আদায় করে নেয় লাল-সবুজরা। জামালের দেয়া বাঁকানো ক্রসটা মেহেদীর হেডে চলে যায় বারের উপর দিয়ে। আরেকবার হতাশ হয়ে নেপালের রক্ষণ থেকে ফিরতে হয় বাংলাদেশকে।

সুযোগ কাজে লাগাতে বাংলাদেশের মতো ভুল করেনি নেপাল। ৪২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে আয়োজকরা। ডিফেন্ডার রিমনের আনমার্ক করা নেপালের ফরোয়ার্ড বিশাল রাই তার সামনে থেকে বল নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন। ঠান্ডা মাথায় ওয়ান টু ওয়ানে গোলকিপার জিকোকে পরাস্ত করেন।

ব্যস এখানেই প্রায় যা করার করে ফেলে নেপাল। দুই গোলে পিছিয়ে বিরতি যায় বাংলাদেশ।

এই অবস্থায় দ্বিতীয়ার্ধে ছক বদলাতে বাধ্য হন জেমি। ডিফেন্সে ও মাঝমাঠ-ফরোয়ার্ড তিন পজিশনে বেশ কিছু বদল করান।

নেপালের ডাবল ধামাকার পর ব্যবধান কমাতে মরিয়া হয় বাংলাদেশ। প্রথমার্ধের একাদশের কয়েকটি বদল আসে দ্বিতীয়ার্ধে। স্ট্রাইকার সুমন রেজার বদলে ডিফেন্ডার টুটুল বাদশা আর ডিফেন্ডার রিমন হোসেনের বদলে ইয়াসিন আরাফাত, ফরোয়ার্ড রয়েলের বদলে মাহবুবুর রহমান সুফিলকে নামান জেমি।

বদলি হিসেবে নেমে খেলার মধ্যে ছন্দও খুঁজে পেতে শুরু করে বাংলাদেশ।

৬৭ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেয়া ইয়াসিন আরাফাতের বুলেট শটটা বার ঘেষে বাইরে চলে যায় মাঠের বাইরে।

ধারাবাহিক আক্রমণের ফল হিসেবে ৮২ মিনিটে ব্যবধান কমায় বাংলাদেশ। জামাল ভূঁইয়ার কর্নার কিক থেকে দারুণ হেডে বল জালে জড়ান বদলি হিসেবে মাঠে নামা মাহবুবুর রহমান সুফিল।

অতিরিক্ত সময়ের ছয় মিনিট মিলিয়ে ১৩ মিনিট সমতায় ফিরতে হন্যে হয়ে ওঠে বাংলাদেশ। সেই স্বপ্নের গোলের দেখা পাওয়া গেল না। হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হলো বাংলাদেশের। ট্রফি ছুঁয়ে দেখার আক্ষেপ আর সময়টাও বাড়ল লাল-সবুজদের।

এদিকে ৩৭ বছর পর কোনো টুর্নামেন্ট জিতলো নেপালের সিনিয়র দল। প্রতিপক্ষ হিসেবে বাংলাদেশকেই ১৯৮৪ সালে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে হারিয়ে এই দশরথেই ট্রফি জিতেছিল নেপাল।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ক্লাসিকো জিতে লা লিগার শীর্ষে রিয়াল

ক্লাসিকো জিতে লা লিগার শীর্ষে রিয়াল

প্রথম গোলের পর উদযাপনে বেনজেমা। ছবি: টুইটার

২-১ গোলের জয়ে ৩০ ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার শীর্ষে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাদের চেয়ে এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। ৩০ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে বার্সেলোনা।

শনিবারের এল ক্লাসিকোতে রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার মান-সম্মানের ব্যাপার তো ছিলই, সঙ্গে সুযোগ ছিল লা লিগা পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ওঠার।

জয় নিয়ে সেই কাজটি ঠিকই করতে পেরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। অন্যদিকে ২-১ গোলের হারে বার্সেলোনা নেমে গেছে লা লিগা টেবিলের তিন নম্বরে।

রিয়ালের মাঠে শুরু থেকেই বার্সেলোনার পায়ে বল থাকলেও কাউন্টার অ্যাটাকে ভয়ংকর ছিল রিয়ালই। তার ফলও মেলে ১৩ মিনিটে।

দারুণ এক কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ক্রস করেন লুকাস ভাসকেস। সেই ক্রসে ব্যাকহিল করে বার্সেলোনার জালে বল জড়ান রিয়াল মাদ্রিদের কারিম বেনজেমা। স্বাগতিকরা এগিয়ে যায় ১-০ গোলে।

২৮ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন টনি ক্রুস। বার্সার রোনাল্ড আরাউহো ভিনিসিয়াস জুনিয়রকে বক্সের বাইরে ফাউল করলে ফ্রি কিক পায় রিয়াল। সেখান থেকে ক্রুসের শট সার্জিনিয়ো ডেস্ট ও জর্দি আলবার গায়ে লেগে জড়ায় জালে।

এরপর প্রথমার্ধে আরও কয়েকটি সুযোগ পেলেও তা গোলে পরিণত করতে ব্যর্থ হয় রিয়াল। আর বার্সেলোনা অধিনায়ক লিওনেল মেসির একটি কর্নার ফিরে আসে বারে লেগে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই রিয়ালকে চেপে ধরে বার্সেলোনা। ফল আসে ৬০ মিনিটের মাথায়। আলবার ক্রসে পা ছুঁইয়ে ব্যবধান ২-১ করেন অস্কার মিনগেসা।

বাকি সময়ে চেষ্টা করে গেলেও আর কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না বার্সেলোনা। ৯০তম মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে কাসেমিরো মাঠ ছাড়লে সুযোগ তৈরি হয় বার্সার সামনে।

ম্যাচের একদম শেষ মুহূর্তে গোলের কাছাকাছি গিয়েছিল বার্সা। কিন্তু তরুণ মিডফিল্ডার ইলাইশ মরিবার শট ফিরে আসে বারে লেগে। রেফারিও বাজান ম্যাচ শেষের বাঁশি।

এই জয়ে ৩০ ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার শীর্ষে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাদের চেয়ে এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। ৩০ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে বার্সেলোনা।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

চারবার বুলেটবিদ্ধ হয়েও ফুটবলে ফেরার নামই জামাল

চারবার বুলেটবিদ্ধ হয়েও ফুটবলে ফেরার নামই জামাল

ট্রফি হাতে জামাল ভূঁইয়া। ছবি: সংগৃহীত

ফুটবলেই ফেরার কথা ছিল না তার। নিজেও ফুটবল ছাড়বেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। দমে যাননি। অবিশ্বাস্যভাবে ট্রোমা কাটিয়ে ফুটবলে ফিরেছেন। নাড়ির টানে এই ৫৬ হাজার বর্গমাইলের ছোট্ট দেশে ফেরেন ২০১১ সালে। ২০১৩ সালে জাতীয় দলে অভিষেক করেন।  

প্রাণ নেয়ার জন্য একটা বুলেটই হয়তো অনেক সময় যথেষ্ট। ভাবলেও গায়ে কাঁটা দেয়, চার চারবার বুলেটবিদ্ধ হয়েছিলেন দেশের এক ফুটবলার। কোমায় থাকতে হয়েছে কয়দিন। পরে সেই দুঃসহ ট্রোমা থেকে বেরিয়ে ফিরেছিলেন ফুটবলে।

শুধু তাই নয় খেলতে পারতেন ইউরোপের সেরা লিগগুলোতেও। সবকিছু ছাপিয়ে নাড়ির টানে ডেনমার্ক থেকে বাংলাদেশ আসা এই খেলোয়াড় এখন দেশের ফুটবলের পোস্টারবয়।

বুলেট বাধা পেরিয়ে ফুটবল জীবনে ফেরার এই শক্তির নামই জামাল ভূঁইয়া। আজ ৩১’এ পা রাখলেন এই ডেনমার্ক প্রবাসী বাংলাদেশি ফুটবলার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমজুড়ে সতীর্থ-সাবেক ও ফুটবল প্রেমিদের শুভেচ্ছা প্লাবিত হচ্ছেন জাতীয় দলের এই অধিনায়ক।

হওয়ার কারণও আছে।

ইউরোপের দল ডেনমার্কের সবচেয়ে বড় ক্লাব এফসি কোপেনহেগেনের যুব দলে খেলেছেন জামাল। ক্লাবের সতীর্থরা এখন ইউরোপ মাতাচ্ছেন! না ভুল পড়ছেন না।

নির্দিষ্ট করে বললে কোপেন হেগেন অ্যাকাডেমিতে তার তিন বন্ধুর একজন ড্যানিয়েল ভাস যিনি স্প্যানিশ লিগের অন্যতম শীর্ষ দল ভ্যালেন্সিয়ার মিডফিল্ডার। একজন থমাস ডিলেইনি যিনি জার্মান লিগের জায়ান্ট বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের মিডফিল্ডার। আরেকজন কেনিথ জোহারে যিনি ইংল্যান্ডের এফএ কাপের পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ব্রুমের স্ট্রাইকার।

তেমনই হতে পারতেন জামালও। যুব দলে খেলার সময় তো বাজে একটা ঘটনা ঘটে আপনার জীবনে। চার চারবার বুলেটবিদ্ধ হোন তিনি। একটা বুলেট লাগে কনুইয়ে, একটা পেটের নিচের দিকে ও বাকী দুইটা শরীরের দুই পাশে। এই ঘটনায় কোমায় ছিলেন দুইদিন। আর হাসপাতালে থাকতে হয়েছে চার মাস।

ফুটবলেই ফেরার কথা ছিল না তার। নিজেও ফুটবল ছাড়বেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। দমে যাননি। অবিশ্বাস্যভাবে ট্রোমা কাটিয়ে ফুটবলে ফিরেছেন। নাড়ির টানে এই ৫৬ হাজার বর্গমাইলের ছোট্ট দেশে ফেরেন ২০১১ সালে। ২০১৩ সালে জাতীয় দলে অভিষেক করেন।

এসে নিজের জাত চিনিয়েছেন জামাল। ক্লাবপর্যায়ে সাফল্য পেতেও দেরি হয়নি এই মিডফিল্ডারের। ঝুলিতে যোগ হয় কয়েকটি শিরোপা। ক্লাবের জার্সিতে শেখ জামালের হয়ে প্রিমিয়ার লিগ, ফেডারেশন কাপ ও কিংস কাপের ট্রফি উঁচিয়ে ধরেছেন।

স্প্যানিশ লিগ লা লিগায় ধারাভাষ্য দেন জামাল ভূঁইয়া

ব্যক্তিগত পর্যায়েও সাফল্যের স্বাক্ষর দেখান। ২০১৪ সালে কিংস কাপের সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন। ২০১৫ সালে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপেও সেরা ফুটবলারের পুরস্কারটাও বগলদাবা করেছেন। কাতারের বিপক্ষে গোল করে ২০১৮ সালের এশিয়ান গেমসে (অনূর্ধ্ব-২৩) ইতিহাসের প্রথমবার লাল-সবুজকে নক আউট পর্বে তুলেছেন।

২০১৮ সাল থেকে এখনও জাতীয় দলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জামাল ভূঁইয়া। দেশের ফুটবলের স্বপ্নের ফেরিওয়ালা বলা যায় তাকে। তার ৩১তম জন্মদিনে তাকে জানাই শুভ কামনা। এভাবেই দেশের ফুটবলটাকে তুলে ধরুন আরও ওপরে। জাতিকে এখনও অনেককিছু দেয়ার আছে আপনার।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

১০ জনের লিডসের কাছে নিজ মাঠে হারল সিটি

১০ জনের লিডসের কাছে নিজ মাঠে হারল সিটি

ছবি: এএফপি

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শনিবার পেপ গার্দিওলার দল হেরেছে ২-১ গোল ব্যবধানে।

ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে স্টুয়ার্ট ডালাসের গোলে ঘরের মাঠে ১০ জনে পরিণত হওয়ার লিডস ইউনাইটেডের কাছে হেরেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শনিবার পেপ গার্দিওলার দল হেরেছে ২-১ গোল ব্যবধানে।

শুরু থেকে আধিপত্য নিয়ে খেললেও ম্যাচের ৪২ মিনিটে দুর্দান্ত গোল করে অ্যাওয়ে ম্যাচে লিড নেয় লিডস ইউনাইটেড। ডি-বক্সের ভেতর থেকে প্যাট্রিক বামফোর্ডের দেয়া পাস থেকে মাটি কাঁপানো শট নেন স্টুয়ার্ট। বল বারের কোনায় লেগে জালে জড়ালে উল্লাসে মেতে ওঠে লিডস।

তার দুই মিনিট পরেই লাল কার্ড দেখেন লিডসের অধিনায়ক লিয়াম কুপার। ফলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় তার দল।

এই সুযোগটা কাজে লাগিয়ে ম্যাচের ৭২ মিনিটে সমতায় ফেরে সিটি। বার্নার্দো সিলভার ক্রস থেকে ওয়ান টাসে বল জালে জড়ান ফেরান তোরেস (১-১)।

ম্যাচটা ড্রয়ের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারত সিটি। গোলের সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থতার পাশাপাশি শেষ গোলে কিছুটা ডিফেন্সিংয়ে ভুলে গোল আদায় করে নেয় স্টুয়ার্ট ডালাস। অতিরিক্ত সময়ে এজগিয়ান আলিয়োস্কির ক্রস থেকে বল গোলকিপার মরিসকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়িয়ে নিজের জোড়া গোল আদায় করে দলকে জয়ের স্বাদ দেন ডালাস।

ঘরের মাঠেই গত মাসে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে সবশেষ হেরেছিল গার্দিওলার দল।

হারের পর পয়েন্ট টেবিলে অবশ্য বড় কোনো ক্ষতি হয়নি সিটির। ৩২ ম্যাচে ৭৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই রয়েছে তারা। দুই ম্যাচ কম খেলে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে নগর প্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। আর দুর্দান্ত জয়ে নয়ে আছে লিডস।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

মেসিকে বার্সেলোনাতেই চান জিদান

মেসিকে বার্সেলোনাতেই চান জিদান

জিদান ও মেসি। ছবি: টুইটার

শনিবার লা লিগায় রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে বার্সেলোনা। যদি মেসি চুক্তি নবায়ন না করেন, তাহলে এটিই হতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারের শেষ ক্লাসিকো।

লিওনেল মেসির সঙ্গে বার্সেলোনার চুক্তি শেষ এ বছরের জুনের ৩০ তারিখ। তার পর মেসি কোথায় যাবেন, সেটি এখনও অজানা।

জোয়ান লাপোর্তা বার্সেলোনার নতুন সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পরই বলেছিলেন, তিনি মেসিকে বার্সায়ই রাখতে চান। কিন্তু এখনও মেসির নতুন চুক্তি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়নি।

শনিবার লা লিগায় রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে বার্সেলোনা। যদি মেসি চুক্তি নবায়ন না করেন, তাহলে এটিই হতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারের শেষ ক্লাসিকো।

কিন্তু তেমনটি চান না রিয়াল মাদ্রিদ কোচ জিনেদিন জিদান। তিনি চান, মেসি থাকুক বার্সেলোনায়ই।

‘আমি চাই না যে আগামীকালের ম্যাচটি মেসির শেষ ক্লাসিকো হোক। সে বার্সায় খুশি এবং আমরা চাই সে সেখানেই থাকুক। তার থাকাটা লা লিগার জন্য ভালো,’ শনিবারের ক্লাসিকোর আগে সংবাদ সম্মেলনে বলেন রিয়াল মাদ্রিদের কোচ।

মেসির পাশাপাশি রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক সার্জিও রামোসের চুক্তিও শেষ হচ্ছে জুনে। রামোস যেন রিয়ালেই থাকেন, তেমনটি চান বার্সেলোনা কোচ রোনাল্ড কুম্যান।

‘জিদান বলেছে সে মেসিকে বার্সায়ই চায়, আমি কি চাই রামোসও রিয়ালে থাক? লা লিগার জন্য সবচেয়ে ভালো হয় যদি সেরা খেলোয়াড়রা এখানে থাকে। অবশ্যই আপনি তাদের দুজনের (রামোস ও মেসি) মধ্যে তুলনা করতে পারবেন না, একজন ফরোয়ার্ড ও আরেকজন ডিফেন্ডার। আশা করছি রামোস রিয়ালে থাকবে এবং মেসি আমাদের সঙ্গে,’ সংবাদ সম্মেলনে বলেন কুম্যান।

শনিবারের ক্লাসিকোতে মেসি খেলতে পারলেও অবশ্য পারছেন না রামোস। হাঁটুর চোটের কারণে তিনি ছিটকে গেছেন এক মাসের জন্য, ক্লাসিকো তাই তাকে দেখতে হবে মাঠের বাইরে থেকেই।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

ইউরোপায় ইউনাইটেডের জয়, আয়াক্সের হার

ইউরোপায় ইউনাইটেডের জয়, আয়াক্সের হার

উদযাপনে ইউনাইটেড খেলোয়াড়রা। ছবি: টুইটার

গ্রানাডাকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়েছে ইউনাইটেড। অন্যদিকে রোমার কাছে ঘরের মাঠে হেরেছে আয়াক্স, নিজেদের মাঠে স্লাভিয়া প্রাহার সঙ্গে ড্র করেছে আর্সেনাল।

ইউয়েফা ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে জয় পেয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ভিয়ারিয়াল। অন্যদিকে রোমার কাছে ঘরের মাঠে হেরেছে আয়াক্স, নিজেদের মাঠে স্লাভিয়া প্রাহার সঙ্গে ড্র করেছে আর্সেনাল।

স্প্যানিশ ক্লাব গ্রানাডার মাঠে তাদেরকে ২-০ গোলে হারিয়ছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ৩১ মিনিটে মার্কাস র‍্যাশফোর্ড ও ৯০ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্রুনো ফার্নান্দেস গোল করে জয় এনে দেন রেড ডেভিলদের।

রোমার বিপক্ষে ঘরের মাঠে ডেভি ক্লাসেনের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল আয়াক্স। দ্বিতীয়ার্ধে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ পেলেও দুসান তাদিচ সেটি পারেননি। তার পেনাল্টি ফিরিয়ে দেন রোমা গোলকিপার পাউ লোপেজ।

পেনাল্টি বাঁচিয়ে দেওয়ার মিনিট চারেক পরেই লরেঞ্জো পেলেগ্রিনির গোলে সমতায় ফেরে রোমা। আর ৮৭ মিনিটে রজার ইবানেজের গোলে ২-১ গোলে এগিয়ে গিয়ে জয় নিশ্চিত করে রোমা।

ঘরের মাঠে স্লাভিয়া প্রাহার সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে আর্সেনাল। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর ৮৬ মিনিটে নিকোলাস পেপের গোলে জয়ের পথেই ছিল গানার্সরা।

কিন্তু যোগ করা সময়ে স্লাভিয়াকে মহামূল্যবান এক এওয়ে গোল এনে দেন তমাস হোলেস, তাতে ম্যাচ শেষ হয় ১-১ গোলের সমতায়।

অন্যদিকে দিনামো জাগরেবের মাঠে জেরার্ড মোরেনোর পেনাল্টি থেকে গোলে স্বাগতিকদের ১-০ ব্যবধানে হারিয়েছে ভিয়ারিয়াল।

ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগের চারটি ম্যাচই হবে আগামী বৃহস্পতিবার।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

তোরেস আউট, সানডে ইন

তোরেস আউট, সানডে ইন

ছবি: সংগৃহীত

আগামী শনিবার (১০ এপ্রিল) ঢাকায় পৌঁছার কথা সানডে চিজোবার। এরপর কোয়ারেন্টিন স্বাস্থ্যবিধি মেনে দলের অনুশীলনে যোগ দেবেন এই নাইজেরিয়ান ফুটবলার। আবাহনীর জার্সিতে ৫৬ ম্যাচে ৪০ গোল করেছেন এই স্ট্রাইকার।

আগামী ১৪ এপ্রিল এএফসি কাপের চ্যালেঞ্জে মাঠে নামতে যাচ্ছে ঢাকা আবাহনী। তার আগে দলের শক্তি বাড়াতে আক্রমণভাগের পুরনো সঙ্গী নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার সানডে চিজোবাকে ফেরাচ্ছে আকাশী-হলুদ বাহিনী। ছেড়ে দিয়েছে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ফ্রান্সিসকো তোরেসকে।

বিষয়টি বৃহস্পতিবার রাতে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন আবাহনীর ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু।

বলেন, ‘সমঝোতার মাধ্যমে তোরেসকে ছেড়ে দিয়েছি। সানডে চিজোবাকে ব্যাক করাচ্ছি।’

এএফসি কাপের মতো গুরুত্বপূর্ণ আসর সামনে। ১৪ এপ্রিল মালদ্বীপের ক্লাব ঈগলসের সঙ্গে প্রিলিমিনারি পর্বের ম্যাচ। আর মাত্র ৬ দিন বাকী আছে ম্যাচের।

এই অবস্থায় প্রিমিয়ার লিগে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে (সাত গোল) ছেড়ে দেয়াটা দলের জন্য ক্ষতির কারণ হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সানডে আসতেছে। আক্রমণভাগে আগের মতোই হবে। ওদের সমন্বয় আশা করি হবে।’

ঢাকা আবাহনী ছাড়ার পর প্রায় দেড় বছর ধরে কোনও ক্লাবের সঙ্গে জড়িত নেই সানডে। হঠাৎ করে এসেই দলের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার পাশাপাশি ফিটনেসে ঘাটতির ইস্যু থাকছে। এই অবস্থায় তাকে দলে নেয়ার সিদ্ধান্ত কতটা বাস্তব এমন প্রশ্নে ইতিবাচক রুপু।

বলেন, ‘তাকে আগে থেকেই বলা হয়েছে। সে অনুশীলনের মধ্যেই আছে। সো ফিটনেসে সমস্যা হবে না আশা করি। কোচ মারিও লেমস বিষয়টিতে রাজী হয়েছেন।’

আগামী শনিবার (১০ এপ্রিল) ঢাকায় পৌঁছার কথা সানডে চিজোবার। এরপর কোয়ারেন্টিন স্বাস্থ্যবিধি মেনে দলের অনুশীলনে যোগ দেবেন এই নাইজেরিয়ান ফুটবলার। আবাহনীর জার্সিতে ৫৬ ম্যাচে ৪০ গোল করেছেন এই স্ট্রাইকার।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় ফুটবল স্টেডিয়ামে এএফসি থেকে বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দর্শকশূন্যভাবে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন

মেসি না থাকলে আরও শিরোপা জিততাম: রামোস

মেসি না থাকলে আরও শিরোপা জিততাম: রামোস

মেসি ও রামোস। ছবি: টুইটার

শেষ দশটি লিগের ছয়টিই গিয়েছে লিওনেল মেসির বার্সেলোনার ঘরে, মাত্র তিনটি রিয়ালের।

শেষ দশ মৌসুমে চার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতলেও, ঘরের মাটি স্পেনে নিয়মিতভাবে লিগ জিততে পারেনি রিয়াল মাদ্রিদ। শেষ দশটি লিগের ছয়টিই গিয়েছে লিওনেল মেসির বার্সেলোনার ঘরে, মাত্র তিনটি রিয়ালের।

এই মৌসুমের শিরোপা নিয়েও চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে আতলেতিকো মাদ্রিদ, ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে বার্সেলোনা ও ৬৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে রিয়াল মাদ্রিদ।

এমন অবস্থায় শনিবার এল ক্লাসিকোতে মুখোমুখি হবে বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়ালের বিপক্ষে বার্সেলোনা অধিনায়ক মেসির রেকর্ডটা অবশ্য মন্দ নয়, ৪৪ ম্যাচ খেলে করেছেন ২৬ গোল।

অভিষেকের পর থেকেই রিয়ালকে ভুগিয়ে আসছেন মেসি। নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম হ্যাটট্রিক করেন লস ব্লাংকোসদের বিপক্ষে। এরপর নিয়মিতভাবে করেছেন গোল। শিরোপাবঞ্চিত করেছেন রিয়ালকে।

রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়ক সার্জিও রামোস তাই যখন বলেন, মেসি না থাকলে তারা জিততেন আরও বেশি শিরোপা, তা বিস্মিত করেনি কাউকেই।

‘আমরা মেসির বিপক্ষে অনেক ভোগান্তির শিকার হয়েছি। হয়ত সে যদি বার্সেলোনায় না থাকত, তাহলে আমরা অনেক বেশি শিরোপা জিততাম’, নিজের ডকুমেন্টারি ‘দ্য লেজেন্ড অফ সার্জিও রামোস’ এ এমনটি বলেন রিয়াল অধিনায়ক।

এল ক্লাসিকোতে অবশ্য রামোসকে পাচ্ছে না রিয়াল মাদ্রিদ। হাঁটুর চোটে এক মাসের জন্য ছিটকে গেছেন রিয়াল অধিনায়ক। করোনা পজিটিভ হয়ে এই ম্যাচে নেই রাফায়েল ভারানও।

বার্সেলোনা দলেও আছে চোট সমস্যা। চোটের কারণে ক্লাসিকোতে বার্সা পাচ্ছে না জেরার্ড পিকেকে।

আরও পড়ুন:
দুই গোলে পিছিয়ে বিরতিতে বাংলাদেশ
ফাইনালে বাংলাদেশের মূল একাদশ, জিতলে পুরস্কার ২১ লাখ
১৭ বছরের শিরোপা খরা কাটবে বাংলাদেশের?
ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে চান রানা
দশরথে গোল যেন মরীচিকা

শেয়ার করুন