পরীমনির বাসায় কেন যাব: প্রশ্ন চয়নিকার

পরীমনির বাসায় কেন যাব: প্রশ্ন চয়নিকার

চয়নিকা চৌধুরী ও পরীমনি। ছবি: সংগৃহীত

পরীমনির সংকটে তার পাশে চয়নিকা চৌধুরীকে দেখা যাচ্ছে না কেন, তা জানতে চাওয়া হয় নির্মাতার কাছে। তিনি বলেন, পরীমনির সঙ্গে তার যোগাযোগ ও আড্ডা নিতান্ত পেশাগত কারণে।

বিশ্বসুন্দরী সিনেমার পর নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীর পরিচালনায় চিত্রনায়িকা পরীমনির কাজ করার কথা ছিলঅন্তরালে নামের ওয়েব সিরিজে।

চয়নিকা নিউজবাংলাকে জানান, আগস্টের শেষে তাদের কাজটি শুরু করার কথা।

১৩ জুন রাতে পরীমনি তাকে বোট ক্লাবে হেনস্তার অভিযোগ করে যখন সংবাদ সম্মেলন করছিলেন, তখন তার পাশে দেখা গেছে চয়নিকা চৌধুরীকে।

র‌্যাবের অভিযানে পরীমনি গ্রেপ্তার হয়ে এখন পুলিশের হাতে। পরীমনির এই সংকটে চয়নিকা চৌধুরী কেন পাশে নেই, তা নিয়ে আলোচনা চলছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চয়নিকা চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘১৩ জুন রাতে আমি পরীমনির কাছে গিয়েছিলাম তার দেয়া স্ট্যাটাস পড়ে। বিষয়টা কিন্তু এমন না যে, আমি সব আগে থেকেই জানতাম।’

চয়নিকা আরও বলেন, ‘অনেকে অনেক কথাই বলবে। আমি গেলেও আলোচনা-সমালোচনা করবে; না গেলেও আলোচনা-সমালোচনা করবে। এতে আমার কিছু যায় আসে না।’

চয়নিকা বলেন, ‘পরীমনির বাসায় অভিযান চলার কথা শুনে সেখানে আমি কেন যাব? আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইন অনুযায়ী সেখানে কাজ হবে, এটাই তো স্বাভাবিক।

‘আমার সেখানে কী করার আছে? আর সেখানে গেলেই কি আমি পরীমনির বাসায় যেতে পারতাম?’

বিশ্বসুন্দরী সিনেমার পর থেকেই পরীমনি ও চয়নিকাকে একসঙ্গে দেখা গেছে অনেকবার। তাদের ঘনিষ্ঠতা নিয়ে জানতে চাইলে চয়নিকা বলেন, ‘আমার পরিচালিত প্রথম সিনেমায় পরীমনি কাজ করেছে। কাজের কারণেই অনেক দিন আমরা একে অপরের সঙ্গে মিশেছি। আমাদের মধ্যে একটা সম্মানের সম্পর্ক আছে।’

পরীমনির বাসায় কেন যাব: প্রশ্ন চয়নিকার
নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীর সঙ্গে চিত্রনায়িকা পরীমনি। ছবি: সংগৃহীত

তিনি বলেন, ‘তার (পরীমনি) ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে যেমন আমার কোনো আগ্রহ ছিল না, তেমনি পরীমনিও তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আমার সঙ্গে আলোচনা করত না। আমাদের কথা-আড্ডা হতো কাজ নিয়ে; কাজের ধরন নিয়ে।

‘আমি আগেই বলেছি, আমি পরিচ্ছন্ন জীবনযাপন করি। শুধু পরীমনি কেন, কারও ব্যক্তিগত বিষয় জানার আগ্রহ ও সময় আমার নেই।’

নিজের পেশাদারত্বের পরিচয় দিতে গিয়ে চয়নিকা বলেন, ‘আমি যাদের নিয়ে কাজ করি, তাদের সবাইকেই অনেক সম্মান করি। অভিনয়শিল্পী থেকে শুরু করে ক্যামেরার পেছনে যারা কাজ করেন, সবাই আমার কাছে সম্মানিত।

‘আমি খুব পরিচ্ছন্ন জীবনযাপন করি। সেটা আমার সঙ্গে যারা কাজ করেন সবাই জানেন। আমার স্বভাব মানুষের বিপদে পাশে থাকা। আর এটা আমি মানবিকভাবেই চেষ্টা করি।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ট্রেনে বাচ্চা প্রসবে এগিয়ে আসা সেই চিকিৎসক

ট্রেনে বাচ্চা প্রসবে এগিয়ে আসা সেই চিকিৎসক

ফারজানা তাসনিম।

ট্রেনে সন্তান প্রসব করা সাবিনাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানিয়েছেন, মা-মেয়ে দুজনই এখন ভালো আছে।

রাত তখন সাড়ে ৯টা। গত বৃহস্পতিবার এই সময়টাতে খুলনা থেকে রাজশাহীগামী ট্রেনে নিজের আসনেই বসেছিলেন ফারজানা তাসনিম। যাচ্ছিলেন বাড়ি। রাজশাহী নগরীর উপশহরেই তার বাসা।

হঠাৎ করেই ট্রেনের মাইকে একটি জরুরি ঘোষণা ভেসে এল। প্রসবব্যথা শুরু হয়েছে এক নারীর! এ অবস্থায় ট্রেনে কোনো চিকিৎসক আছেন কি না, জানতে চাইছিলেন একজন।

৪২তম বিসিএসে উত্তীর্ণ ফারজানা তাসনিম সহকারী সার্জন হিসেবে যোগদানের অপেক্ষা করছেন। তাই মাইকের ঘোষণাটি শুনে তিনি আর বসে থাকতে পারেননি। দৌড়ে গেলেন ব্যথায় কাতর সেই নারীর কাছে।

ততক্ষণে অবশ্য সেই নারী এক কন্যাসন্তান প্রসব করে ফেলেছেন। কিন্তু এ নিয়ে মহা ফ্যাসাদে পড়েছেন তার কাছে থাকা স্বজনরা। কারণ সন্তান প্রসবের পরও আরও কিছু জটিলতা থেকে যায়। এ ব্যাপারে দক্ষ মানুষেরাই তার সমাধান করতে পারেন।

ফারজানা তাসনিম দেখতে পান শিশুটির নাড়ি তখনও মায়ের গর্ভের সঙ্গে আটকে আছে। সুদক্ষ চিকিৎসকের মতোই দ্রুততার সঙ্গে সদ্যোজাত শিশুর নাড়িটি কেটে দেন তিনি। তার আকস্মিক এমন আবির্ভাবে স্বস্তি ফিরে আসে স্বজনদের মধ্যে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, সন্তান প্রসব করা সেই নারীও সাহস ফিরে পান।

ট্রেনের মধ্যে সন্তান প্রসব করা সাবিনা ইয়াসমিনের বাড়ি কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায়। সন্তান প্রসবের জন্যই তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তার আগেই ট্রেনের মধ্যে সন্তান প্রসব করায় মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে ছিলেন তিনি। ঝুঁকিতে ছিল তার সদ্যোজাত কন্যাসন্তানও। তবে চিকিৎসক ফারজানা তাসনিম দেবদূতের মতো হাজির হয়ে তাদের রক্ষা করেন।

ফারজানা বলেন, ‘সাধারণত বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরই মায়ের সঙ্গে যে নাড়ি থাকে সেটি কেটে ফেলতে হয়। বেশি দেরি হলে মায়ের সমস্যা না হলেও বাচ্চার সমস্যা হতে পারে। সেই সমস্যা থেকে বাচ্চা মারাও যেতে পারে।’

সন্তান প্রসবের ঘটনায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের প্রশংসা করেন ফারজানা। তিনি বলেন, ‘তারা একটা পরিবেশ করে দিয়েছেন। বগিটা ফাঁকা করেছে। যখন যা দরকার দিয়েছেন। এমনকি ফাস্ট এইড বক্সও তারাই সরবরাহ করেছেন। শুধু তা-ই নয়, ট্রেনটি দ্রুত গতিতে চালিয়ে তারা রাজশাহীতে নিয়ে এসেছেন।’

রাজশাহী নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর বগুড়ার শহীদ জিয়াাউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন ফারজানা তাসনিম। ইন্টার্ন করেন সেখান থেকেই। এরপর রাজশাহী সিটি করপোরেশনের আরবান হেলথ কেয়ারে চাকরি করেছেন। তার বাবা সোলায়মান আলী গণপূর্ত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী।

সাবিনা ও তার কন্যাসন্তান এখনও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আছে। সাবিনাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, মা-মেয়ে দুজনই এখন ভালো আছে।

শেয়ার করুন

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীরপ্রতীক।

সাম্প্রতিক রাজনীতি নিয়ে নিউজবাংলার মুখোমুখি হয়েছেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। ২০-দলীয় জোট নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই কোনো দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও ভিন্ন হবে।’

মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান। তার দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের শরিক হলেও সম্প্রতি তার কথাবার্তায় জোট ত্যাগের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে জোট ও সরকারবিরোধী আন্দোলন নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলে তার সঙ্গে।

প্রশ্ন: আপনি কি ২০-দলীয় জোট ছেড়ে যাচ্ছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: না না, ২০ দল ছেড়ে যাব কেন? সেদিন এমন কোনো কথা বলিনি। আমরা অনেক দিন যাবৎ আবেদন করছি, অনুভূতি প্রকাশ করছি, প্রধান শরিক বিএনপির সঙ্গে চলতে আমরা আনন্দিত। কিন্তু তাদের কাছে আবেদন, আপনারা আত্মসমালোচনামূলক একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০ দলকে পুনর্গঠিত করুন। ২০ দল, ১৮ দল, ১০ দল, ২২ দল করেন, কিন্তু আত্মসমালোচনার প্রক্রিয়া নেয়া প্রয়োজন। কারণ গত আট-নয় বছরে আমরা অনেক ভুল করেছি, ভালো কাজও করেছি, সুতরাং এই আত্মসমালোচনা প্রয়োজন। যদি একান্তই আমাদের প্রধান শরিকের পক্ষে সম্ভব না হয়, তাহলে আমরা নিশ্চয়ই নিজেদের কর্মপন্থা স্থির করব।

প্রশ্ন: বিষয়টি কি এমন যে আপনি বিএনপির কাছে মূল্যায়ন চান? মূল্যায়ন পাচ্ছেন না বলেই কি এমন কথা বলছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: অবশ্যই মূল্যায়ন আত্মসমালোচনার একটা অংশ।

প্রশ্ন: কী ধরনের মূল্যায়ন আসলে চান?

জেনারেল ইবরাহিম: আমরা চাই, কোন দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও তো ভিন্ন হবে। এখন থেকে চার-পাঁচ বছর আগে দেশনেত্রী, আমরা রোডমার্চ করেছি, বিভিন্ন জেলায় বিভাগীয় শহরে, বড় শহরে জনসভা হয়েছে। সেটা এখন সম্ভব না, যেহেতু সরকার এখন বৈরী পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। তাহলে এ প্রেক্ষাপটে আমাদের করণীয় কী হতে পারে, সেটা আমাদের স্থির করতে হবে, শুধু সংখ্যা দিয়ে তো আর জোট করলে হবে না, সারবস্তু চাই।

এখন আমরা চরম সংকটে আছি। রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য এই সংকট সৃষ্টি করেছে সরকার, সরকারবিরোধী শিবিরের রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অস্তিত্বের সংকট সৃষ্টি করেছে, কর্মযজ্ঞের সংকট সৃষ্টি করেছে। সমগ্র দেশের রাজনীতিকে সংকটাপন্ন অবস্থায় নিয়ে গেছে, বিরাজনীতিকরণ প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে। সুতরাং এখানে গভীর বিশ্লেষণের মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে যে, গণতন্ত্রকে কেমন করে পুনরায় ফেরত আনা যায়।

প্রশ্ন: মূল্যায়নটা পাচ্ছেন না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি তো বলি নাই মূল্যায়ন পাচ্ছি না। বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাই এমন। আমি একটা কঠিন শব্দ ব্যবহার করতে চাই, আশা করি আপনারা এটা গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবেন। সেটা হলো, আমরা শুধু শাসনকারী রাজনৈতিক দলের পরিবর্তন চাই না। শাসনকারী যেই হোক না কেন, কল্যাণ পার্টি অবশ্যই তার মধ্যে গুণগত পরিবর্তন চায়, তার অতীতের কর্মকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে আগামীতে তার গুণগত পরিবর্তন চায়। যিনি হবেন হন। কারণ শুধু শাসক পরিবর্তন করলেই তো বাংলাদেশে সমস্যার সমাধান হবে না। দেশের সমস্যাগুলো অনুধাবনে যদি সেই গুণগত পরিবর্তন না থাকে, তাহলে তো হবে না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোটের পাশাপাশি আপনারা একটি উপজোটের মতো করেছিলেন ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’। সেটা কেন করেছিলেন? আর সেটা গতিই-বা পেল না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: ওটা আমি করি নাই। সুস্পষ্টভাবে আপনাকে জানাই, ওটা করেছিলেন এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম। তিনি দাওয়াত দিয়েছিলেন মুক্তি মঞ্চের কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে এবং সেখানে দেশনেত্রীর (খালেদা জিয়া) মুক্তিই ছিল প্রধান বক্তব্য। ওনার মুক্তির জন্য যে যা বলুক, আমরা সবখানেই ঝাঁপিয়ে পড়েছি। এখন আহ্বায়ক যিনি, উনিই যদি এটা নিয়ে না আগান, তাহলে তো আমাদের কোনো জায়গা থাকে না। আমি সেটার নীতিনির্ধারক ছিলাম না, নাইও। তবে দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য আপনি আমাকে সবখানে পাবেন।

প্রশ্ন: আমরা তো বিএনপিকে তাদের দলের চেয়ারপারসনের মুক্তি নিয়ে খুব বেশি কথা বলতে দেখছি না। আপনি যতটুকু বলেন, এটা তো ওনাদের বলতে দেখিনি। আপনি কেন এই দাবি করেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি ব্যক্তিগতভাবে যেমন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অসীম শ্রদ্ধা করি, তেমনি জিয়াউর রহমানকেও অজস্র শ্রদ্ধা করি। একজন বঙ্গবন্ধু, তিনি তুলনাবিহীন। তার আঙ্গিকে এবং একজন জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি তুলনাবিহীন তার আঙ্গিকে। উভয়ের রাজনৈতিক দল রয়েছে। উভয়ই ভালো কাজ করতে চেষ্টা করেছিলেন। তাদের লক্ষ্য ভালো ছিল। দেশনেত্রী বেগম জিয়া আশির দশকে অনেক পরিশ্রম করেছেন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এ জন্য তার প্রতি আমার সম্মান ও মায়া রয়ে গেছে। ওনাকে বন্দি করেছে, এটা আমার পছন্দ হচ্ছে না। সে জন্য আমি বলতেই থাকি যে, ওনার মুক্তি চাই, ওনার সুস্থতা যেন আল্লাহ দেন। আমার দাবি, বাংলাদেশ নিয়ে আমরা চিন্তায়-চেতনায় কোনো বিভাজন চাই না। বাংলাদেশের নিরাপত্তা, অগ্রগতি, উন্নতি এসব নিয়ে। রাজনৈতিকভাবে মতবিরোধের জায়গা আমরা কমিয়ে আনতে চাই।

প্রশ্ন: সেটায় কতটুকু সফল হলেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনে এটা সুস্পষ্টভাবে দেখা যাবে যে, বঙ্গবন্ধুকে মান্য করেই, জিয়াউর রহমানকে মান্য করেই গণতন্ত্রের চর্চা করা যায়, যুগপৎ দুজনকে মান্য করেই। আজকের তরুণ প্রজন্ম, বিভাজনকে স্বাগত জানায় না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোট নিয়ে আপনি বলেছিলেন, জোট আছে এটাও সঠিক, নেই এটাও সঠিক। এরপর কি বিএনপি থেকে আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল?

জেনারেল ইবরাহিম: না। আমরা বন্ধুপ্রতিম বড় দল-ছোট দল।

প্রশ্ন: তাহলে আপনার বক্তব্যকে তারা পাত্তাই দিল না, বিষয়টা কি এমন?

জেনারেল ইবরাহিম: এটা আমি কোনোমতেই বলতে পারব না। এটা আমার বুদ্ধিতে-জ্ঞানে আসবে না।

প্রশ্ন: বিএনপি জোটে যদি না থাকেন, তাহলে কী করবেন?

জেনারেল ইবরাহিম: সেটা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত প্রশ্ন। তখন আমরা নিজে নিজে চলতে চেষ্টা করব। আমাদের মতো আরও যদি দল থাকে, তাদের বলব, চলো একসঙ্গে বসব, একসঙ্গে চলব। যদি সম্মত হয় কেউ, তখন আমরা চলব। আমরা তো আর বিএনপিকে বাধ্য করতে পারব না যে আমাদের নিয়ে জোট করেন। সুতরাং আমাদের নিজেদের অবস্থা বের করে নিতে হবে। তবে এটা অগ্রিম বলা খুব কঠিন। আমরা বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছি, আমরা প্রধান শরিককে সম্মান জানাই, আমরা প্রধান শরিকের প্রতি আহ্বান রাখছি, যে প্রধান শরিক যতদিন একটা বাস্তবসম্মত চূড়ান্ত ফয়সালা না দিচ্ছেন, ততদিন আমরা অস্থির হব না।

প্রশ্ন: তাহলে কি বলা যায়, আপনারা বিএনপির বাইরে কোনো অবস্থান তৈরি করতে পারেননি?

জেনারেল ইবরাহিম: তৈরি করতে পেরেছি কি পারি নাই, এটা নিজেরা বলা সমীচীন মোটেই না। এটা পর্যবেক্ষকরা বলবেন।

প্রশ্ন: ইদানীং আপনাকে জোটের বাইরেও অনেক রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে দেখা যায়। নতুন কোনো রাজনৈতিক সমীকরণ কি হচ্ছে?

জেনারেল ইবরাহিম: রাজনীতিতে অনেক রকমের পথ নিয়ে মানুষ চলে এবং একটা পর্যায়ে গিয়ে একটা পথ বেছে নেয়। জোটের বাইরেও তো অনেক রাজনৈতিক দল সক্রিয় আছে। যিনি কাজ করতে চান, তিনি তো কাজের জন্যই ছুটবেন। আমি ও আমার দল কাজ করতে চাই। আমি কাজ চাই, তরুণদের নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।

প্রশ্ন: এক-এগারোর প্রেক্ষাপটে যে কিংস পার্টি হয়েছিল, সেখানে আপনার দল ছিল। এ বিষয়ে কী বললেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আপনার রাজনৈতিক জ্ঞান অতি সীমিত, দুর্বল। কিংস পার্টি তাকেই বলে যাহা কিং বানায়। প্রতীকী অর্থে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় যারা রাজনৈতিক দল তৈরি করে। ১/১১ এসেছিল ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ। কিংস পার্টির সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ ছিল না। তবে কল্যাণ পার্টির জন্ম ২০০৭ সালের ডিসেম্বরের ৭ তারিখ। এর সঙ্গে তৎকালীন সরকারি কর্তৃপক্ষ ও গোয়েন্দাদের ন্যূনতম সম্পর্কও নেই। কিন্তু সৌভাগ্য বলেন, আর দুর্ভাগ্য বলেন, ১/১১ নামক যন্ত্রণার যে জন্ম হয়েছিল, সে সময় সেনাবাহিনী ক্ষমতায় ছিল। আর আমি একজন সাবেক সৈনিক। অনেকে দুই আর দুই মিলাইয়া চার করে, জোর করে হোক আর যেভাবেই হোক। আমি অতি বিনয়ের সঙ্গে বলছি, আমাদের সঙ্গে সেই কর্তৃপক্ষের কোনো সম্পর্ক নাই।

প্রশ্ন: গত জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আপনাদের বিস্তর অভিযোগ। কিন্তু এমনটা কী করে হলো? আপনাদের ভোটের আগে ক্যাম্পিংয়ে দেখা গেল না, পোস্টারিংও তেমন ছিল না। আপনারা ভোটের পরও কোনো কর্মসূচি দিলেন না। সবই কি সরকারের দোষ?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি জোটের কোনো কিছুরই উত্তরও দিতে পারব না। কারণ জোট এ বিষয় নিয়ে সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। বরং নির্বাচনের আগে সরকারের বিরোধী শিবিরে অসমন্বয়টা ছিল প্রকট। সেই ফাঁকে সরকার তার কাজ করে নিয়েছে। আমি বলব, আমরা যারা সরকারের বিরোধী শিবিরে ছিলাম, সম্মিলিতভাবে সচেতন হতে পারিনি। নিজেদের সমন্বয় পাকাপোক্ত করতে পারিনি। যার কারণে সরকার তাদের অভিপ্রায় পূরণ করেছে। আমাদের ফাঁকি দিয়ে। ভোটের পরও আমরা সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নিতে পারিনি। এর কারণ নির্বাচনের আগে একটা হেলুসিনেশনে ভুগছিল সবাই।

প্রশ্ন: আন্দোলন হচ্ছে না কেন? আপনারা বলছেন, সরকার বাধা দিচ্ছে। সব সরকারই তো বাধা দেয়, তারপরও তো আন্দোলন হয়।

জেনারেল ইবরাহিম: আন্দোলন করতে হবে। বাস্তবতার নিরিখে যদি বিবেচনা করি, বিগত কয়েকটা মেজর আন্দোলন অসফল হয়েছে। আর একবার যে আন্দোলনের ডাক দেবেন, কে কার জন্য প্রাণটা হাতে নিয়ে নামবে? আমরা চাই সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন হোক। আমি একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে দলে বা জোটের পক্ষের কর্মীদের কীভাবে আশ্বস্ত করব যে, আপনার প্রাণ নিরাপদ, বাড়িঘর নিরাপদ কিংবা আপনার নামে মামলা হবে না?

বলা খুব সহজ আন্দোলন করব, আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিন। কিন্তু তার আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো যদি আমরা অ্যাড্রেস না করি, তাহলে তো আন্দোলন গড়ে উঠবে না। লাখ লাখ বিএনপি-জামায়াত ২০-দলীয় জোটের কর্মী মামলার ভারে ভারাক্রান্ত। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র আন্দোলন করা যাচ্ছে না। সেখানে রাজপথে আন্দোলন করা মারাত্মক চ্যালেঞ্জের একটা কাজ। এটা ৩০ বছর আগেও ছিল না।

শেয়ার করুন

গাড়ির কালো ধোঁয়া দেখবে কে

গাড়ির কালো ধোঁয়া দেখবে কে

কালো ধোঁয়া ছেড়ে ছুটে চলেছে ঢাকার মধ্যে চলাচল করা একটি বাস। ছবিটি মিরপুর এলাকা থেকে তুলেছেন সাইফুল ইসলাম।

রাজধানীর বাতাসে দূষণ এখন আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি। যানবাহন থেকে বের হওয়া কালো ধোঁয়া এর প্রধান উৎস। কিন্তু এটি নিয়ন্ত্রণের দায় কার? বিআরটিএ, পরিবেশ অধিদপ্তর নাকি ট্রাফিক পুলিশ?

সকাল ১০টা। রাজধানীর মৌচাক-মালিবাগ মোড়ে জ্যামে থেমে আছে ছোট বড় অনেক গাড়ি। হুট করে জ্যাম ছাড়লেই কে কাকে রেখে ছুটবে এই প্রতিযোগিতা। তবে জ্যামে আটকে থাকা বাসগুলো যেন কালো ধোঁয়ার ফোয়ারা ছুটিয়ে চলছে।

এমন দৃশ্য এখন ঢাকার প্রায় সব জায়গাতেই।

মোটরযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এবং পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ অনুযায়ী, স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক বা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর ধোঁয়া নির্গত হলে তা জরিমানাসহ শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

২০০২ সালের ৩১ ডিসেম্বর টু স্ট্রোক বেবি ট্যাক্সিসহ পুরাতন যানবাহন বন্ধের পর এক দিনে ঢাকার বায়ুতে দূষণের মাত্রা কমে যায় প্রায় ৩০ শতাংশ। তবে ২০১৩ সাল থেকে তা আবারও বাড়তে থাকে। গত আট বছরে সেই দূষণ বাড়তে বাড়তে তা আগের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ২০২০ সালের জরিপে দেখা গেছে, রাজধানীর বাতাসকে দূষণে ভারী করে তুলছে যানবাহনের ধোঁয়া। বায়ুদূষণের জন্য এখন ৫০ ভাগ দায়ী মূলত তরল জ্বালানি পোড়ানোর মাধ্যমে তৈরি হওয়া এই ধোঁয়া। আর এই তালিকায় আছে বাস, লেগুনা, ব্যক্তিগত গাড়ি ও মাইক্রোবাস।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ও বায়ুদূষণ বিষয়ক গবেষক অধ্যাপক আবদুস সালাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের গাড়িগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণ ধোঁয়া আসে। আমাদের আশপাশের কারখানা, নির্মাণকাজ আর যেসব ময়লা আগুনে পোড়ানো হয়, সেখান থেকেও ধোঁয়া আসে। আমরা যদি পদক্ষেপ নেই, তবেই নির্মল বাতাস আশা করতে পারি।’

এক সময় ঢাকায় বায়ুদূষণের সবচেয়ে বড় উৎস ছিল ইটের ভাটা। প্রায় ৫৮ ভাগ বায়ুদূষণ ঘটত ইটের ভাটা থেকে। তবে রাজধানীর বাতাসকে এখন বিষিয়ে তুলছে যানবাহনের ধোঁয়া।

গাড়ির কালো ধোঁয়া দেখবে কে
সন্তানকে বায়ুদূষণের হাত থেকে রক্ষা করতে মায়ের প্রচেষ্টা। ছবি: সাইফুল ইসলাম

গত এক সপ্তাহে রাজধানীর কয়েকটি প্রধান সড়ক ঘুরে দেখা গেছে, মিনিবাস ও লেগুনা থেকে ধোঁয়া নির্গত হওয়ার পরিমাণ বেশি। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মতিঝিলগামী অনেক বাস থেকে কালো ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়।

সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) হিসাব অনুযায়ী, দেশে মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ির সংখ্যা ৪ লাখ ৮১ হাজার ২৯টি, যেগুলো থেকে কালো বিষাক্ত ধোঁয়া বের হয়। ফিটনেসবিহীন গাড়ি থেকে যে কালো ধোঁয়া বের হয়, তার সুক্ষ্ম কণা বাতাসে মিলে তৈরি করছে কালো কার্বন, যা মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

অধ্যাপক আবদুস সালাম বলেন, রাজধানীতে ফিটনেসবিহীন গাড়ির কালো ধোঁয়া ও নির্মাণকাজ থেকে প্রচুর ধুলা বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে, যা নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে ঢুকছে।

মাত্রার চেয়ে বেশি কালো ধোঁয়া ছড়ায় যেসব যান, তা জব্দ করাসহ বায়ুদূষণ রোধে ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি ৯ দফা নির্দেশনা দেয় উচ্চ আদালত। এরপর গত ২৪ নভেম্বর এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেয় উচ্চ আদালত।

গত কয়েক বছরে ঢাকার রাস্তায় তৈরি হয়েছে কালো ধোঁয়ার আধিক্য। সেই সঙ্গে ফিটনেসবিহীন গাড়ি ও রাস্তার পাশে জমে থাকা ধুলা রাজধানীর বায়ুকে দিন দিন বিষিয়ে তুলেছে। ঢাকায় গত ১৬ বছরে মাত্র কয়েক দিনের জন্য নির্মল বাতাসের দেখা পাওয়া গিয়েছিল এ বছর জুলাই মাসে। আর সেটি সম্ভব হয় লকডাউন ও ঈদের ছুটির কারণে।

২০২১ সালের হিসাবে, দেশে নিবন্ধিত মোটরযান আছে ৪৭ লাখ ২৯ হাজার ৩৯৩টি। এর মধ্যে রাজধানীতে রয়েছে ১৬ লাখের বেশি গাড়ি। ২০২০ সাল থেকে প্রায় ২ লাখ বেশি গাড়ি এক বছরে নিবন্ধিত হয়েছে।

মূলত ফিটনেসবিহীন এবং মেয়াদোত্তীর্ণ যানবাহন থেকে কালো ধোঁয়া বেশি ছড়ায়। যানবাহনের ফিটনেস সনদ দিয়ে থাকে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিআরটিএ-এর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করি। তবে কালো ধোঁয়া নির্গত হয় যেসব গাড়ি থেকে, সেটি পরিমাপ করার যন্ত্র এখন আমাদের কাছে নেই। তাই আমরা সেই বিষয়ে আলাদা করে অভিযান করি না বা করতেও পারি না।’

গাড়ির কালো ধোঁয়া দেখবে কে
ঢাকার বাতাস দূষণ নিয়ে প্রায়ই খবরের শিরোনাম হয়। ছবি: সাইফুল ইসলাম

পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে এমন অভিযান করা হয় জানিয়ে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘সাধারণত যখন পরিবেশ অধিদপ্তর অভিযান পরিচালনা করে, তখন তারা এমন যন্ত্র নিয়ে করে থাকে। আমরা এই যন্ত্র তাদের থেকে নেয়ার পরিকল্পনা করছি।’

পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক জিয়াউল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। পরিবেশ বিধিমালা এই বছরের জানুয়ারিতে সংশোধন করা হয়েছে।’

গাড়ির কালো ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণের একটা বড় দায়িত্ব থাকে ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তাদের ওপর। তবে রাস্তায় দেখা গেছে, ট্রাফিক পুলিশের সামনে দিয়েই গাড়ি কালো ধোঁয়া নির্গত করে চলে যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে ফিটনেসবিহীন গাড়ি আটক করা হলেও সেটি ছাড় পেয়ে যাচ্ছে।

হাতিরঝিলে পরিবার নিয়ে বেড়াতে আসা সাইফুল আলম অনেকটা বিরক্তি নিয়ে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভাই ঢাকায় এখন রাস্তায় বের হওয়া দায়। আগে শুধু জ্যামের অজুহাত ছিল। এখন ঠিকমত নিঃশ্বাস নিতে পারি না।’

রাজধানীর রামপুরা থেকে বাড্ডা হয়ে কুড়িল যাবার রাস্তায় সকাল ও বিকেলের একটা বড় সময় জ্যাম থাকে। জ্যামের সঙ্গে থাকে গাড়ির কালো ধোঁয়ার আধিক্য। এই রুটে কয়েকটি স্থানে ট্রাফিক দায়িত্বে থাকলেও দূষণ নিয়ন্ত্রণে আলাদা কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়নি।

গুলশান বিভাগের ট্রাফিকে উপপুলিশ কমিশনার মো. রবিউল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতিদিন আমাদের সার্বিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আমরা ফিটনেস সার্টিফিকেট দেখি। এটা আমাদের রেগুলার ওয়ার্ক। কালো ধোঁয়া কোনো গাড়ি থেকে নির্গত হলেই আমরা সেটিকে আটক করি। সেটির ফিটনেস কাগজ দেখি। এটা চলমান প্রক্রিয়া।

‘তবে পরিবেশকেন্দ্রিক কালো ধোঁয়ার যে প্রভাব, সেটি নিয়ে আমরা আলাদা অভিযান করি না। আমাদের ট্রাফিক যারা আছেন, তারা যদি দেখেন কোনো গাড়ি থেকে কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে, তবে সেটিকে তারা আটক করেন। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হয়।’

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের ডিন ও বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের (ক্যাপস) পরিচালক অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জামান মজুমদার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এক সময় ঢাকায় বায়ুদূষণের সবচেয়ে বড় উৎস ছিল ইটের ভাটা। প্রায় ৫৮ ভাগ বায়ুদূষণ ঘটত ইটের ভাটা থেকে। কিন্তু এখন ইটের ভাটার দূষণকে ছাড়িয়ে গেছে নির্মাণকাজ এবং গাড়ির ধোঁয়া। সড়ক নির্মাণ ও মেগা প্রজেক্টের কারণে প্রায় ৩০ ভাগ বায়ুদূষণ হচ্ছে। ইটের ভাটা থেকে এখন ৩০ ভাগ, যানবাহন থেকে ১৫ ভাগ, বর্জ্য পোড়ানো থেকে ৯ ভাগ দূষণ হয়।’

শেয়ার করুন

সুনীল জলের হাতছানি দিচ্ছে সাবরাং

সুনীল জলের হাতছানি দিচ্ছে সাবরাং

টেকনাফের সাবরাং এক্সক্লুসিভ টুরিস্ট পার্ক। ছবি: সংগৃহীত

টেকনাফের সারবাংয়ে গড়ে তোলা হবে অত্যাধুনিক পর্যটন নগরী। এতে থাকবে স্নরকেলিং, স্কুবা ডাইভিং, প্যারাসেইলিং, জেট স্কিইং, পেডাল বোটিং, বিচ ভলিবল, বিচ বোলিংসহ পর্যটনের নানা অনুষঙ্গ যা থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়াসহ পর্যটনে উন্নত বিভিন্ন দেশে দেখা যায়। এ ছাড়াও পর্যটকদের সেবা দিতে গড়ে তোলা হবে একাধিক পাঁচ ও তিন তারকা মানের হোটেল ও নাইট ক্লাব।

কক্সবাজার সৈকতের ঘোলা পানি নিয়ে আক্ষেপের দিন শেষ হতে চলেছে। সমুদ্রপ্রেমীদের জন্য সুনীল জলের হাতছানি দিচ্ছে টেকনাফের সাবরাং এক্সক্লুসিভ টুরিস্ট পার্ক।

পর্যটন পার্কটির বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) বলছে, এটি চালু হলে কক্সবাজারের পর্যটন খাত আমূল বদলে যাবে।

বেজা জানিয়েছে, পর্যটনের জন্য বিশেষ এ অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদের প্লট বরাদ্দ শেষ, এখন চলছে ভূমি উন্নয়নের কাজ। সেটি শেষ হলেই স্থাপনা নির্মাণের কাজ শুরু হবে।

এই পর্যটন পার্কের পরিকল্পনা করা হয় ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর। শুরুতে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনকে এলাকাটি উন্নয়নের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। পরে দায়িত্ব পায় বেজা।

২০১৪ সালে কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নে ৯৬৭ একর জমিতে এ পর্যটন পার্ক তৈরির কাজ শুরু হয়। এটি নির্মাণের মূল উদ্দেশ্য বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ করা। তবে এতে দেশি পর্যটকরাও যেতে পারবেন। সরকারি-বেসরকারি অংশিদারিত্বে নির্মাণ হচ্ছে এই পার্ক।

দেশে বিদেশি পর্যটকের কোনো আনুষ্ঠানিক পরিসংখ্যান না থাকলেও সরকারি হিসেবে প্রতি বছর দেশে প্রায় ৫ থেকে ৬ লাখ বিদেশি নাগরিকের আনাগোনা থাকে। এর মধ্যে পর্যটক যেমন রয়েছেন, তেমনি রয়েছেন বিনিয়োগকারী বা ব্যবসায়ীরাও। সরকার আশা করছে, সাবরাং পর্যটন পার্ক যাত্রা শুরু করলে এ সংখ্যা আরও বাড়বে।

বলা হচ্ছে, এই পার্কে প্রতিদিন পায় ৩৯ হাজার পর্যটক পর্যটন সেবা নিতে পারবেন।

নির্মিতব্য এই বিশেষ পর্যটন এলাকাটির অবস্থান কক্সবাজার শহর থেকে প্রায় ৯০ কিলোমিটার আর টেকনাফ থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরে। কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভের সাথে এলাকাটির সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে। এর দক্ষিণ ও পশ্চিম দিকে অবস্থান বঙ্গোপসাগরের। কক্সবাজার বিমানবন্দরে নেমে সড়কপথে সাবরাং যেতে সময় লাগবে প্রায় দেড় ঘণ্টা।

এখন পর্যন্ত এই সাবরাং পর্যটন পার্কে বিনিয়োগ এসেছে ২৪ কোটি ডলারেরও বেশি। ধারণা করা হচ্ছে, প্রায় ১০ হাজারেরও বেশি মানুষের কর্মসংস্থান হবে এ অঞ্চলে। সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, এখানে গড়ে তোলা হবে অত্যাধুনিক এক পর্যটন নগরী।

এতে থাকবে স্নরকেলিং, স্কুবা ডাইভিং, প্যারাসেইলিং, জেট স্কিইং, পেডাল বোটিং, বিচ ভলিবল, বিচ বোলিংসহ পর্যটনের নানা অনুষঙ্গ যা থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়াসহ পর্যটনে উন্নত বিভিন্ন দেশে দেখা যায়। এ ছাড়াও পর্যটকদের সেবা দিতে গড়ে তোলা হবে একাধিক পাঁচ ও তিন তারকা মানের হোটেল ও নাইট ক্লাব।

সুনীল জলের হাতছানি দিচ্ছে সাবরাং

বেজার পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের ব্যবস্থাপক মো. মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন মাঝ পর্যায়ের কাজগুলো চলছে। প্লট তো দেয়া হয়ে গেছে। ক্যানেলের কাজগুলো সম্পন্ন হয়েছে। সেখানে একটি প্রশাসনিক ভবন করছিলাম সেটার কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে।

‘মাটি ভরাটের টেন্ডার ইন্টারন্যাশনাল টেন্ডার, সেটার পর্যবেক্ষণ চলছে। মাটি ভরাট হলেই আসলে ডেভেলপার যারা প্লট নিয়েছে তারা কাজ শুরু করে দেবে।’

সাবরাং পর্যটন পার্কটি তৈরি হয়ে গেলে পুরো কক্সবাজারের পর্যটন খাত বদলে যাবে বলে মনে করছে বেজা। মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এর কারণ হলো এটা সমুদ্রের কাছে। তারপর এটা আমরা পুরোটাই পরিকল্পিতভাবে করছি। এতে খোলা জায়গা থাকবে, ক্যানেল থাকবে, ভেতরে এমিউজমেন্টের ব্যবস্থা থাকবে। মানে একটা অত্যাধুনিক পরিকল্পনা করে আমরা সামনে এগুচ্ছি।

‘কক্সবাজারে যেটা হয়েছে, সেটা কিন্তু বিচ্ছিন্নভাবে হয়েছে। যে যেভাবে পেরেছে, করেছে। এখানে কিন্তু সেটা না। প্লট দেয়া হলেও একটি স্ট্যান্ডার্ড বজায় রেখেই ভবন করতে হবে। ভেতরে সবুজ বাতাবরণ থাকবে। পরিবেশটাই হবে অন্যরকম। যখন এটা চালু হবে, আমার মনে হয় পর্যটকরা অবশ্যই এখানে আসবে।’

সাবরাং থেকে মাত্র আধাঘণ্টায় যাওয়া যায় দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিনস। এর ফলে পর্যটকরা দিনে গিয়ে দিনেই সেখান থেকে ফিরে আসতে পারবেন। আর এতে ঝুঁকির মধ্যে থাকা সেন্ট মার্টিনের পরিবেশ বৈচিত্রও রক্ষা পাবে।

মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এখান থেকে আবার সেন্ট মার্টিন দেখা যায়, খুব কাছেই। এ কারণে এটিই হবে সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান। এখানে আবার আমরা একটি ফটো কর্নার করেছি, ক্লক টাওয়ারের মতো।

‘এটা চালু হলে এই এলাকার অর্থনীতিই বদলে যাবে পাশাপাশি মানুষের রুচিতেও আমূল পরিবর্তন আসবে।’

সুনীল জলের হাতছানি দিচ্ছে সাবরাং

বিদেশি পর্যটকদের লক্ষ্য করে তৈরি করা হলেও এটিতে যেতে পারবেন দেশি পর্যটকরাও। মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এটা এক্সক্লুসিভলি বিদেশি পর্যটকদের জন্য হবে না। যদিও এখন আমরা যে পলিসি তৈরি করছি তাতে বিদেশি পর্যটকই আমাদের মূল টার্গেট। বৈদেশিক মুদ্রা মূল টার্গেট। কিন্তু এর মধ্যে দেশিরা যে আসতে পারবে না তা না।

‘এখানে যে হোটেল রিসোর্টগুলো হবে, সেগুলোতে একটা স্ট্যান্ডার্ড মেইনটেইন করা হবে। যেমন, যদি ধরা যায় রয়্যাল টিউলিপ হোটেল, এটাতে তো বিদেশি ও দেশি উভয় পর্যটকই থাকতে পারে। ঠিক এ ধরনের স্ট্যান্ডার্ড মেইনটেইন করা হবে। ভেতরে যে কেউ যেতে পারবে, ঘুরতে পারবে। সুন্দর একটা গেট করছি, টেন্ডার হয়ে গেছে। যখন মূল কাজগুলো হয়ে যাবে, তখন বিনিয়োগকারীরা আসবে, কাজ করতে।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু অবকাঠামো উন্নয়ন করলেই পর্যটনের বিকাশ হবে না, বরং মনোযোগ দিতে হবে ব্র্যান্ডিংয়ে।

পর্যটন বিষয়ক পত্রিকা বাংলাদেশ মনিটরের সম্পাদক কাজী ওয়াহেদুল আলম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ রকম একটি পার্ক বা পর্যটন অঞ্চল যদি করা যায়, এটি নিঃসন্দেহে খুব ভালো একটি উদ্যোগ। তবে যে কোনো ভাল উদ্যোগকে সমর্থনের জন্য ভাল নীতিও থাকতে হয়। আমাদের দেশের ট্যুরিজম পলিসিটাই তো এখনও ঠিক হয়নি। পর্যটনের জন্য কোনো মাস্টারপ্ল্যানও নেই।

‘এই যে একটা ভাল জিনিস আমরা করছি, এটাকে মার্কেটিং কীভাবে করব? কীভাবে বিদেশি পর্যটকদের এখানে আসতে উদ্বুদ্ধ করব? আমরা কতটুকু সুযোগ সুবিধা দিতে পারব – এই বিষয়গুলোও একই সাথে ভাবতে হবে। দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। আমাদের তো অনেক প্রডাক্ট রয়েছে, যেমন সুন্দরবন বা কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকত অথবা বুদ্ধিস্ট হ্যারিটেজ। কিন্তু এগুলো কি আমরা বিদেশিদের কাছে তুলে ধরতে পারছি?’

তিনি বলেন, ‘শুধু কিছু অবকাঠামো তৈরি করেই যদি আত্মতুষ্টিতে ভুগি, তাহলে কিন্তু সুফল পাওয়া যাবে না। পর্যটকবান্ধব একটি মাস্টারপ্ল্যান করতে হবে, ব্র্যান্ডিং করতে হবে। সর্বোপরি পর্যটন খাতকে যথাযথ গুরুত্ব দিতে হবে।’

শেয়ার করুন

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা 

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা 

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন বাস্তবতা। ছবি: নিউজবাংলা

প্রমত্তা পদ্মার ওপর প্রায় এক যুগ ধরে চলা মহাসেতু নির্মাণের মহাযজ্ঞ দেখতে গত ১ সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর বাড্ডার অফিস থেকে যাত্রা শুরু করে নিউজবাংলা টিম। যাত্রাবাড়ীর পর নিউজবাংলার গাড়ি ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েতে ঢুকে যেন চোখের পলকেই চলে গেল পদ্মা সেতু এলাকায়। যে সেতু চালু হলে ৫৫ কিলোমিটারের এই এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে যাত্রাবাড়ীর হানিফ ফ্লাইওভার সংলগ্ন গোলচত্বর থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা মোড় যেতে সময় লাগবে মাত্র ৪০-৪৫ মিনিট।

এ যেন এক যুদ্ধ। তাদের কোনো রাত-দিন নেই। শীত-বর্ষা-গ্রীষ্ম এমনকি রোদ-বৃষ্টিকে থোড়াই কেয়ার। নেই করোনা অতিমারিতে আতঙ্কনীল হয়ে হাত গুটিয়ে বসে থাকার সুযোগ। আছে শুধু কাজ শেষ করার অদম্য ক্ষুধা। স্বপ্নে সঞ্জীবিত কর্মীরা নিরলস, যেন ব্রতে ব্যাপৃত। স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণে ইতিহাসের অংশ হওয়ার অঙ্গীকার সবার।

তাদের কারো চোখে-মুখে নেই ক্লান্তির ছাপ। আছে আনন্দের ঝিলিক আর অসম্ভবকে সম্ভব করে তোলার বুকভরা সাহস। মেহনতি ঘাম ও নিষ্ঠার গাঁথুনি যেন বহুমুখী এই সেতুকে আরও বেশি মজবুত করে তুলছে।

প্রমত্তা পদ্মার ওপর প্রায় এক যুগ ধরে চলা মহাসেতু নির্মাণের মহাযজ্ঞ দেখতে গত ১ সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর বাড্ডার অফিস থেকে যাত্রা শুরু করে নিউজবাংলা টিম।

যাত্রাবাড়ীর পর নিউজবাংলার গাড়ি ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েতে ঢুকে যেন চোখের পলকেই চলে গেল পদ্মা সেতু এলাকায়। যে সেতু চালু হলে ৫৫ কিলোমিটারের এই এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে যাত্রাবাড়ীর হানিফ ফ্লাইওভার সংলগ্ন গোলচত্বর থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা মোড় যেতে সময় লাগবে মাত্র ৪০-৪৫ মিনিট।

সরকারের প্রত্যাশা, এই সেতু হলে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ১ দশমিক ২৩ শতাংশ বাড়বে।

সেতু বললে আসলে যে ছবি আমাদের মনে ভাসে সেই ছবি দিয়ে কোনোভাবেই মেলানো সম্ভব নয় ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই অবকাঠামোকে। প্রমত্তা পদ্মায় দ্বিতল এই সেতুর ওপর দিয়ে চার লেনে চলবে গাড়ি, নিচ দিয়ে চলবে ট্রেন। সেতুর তলদেশ দিয়ে বাংলাদেশে অনুমোদিত যেকোনো ধরনের নৌযান চলাচল করতে পারবে অনায়াসে। সেতুর নিচতলা দিয়ে যাচ্ছে গ্যাসের পাইপলাইন, যে লাইন দিয়ে গ্যাস পৌঁছাবে এই জনপদসহ আশপাশের অনেক জেলায়।

২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মূল সেতু ও নদীশাসন কাজ উদ্বোধন করেন। এর আগে ২০০৯ সালের ১৯ জানুয়ারি শুরু হয় নকশা ও পুনর্বাসন কাজ।

নিউজবাংলার চোখে পদ্মা সেতু

পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে পদ্মা নদীর দুই প্রান্তকে যুক্ত করেছে দেশের সবচেয়ে বড় এই সেতু অবকাঠামো প্রকল্প। কড়া নিরাপত্তা আর পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিন-রাত তিন শিফটে কাজ করছেন দেশি-বিদেশি শ্রমিক-প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্টরা।

সেদিন সকাল ৯টার দিকে মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের সংযোগ সড়কের নিচে পৌঁছায় নিউজবাংলা টিম। নিরাপত্তা বলয় পেরিয়ে সেতুর নিচ দিয়ে ঢুকতেই নজরে পড়ে কর্মীদের ব্যস্ততা। দেখা যায় বড় বড় ক্রেন, নির্মাণ সামগ্রী ও যন্ত্রপাতি এবং নানা আকৃতির ব্লক।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

সামনে এগোতেই সেতু কর্তৃপক্ষের একজন প্রতিনিধি আমাদের দলের সঙ্গে যুক্ত হন। তিনি সেতু পরিদর্শনের নিয়ম সম্পর্কে ‘সচেতন বার্তা’ দেন।

মোহাম্মদ ইরফান নামের এই প্রতিনিধি জানান, মূল সেতুতে উঠতে হবে ১ নম্বর পিলারসংলগ্ন লোহার সিঁড়ি দিয়ে, যে সিঁড়ি প্রায় ১২ তলা সমান উঁচু। সেতুতে উঠে বাংলাদেশি শ্রমিক ছাড়া বিদেশি কোনো কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলা যাবে না বলে সতর্ক করে দেন তিনি।

ইরফান বিশেষ জোর দিয়ে বলেন, ‘আমরা আর যাই করি, চীনের কোনো কর্মকর্তা বা কর্মীর সঙ্গে যেন কোনো ধরনের কথা বলার চেষ্টা না করি।’ এরপর ইরফানের দেখানো সিঁড়ি বেয়ে মূল সেতুতে ওঠে নিউজবাংলা টিম।

তখন সকাল সাড়ে ১০টা। সেতুর ওপরে সূর্যের আলো ঠিকরে পড়েছে। সেতুর দুই পাশে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে কাজ করছেন শ্রমিকরা। তাদের সবার মাথায় সবুজ রঙের হেলমেট, মুখে মাস্ক। কেউ কেউ সেতুর রেলিংয়ের কাজ করছেন। কেউ কেউ রড কাটছেন। আবার কেউ কেউ প্যারাপেট ওয়াল বসানোর কাজে ব্যস্ত। মাঝেমধ্যেই তাদের কর্মকাণ্ড চীনের কর্মকর্তারা তদারকি করছেন।

ব্যস্ত এই শ্রমিকদের একজন মো. শাহীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুর কাজের শুরু থেকেই কাজ করছি। আগে নিচে করেছি, এখন সেতুর ওপরে উঠেছি। বসেরা যখন যে কাজ দেন, তাই করি। এখন করছি রেলিংয়ের কাজ।’

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বিবিএ) কর্মকর্তারা বলছেন, সেতুর দুই পাশে রেলিং, প্যারাপেট ওয়াল ও ডিভাইডারের কাজ এগিয়ে চলছে। মাওয়া-জাজিরাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার মানুষ এখানে মাসিক বেতনের চুক্তিতে কাজ করছেন।

একজন শ্রমিক বলেন, এই কাজ করার সময় মাঝেমধ্যেই ভারী যন্ত্রপাতির আঘাত পান তারা। তাদের মধ্যে কারও কারও হাত, কারও কারও পা থ্যাঁতলে গেছে। তারপরও নতুন কিছু আবিষ্কারের নেশায় কাজ করে যাচ্ছেন।

প্রকল্পে প্রায় ৮ বছর ধরে কাজ করছেন গাইবান্ধার মো. শরিফ। প্রথমে করেছেন ওয়েল্ডিংয়ের কাজ। এখন তিনি ফোরম্যান। তার অধীনে ছয়জন কর্মী সেতুর রড, বিদ্যুৎ, পিলার ও স্ল্যাবের যেকোনো কাজে পারদর্শী। কথা বলার সময় তিনি করছিলেন স্ল্যাবের কাজ।

নিউজবাংলাকে শরিফ বলেন, ‘প্রথম দিকে চাইনিজদের ভাষা বুঝতে কষ্ট হয়েছে। কাজেও ভুল ছিল। এখন কোনো কষ্ট নেই। ওদের ভাষা বুঝি। কাজও পারি। ওরা প্রশংসা করে।’

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

প্রকল্পে ৫ বছর ধরে কাজ করছেন মাওয়ার বাসিন্দা শান্ত মোহাম্মদ। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘চাইনিজ ছাড়াও জার্মান, মালয়েশিয়ান ও ভারতীয়রা এই সেতুর কাজ করে। এরা সবাই বস। তবে মালয়েশিয়ানদের চেয়ে জার্মানির কর্মকর্তারা বড়। যখন কোনো বড় ধরনের প্রবলেম হয় তখন ওরা খালি চেক দেয়ার জন্য আসে। ইন্ডিয়ানরা আসে ওপরের যেসব রিস্কি কাজ থাকে সেগুলা করার জন্য। যেমন টাওয়ারের কাজ।’

মূল সেতুর এক নম্বর পিলারের পাশেই কাজ করছিলেন শাহীন নামের আরেক শ্রমিক। নিউজবাংলাকে তিনি জানান, প্রত্যেক পিলারকে কেন্দ্র করে একেকজন ফোরম্যানের অধীনে ভিন্ন ভিন্ন দল সেতুর ভিন্ন ভিন্ন কাজে যুক্ত। পি ওয়ান পিলারের কাছে পাঁচজন ফোরম্যান কাজ করছেন। তাদের অধীনে ১১০-১২০ জন কর্মী রয়েছেন।

সেতুর ওপরের শ্রমিকদের সঙ্গে মাঝেমধ্যে কথা বলতে বলতে নিউজবাংলা টিম হাঁটতে থাকে জাজিরা প্রান্তের দিকে। কাজের প্রায় একই দৃশ্য দেখতে দেখতে ৮ নম্বর পিলারের কাছাকাছি গিয়ে ফিরে আসে ১ নম্বর পিলারে। এরপর নিউজবাংলা টিম নিচে নামে, সিঁড়ি বেয়ে উঠে রেল সেতুর কাজ দেখতে। সেখানেও দলে দলে ভাগ হয়ে অনেক শ্রমিককে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা যায়।

সেতুতে ‘ফেরির ধাক্কা’ নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে কর্তৃপক্ষ সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় নিউজবাংলা টিম মাওয়া প্রান্তের মাছবাজার ঘাট থেকে ট্রলারে চড়ে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যায়। দুপুর ২টার দিকে কাঁঠালবাড়ী পৌঁছে দেখা যায় প্রাণহীন ঘাট। ঘাটের বেশিরভাগ হোটেল খোলা থাকলেও কোনো মানুষ কিংবা যাত্রী দেখা যায়নি।

কাঁঠালবাড়ী থেকে অটোরিকশায় চড়ে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের উদ্দেশে রওনা দেয় নিউজবাংলা টিম। ১৫ থেকে ২০ মিনিট যাওয়ার পর দূর থেকেই পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক, সংযোগ সেতু দেখা যায়। সেনাবাহিনীর ৯৯ কম্পোজিট ব্রিগেডের অনুমতি নিয়ে মেঠোপথ ধরে ৪২ নম্বর পিলার পর্যন্ত যায় নিউজবাংলা টিম। মাওয়া প্রান্তের ১ নম্বর পিলার থেকে জাজিরা প্রান্তের এই ৪২ নম্বর পিলার পর্যন্তই মূল সেতু।

৪২ নম্বর পিলার এলাকায় যেতে যেতে দেখা যায়, সেতুর নিচ দিয়ে বড় বড় ব্লক নিয়ে নদী শাসনের কাজের ব্যস্ততা। এ সময় সেতুর ওপর থেকে ভেসে আসছিল টুং-টাং শব্দ। ৪২ নম্বর পিলারের গোড়ায়ও আছে ওপরে ওঠার সিঁড়ি। সেই সিঁড়ি দিয়ে শ্রমিকরা ওঠানামা করছেন। চাইনিজ সিকিউরিটিজ সার্ভিসের সদস্যরা পিলারের ওপরে ওঠার সিঁড়ির নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। নদীর তীর ঘেঁষে টহল দিচ্ছেন সেনা সদস্যরা।

কয়েকজন শ্রমিক জানান, ওপরে রেল ও সড়ক সেতুর কাজ চলছে। রোডওয়ে স্ল্যাব ও রেল স্ল্যাব বসানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। রেলিং ও প্যারাপেট ওয়াল তৈরিসহ পিচ ঢালাইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

৪২ নম্বর পিলারের নিচে শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলার পর নিউজবাংলা টিম এগিয়ে যায় পদ্মা নদীর পাড়ে। সেখান দেখা যায়, দুই চরের মাঝ দিয়ে মাওয়ার দিকে চলে গেছে পদ্মা সেতু। সেতুর নিচ দিয়ে চলাচল করছে নানা ধরনের নৌযান। পার ধরে টহল দিচ্ছেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

সূর্য ডোবার পর নিউজবাংলার টিম প্রকল্প এলাকা থেকে বেরিয়ে যায়। গনির মোড় এলাকায় কথা হয় বেশ কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে, যারা চায়ের দোকানে বসে আড্ডা দিচ্ছিলেন।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

নিউজবাংলাকে তারা বলেন, স্বপ্নের এই সেতুর জন্য জমি দিয়েছেন। কিন্তু সেতুর সঙ্গে শরীয়তপুরের কোনো সংযোগ সড়ক নেই। সেতু ঘিরে যেসব উন্নয়ন প্রকল্প হচ্ছে তার সবই হচ্ছে মাদারীপুরকে কেন্দ্র করে, বিশেষ করে মাদারীপুরের শিবচরকে কেন্দ্র করে। বিষয়টি নিয়ে এক ধরনের অসন্তোষ, ক্ষোভও আছে তাদের মধ্যে।

কাছাকাছি প্রতিক্রিয়া জানান সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) শরীয়তপুরের সভাপতি আহসান উল্লাহ ইসমাইলী ও আইনজীবী আজিজুর রহমান রোকন। তাদের কথার সূত্র ধরে শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা। তারা শুনিয়েছেন পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরের ব্যাপক সম্ভাবনার কথা।

শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান মনে করেন, এই সেতুর কারণে শরীয়তপুরের বাসিন্দাদের আর্থ-সামাজিক, সাংস্কৃতিক, মনোজাগতিক উন্নয়ন হবে। কোনোটা খুব দ্রুত, কোনোটা ধীরে ধীরে। সবমিলে হংকং বা সিঙ্গাপুরের মতো বাণিজ্যিক কেন্দ্র হওয়ার সম্ভাবনা আছে শরীয়তপুরে।

উপহাস আর ষড়যন্ত্রের কথা

দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে বাঙালি জাতির স্বপ্ন এখন বাস্তব। পদ্মা সেতু যাতে না হয় সে জন্য ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল এ দেশের কয়েকটি সংবাদপত্র, যেগুলো দিনের পর দিন পদ্মা সেতুর কল্পিত দুর্নীতি নিয়ে মনগড়া গল্প চালিয়ে গেছে। শতসহস্র এসব গল্প উড়িয়ে দিয়ে পাঁচ বছরের বেশি সময়ের বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে কানাডার আদালত বলেছে, এই মামলায় যেসব তথ্য দেয়া হয়েছে, তা অনুমানভিত্তিক, গালগল্প এবং গুজবের বেশি কিছু নয়।

দুর্নীতির এই অভিযোগ নিয়েই টানাপোড়েনের জের ধরে ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়ায় বিশ্বব্যাংক। পরে নিজস্ব অর্থায়নেই বাংলাদেশ পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করে।

পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন, এই সেতু নিয়ে ৯০ দশকের আন্দোলন এবং আন্দোলনের কারণে অনেক মানুষের টিটকারী, হাসি-তামাশার শিকার হওয়ার কথা। অনেকেই তাকে পাগলও বলেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

বর্তমানে শরীয়তপুরে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে থাকা খোকা শিকদার জানিয়েছেন, আন্দোলনের এই পুরো সময়ে ক্ষমতায় ছিল জাতীয় পার্টি ও বিএনপি। তিনি বলেন, ‘২০০১ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ভিত্তি স্থাপন করেন শেখ হাসিনা। তারপর বিএনপি সরকার এসে সেটা ভেঙে ফেলে। তারপরের ইতিহাস সবাই জানেন। সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে শেখ হাসিনা নিজেদের টাকা দিয়ে নিজেই পদ্মা সেতু করলেন।’

নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলার সময় পদ্মা সেতুর সম্ভাবনা তুলে ধরার পাশাপাশি পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন কমিটির বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচি, নানা ধরনের উপহাস আর ষড়যন্ত্রের প্রসঙ্গ তোলেন শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম।

উপমন্ত্রী বলেন, ‘আমি তখন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা। যুক্ত হই ছাবেদুর রহমান খোকা শিকদারের নেতৃত্বাধীন পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন কমিটিতে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এই সেতুর প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশ নেই। সে সময় এই সেতুর কথা বলে আজকের বিরোধী দলের শীর্ষ নেতা পর্যন্ত উপহাস করেছিলেন।

‘নানা ষড়যন্ত্রের জাল বুনেছিলেন পদ্মা সেতু ঠেকাতে। কিন্তু দেশপ্রেমে বলীয়ান শেখ হাসিনাকে কেউ দমাতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নদী পার হয়ে জাজিরায় গেছেন। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের অধিকার আদয়ের জন্য চষে বেরিয়েছেন এই জনপদ। আজ সেই নদীর বুক চিরে পদ্মা সেতু দাঁড়িয়ে যেন বঙ্গবন্ধুকেই কুর্নিশ করছে। এই সেতুর ফলে এখানকার জনপদে উন্নয়নের আলো ছড়িয়ে পড়েছে।’

প্রকল্পের কর্মীদের তথ্য

সে এক মহাযজ্ঞ। ২২ বছর ধরে ২০ হাজার শ্রমিকের অক্লান্ত পরিশ্রমে তৈরি হয়েছিল ঐতিহাসিক তাজমহল। তাহলে পদ্মা সেতুর বিশাল কর্মযজ্ঞে কত শ্রমঘণ্টা যুক্ত হয়েছে তা জানার কৌতূহল আমাদের। কিন্তু সেতু কর্তৃপক্ষ এমন সুনির্দিষ্ট হিসাব দিতে পারেনি। তবে কত শ্রমিক কাজ করছে তার একটি হিসাব পাওয়া গেল।

প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা নিউজবাংলাকে জানান, ২০০৯ সালের ১৯ জানুয়ারি নকশা ও পুনর্বাসনের কাজ শুরুর সময়ই ৫০০ কর্মী ছিলেন। এরপর কাজের সঙ্গে বাড়তে থাকে কর্মী। ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রকল্পের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের সময় ১২০০ থেকে ২০০০ কর্মী ছিলেন।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত প্রতি মাসে ২০ হাজার কর্মী কাজ করেছেন। এরপর কাজের চাপ কমে যাওয়ায় কর্মীর সংখ্যাও কমতে থাকে। ২০১৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মাসে সাড়ে ৪ হাজার কর্মী কাজ করছেন। তাদের মধ্যে ৪ হাজার জনই বাংলাদেশি। বাকি ৫০০ কর্মী ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ বিশ্বের ২২টি দেশের নাগরিক।

দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, কলম্বিয়া, চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ভারত, নিউজিল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, নেপাল এবং আফ্রিকার দেশ তানজানিয়া। বিদেশি কর্মী-কর্মকর্তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে চীনের।

বিদেশিদের মাসিক বেতন সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা থেকে সর্বনিম্ন ৮০ হাজার। বাংলাদেশি কর্মীদের মধ্যে শ্রমিক থেকে ফোরম্যান পর্যন্ত বেতন ১০ হাজার থেকে ২৫ হাজার পর্যন্ত।

দেশি-বিদেশি উপকরণ

বিবিএ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পদ্মা সেতুর পিলার ও স্ল্যাব তৈরির জন্য স্টোন চিপ আনা হয়েছে দুবাই ও ভারত থেকে। যে রড সিমেন্ট বালু লেগেছে তার সবই দেশি। প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, সেতু তৈরির প্রধান প্রধান উপকরণের মধ্যে বাংলাদেশের এমএস রড, বালু ও সিমেন্টই ব্যবহার হয়েছে। অন্যান্য প্রধান সব উপকরণই বিদেশ থেকে আনা হয়। সেতুর আলোকস্জ্জার কাজ দেশি বা বিদেশি যেকোনো কোম্পানিই পেতে পারে বলেও জানান প্রকল্প পরিচালক।

৬ থেকে ৩৮ নম্বর পিলারের মধ্য দিয়ে চলবে নৌযান

বিবিএ কর্মকর্তারা জানান, মূল সেতুর ৬ নম্বর থেকে ৩৮ নম্বর পিলারগুলোর যেকোনো ফাঁকা জায়গা দিয়ে নৌযান চলাচল করতে পারবে। এর প্রত্যেকটি পিলারের পাইল ক্যাপ থেকে সেতু পর্যন্ত উচ্চতা ১৮ দশমিক ৩ মিটার। দুই পিলারের মাঝের দূরত্ব ১৩১ মিটার। বর্ষা মৌসুমে পানির স্তর পাইল ক্যাপের নিচেই থাকে। আর ১৮ দশমিক ৩ মিটার উচ্চতার বেশি কোনো নৌযান নেই বাংলাদেশে।

প্রকল্পের সম্ভাব্য ব্যয় ও মেয়াদ

২০০৭ সালের আগস্টে প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার, ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা। সর্বশেষ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

পদ্মায় মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড। ২০১৫ সালে ৭ নম্বর পিলার বসানোর মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হয়। এই জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এই সেতুর কাজ। তবে করোনা মহামারি ও প্রবল বন্যায় কাজের ব্যাঘাত হওয়ায় আরও দুই বছর বেড়েছে প্রকল্পের মেয়াদ।

প্রকল্প পরিচালক জানান, ২০২১ সালের আগস্ট পর্যন্ত প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৮৭.৭৫ শতাংশ। এর মধ্যে মূল সেতুর অগ্রগতি হয়েছে ৯৪.৫০ শতাংশ। নদী শাসনের কাজ হয়েছে ৮৪.৭৫ শতাংশ।

কবে নাগাদ সেতু যান চলাচলের উপযোগী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের কাজ হচ্ছে ২০২২ সালের জুন মাসের মধ্যে কাজ শেষ করা। এর মধ্যেই যান চলাচলের উপযোগী করা। কবে কোন গাড়ি দিয়ে উদ্বোধন করা হবে, তা ঠিক করবে সরকার।’

সেতুর টোল ও নিরাপত্তা

বিবিএ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কোরিয়া এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশন কোম্পানি (কেইসি) সেতুর ওপর চলাচলকারী যানবাহনের টোল আদায়ের কাজ পেতে পারে। আনুষ্ঠানিক চুক্তি না হলেও দক্ষিণ কোরিয়ার কোম্পানিটির সঙ্গে আলোচনা অনেকটাই এগিয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘আমি শুনেছি, সেতু কর্তৃপক্ষ কেইসির সঙ্গে আলোচনা করছে। এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।’

প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘সেতুর নিরাপত্তা দেখভাল করবে সেতু কর্তৃপক্ষই। সেনাবাহিনী সামগ্রিক নিরাপত্তার বিষয়টি তদারকি করবে। দূর থেকে তারা পর্যবেক্ষণের দায়িত্বে থাকবেন।’

অর্থনৈতিক প্রভাব

বিবিএ বলছে, সেতুটি দক্ষিণের ১৯ জেলার সঙ্গে রাজধানী ঢাকাসহ পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন নিশ্চিত করবে। দেশের দ্বিতীয় সমুদ্রবন্দর মোংলা বন্দরটি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করার সুযোগ সৃষ্টি হবে। ঢাকা ও চট্টগ্রামের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে বেনাপোল স্থলবন্দরেরও। পদ্মা সেতু এশিয়ান হাইওয়ে রুট অঐ-১ এর অংশ হওয়ায় বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ যোগাযোগসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর যোগাযোগের ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে।

এসব যোগাযোগের ফলে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ১ দশমিক ২৩ শতাংশ বাড়ার যে আশা করা হচ্ছে সে প্রসঙ্গে কথা হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমানের সঙ্গে।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমরা সম্ভাব্যতার বড় জায়গাটায় না গেলাম, সর্বনিম্ন সমীক্ষাটিও যদি গ্রহণ করি, তাহলেও দক্ষিণ বাংলার যে ২১ জেলা আছে সেখানে ২ শতাংশ জিডিপি বাড়বে। আর পুরো দেশের জিডিপি কম করে হলেও ১ শতাংশ বাড়বে, এর বেশিও বাড়তে পারে।’

রেল সংযোগ প্রকল্পে ইলেকট্রিক ট্রেন

পদ্মা সেতু প্রকল্পের অধীনে যান চলাচল ও ট্রেনের লাইন হচ্ছে। দুই পারের সঙ্গে রেল সংযোগ করছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। এ প্রকল্পের নাম দেয়া হয়েছে পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প (পিবিআরএলপি)।

বাংলাদেশ রেলওয়ের বৃহত্তম এই প্রকল্পের অধীনে রাজধানী ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে যশোর পর্যন্ত ১৬৯ কিলোমিটার রেললাইন হচ্ছে। প্রকল্পটির সর্বশেষ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৯ কোটি ২৪৬ কোটি টাকা। বাস্তবায়নের সময় দুই বছর বাড়িয়ে করা হয়েছে ২০২৪ সাল পর্যন্ত।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চীন সরকারের ঋণের অর্থে এই প্রকল্প জি টু জি পদ্ধতিতে বাস্তবায়ন করছে চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেড (সিআরইসি)। প্রকল্পে ঢাকার মেট্রোরেলের মতো ইলেকট্রিক ট্রেনের প্রযুক্তি থাকবে।

এই রেললাইনের মাধ্যমে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে জাতীয় ও আন্ত দেশীয় রেল যোগাযোগ স্থাপিত হবে। রেলপথটি দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ২৩টি জেলায় প্রথম রেলসংযোগ স্থাপন করবে। ২০২১ সালের আগস্ট পর্যন্ত সার্বিক অগ্রগতি ৪৩ দশমিক ৫০ শতাংশ।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা

রেল প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের নিয়ে গত ৭ সেপ্টেম্বর প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে যান রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। রেলমন্ত্রীর এই সফরের সঙ্গী ছিল নিউজবাংলাও।

রেলমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতু দিয়ে একসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও ট্রেন চলাচল শুরু করার চেষ্টা চলছে। কিন্তু চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সেতু কর্তৃপক্ষ পদ্মা সেতুতে রেলপথ স্থাপনের অংশ রেলওয়েকে বুঝিয়ে না দিলে এ কাজ যথাসময়ে অর্থাৎ জুনের মধ্যে শেষ হবে না। এতে করে জুনে পদ্মা সেতু দিয়ে ট্রেন চলাচল শুরু করা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

নদী শাসন ৮৫% শেষ

পদ্মা সেতুর জন্য নদী শাসন বাবদ ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৭০৮ কোটি টাকা। এ কাজ পেয়েছে চীনের আরেক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিনোহাইড্রো করপোরেশন। চুক্তি হয় ২০১৪ সালের নভেম্বরে। এ পর্যন্ত ৮৫ শতাংশ কাজ হয়েছে বলে জানিয়েছেন পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (নদী শাসন) মো. শরফুল ইসলাম সরকার।

আগামী জুনে পদ্মা সেতু উদ্বোধন হওয়ার কথা। তার আগে স্বাধীনতা দিবস বা অন্য কোনো জাতীয় দিবসে এই সেতু উদ্বোধন হতে পারে, এমন জল্পনা-কল্পনা আছে। তবে মার্চ বা জুন যখনই হোক স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন নন্দিত বাস্তবতা।

সেতুমন্ত্রীর আশা

সরকার আশা করছে, ২০২১ সালের মধ্যেই দেশে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। অর্থনীতি আগের অবস্থায় ফিরে আসতে শুরু করবে। স্বস্তির মধ্য দিয়ে শুরু হবে ২০২২ সাল। তারপর জুন থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল ও কর্ণফুলী টানেল প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমি আশা করছি, আগামী বছর ইনশাল্লাহ তিনটি মেগা প্রজেক্ট মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। এর মধ্যে আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতু, এরপর কর্ণফুলী নদীর নিচ দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল এবং ডিসেম্বরে এমআরটি-৬ প্রকল্পের আওতায় মেট্রোরেল উদ্বোধন করা হবে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘সমালোচকরা সমালোচনা করবে, অপপ্রচার করবে, কিন্তু আমরা জবাব দেবো কাজ দিয়ে। আমরা মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু, এক্সপ্রেসওয়ে এবং কর্ণফুলী টানেল দিয়ে জবাব দেবো।’

শেয়ার করুন

মহাযজ্ঞ বদলে দিচ্ছে চার জেলা

মহাযজ্ঞ বদলে দিচ্ছে চার জেলা

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দ্বিতল এই সেতুর ওপর দিয়ে চার লেন দিয়ে চলবে গাড়ি, নিচ দিয়ে চলবে ট্রেন। সেতুর তলদেশ দিয়ে যেকোনো ধরনের নৌযান চলাচল করতে পারবে অনায়াসে। সেতুর নিচতলা দিয়ে যাচ্ছে গ্যাসের পাইপলাইন, যে লাইন দিয়ে গ্যাস পৌঁছাবে এই জনপদসহ আশপাশের অনেক জেলায়। তাই পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের কাজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চলছে মুন্সিগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর।

মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে পদ্মা নদীর দুই প্রান্তকে যুক্ত করছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। ইতিমধ্যে প্রকল্পের ৮৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী জুন মাসেই সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরুর আশা করা হচ্ছে। তখন রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা মোড় যেতে সময় লাগবে মাত্র ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দ্বিতল এই সেতুর ওপর দিয়ে চার লেন দিয়ে চলবে গাড়ি, নিচ দিয়ে চলবে ট্রেন। সেতুর তলদেশ দিয়ে যেকোনো ধরনের নৌযান চলাচল করতে পারবে অনায়াসে। সেতুর নিচতলা দিয়ে যাচ্ছে গ্যাসের পাইপলাইন, যে লাইন দিয়ে গ্যাস পৌঁছাবে এই জনপদসহ আশপাশের অনেক জেলায়।

তাই পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের কাজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চলছে মুন্সিগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর। এই প্রকল্পের কাজ ও প্রকল্প ঘিরে যেসব উন্নয়নমূলক কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে সম্প্রতি তা ঘুরে দেখেছে নিউজবাংলা। কথা বলেছে এসব জেলার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে।

সেতুকে কেন্দ্র করে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে যেসব প্রকল্পের কাজের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, তা দেখে জীবনমান উন্নয়নের স্বপ্ন দেখছেন একসময়কার অবহেলিত এই জনপদের মানুষ। তাই পদ্মার এপার-ওপার দুই পারের মানুষেরই এখন আগ্রহ-উচ্ছ্বাসের কেন্দ্রবিন্দু কবে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে পদ্মা সেতু।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী

পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা এবং মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার কুতুবপুর মৌজার ১২০ একর জমিতে হচ্ছে শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী। প্রকল্পের পাশেই পদ্মা সেতুর শরীয়তপুর প্রান্তের রেল স্টেশন। এই স্টেশনের কারণে এখানকার তাঁতিরা কাঁচামাল সংগ্রহ ও উৎপাদিত পণ্য সহজে আনা-নেয়া করতে পারেন। স্থানীয় লোকজন মনে করছেন, শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড। বর্তমানে প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজ চলছে। এর জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। এর পুরোটাই সরকারি তহবিল থেকে দেয়া হবে। প্রথম পর্যায়ের এই কাজের মেয়াদ ২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।

মহাযজ্ঞ বদলে দিচ্ছে চার জেলা

প্রকল্প এলাকা ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভূমি অধিগ্রহণ শেষে ভরাটের মাধ্যমে চলছে ভূমি উন্নয়নকাজ। এরপর শুরু হবে অবকাঠামো উন্নয়নকাজ। কর্মসংস্থানের পাশাপাশি তাঁতিদের দক্ষতা বৃদ্ধি, পণ্যের গুণগত মান উন্নয়ন, বাজারজাতকরণ, পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে তাঁতবস্ত্র সরবরাহের মাধ্যমে তাঁতিদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়েই তাঁত পল্লী গড়ে উঠছে।

তাঁত বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রকল্পটির আওতায় তাঁতিদের কাপড় বোনার আগে ও পরে বিভিন্ন সুবিধা দেয়া হবে। সেখানে তাঁতিদের জন্য থাকবে আবাসিক ভবন, তাঁত শেড, ডরমেটরি, রেস্ট হাউস, সাইবার ক্যাফে ও বিদ্যুতের উপকেন্দ্র। সপ্তাহে এক বা দুই দিন তাঁতপণ্যের হাট বসানোর চিন্তা রয়েছে। যে হাটে সুতাসহ বিভিন্ন কাঁচামাল বিক্রয় ও প্রদর্শনী হবে। মূলত তাঁতের কাপড় বোনা থেকে শুরু করে পোশাক তৈরি ও বিক্রি পর্যন্ত সব ব্যবস্থাই করা হবে পুরো প্রকল্পের আওতায়।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লীর (প্রথম পর্যায়) প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলী খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ে আমরা শুধু ভূমি অধিগ্রহণ, ভূমি উন্নয়ন আর সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করব। এরই মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণ হয়ে গেছে। এখন বালু ভরাট করে ভূমি উন্নয়ন করছি। বালু ভরাটের কাজ ৬০ শতাংশ হয়ে গেছে। করোনার কারণে আমাদের কাজ একটু পিছিয়ে পড়েছে। তারপরও আশা রাখি, আগামী বছরের জুনের মধ্যেই প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ করতে পরব।’

তিনি জানান, প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে মূলত তাঁত পল্লীর অবকাঠামো তৈরির যাবতীয় কাজ হবে। একটি আদর্শ তাঁত পল্লীতে যা যা থাকা উচিত তার সবই থাকবে সেখানে।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী প্রকল্পের আওতায় কী কী হবে, তার একটা খসড়া করা হয়েছে জানিয়ে প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষে আমরা তাঁত পল্লী উন্নয়নের এই খসড়া পরামর্শক প্রতিষ্ঠানকে দিব। তারা এগুলো দেখে প্রয়োজনে নতুন কিছু যোগ করতে পারে, নাও পারে। সবমিলে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান শেখ হাসিনা তাঁত পল্লীর একটা মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করবে। পরে সেটা একনেকে পাস হলেই দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরু হবে।’

জাহাঙ্গীর আলী খান বলেন, ‘আমরা আশা করছি, এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে আমাদের তাঁতশিল্প অনেক দূর এগিয়ে যাবে। কারণ পদ্মার ওই এলাকা হবে পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় জায়গা। মানুষ সেখানে ঘুরতে গিয়ে এই তাঁত পল্লীর সঙ্গে পরিচিত হবে। তারা তাঁতের বিভিন্ন সামগ্রী কেনাকাটা করবে।’

নিউজবাংলার সঙ্গে কথা হয় পশ্চিম নাওডোবা ইউনিয়নের জমাদ্দারকান্দি গ্রামের মহসীন জমাদ্দারের, যার বাড়ি তাঁত পল্লীর পাশেই। পদ্মা সেতু আর এই তাঁত পল্লী তাকে নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

মহসীন জমাদ্দার বলেন, ‘রাস্তার পাশেই আমার মুদি দোকান, দই-মিষ্টিও বেচি। এখানে তাঁত পল্লী হলে অনেক মানুষ আসবে, বেচা-বিক্রি বাড়বে। তাই চিন্তা করছি, ডেইরি খামার দেব। খামারের দুধ দিয়ে উন্নতমানের মিষ্টি বানাব।

‘আশা করছি, সেই মিষ্টির জন্য এখানে যারা আসবে, তারা খেতে পারবে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের লোক কিনেও নিয়ে যেতে পারবে। তাঁত পল্লীতে যেমন এলাকার লোকের কাজ হবে। আমরা যারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ব, সেখানেও এলাকার মানুষ কাজ পাবে।’

আলতাফ হোসেন নামের এক স্থানীয় বাসিন্দা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের এলাকাটি ছিল খুব অনুন্নত। এখন পদ্মা সেতু হচ্ছে, তাঁত পল্লী হচ্ছে। এই এলাকা এখন শহরের মতো হয়ে যাবে। আলো ঝলমল করবে। দেশি-বিদেশি মানুষ আসবে। আমাদের এলাকাটি হবে পর্যটন এলাকা। এ কথা ভাবতেই আনন্দ লাগছে।’

এই তাঁত পল্লী হওয়ার খবর শুনে পাবনা থেকে ব্যবসা করতে এখানে এসে থাকছেন বিল্লাল হোসেন। এখন ভাঙারির ব্যবসা করছেন। প্রকল্পের পাশেই জমি কেনার চিন্তা তার।

নিউজবাংলাকে বিল্লাল বলেন, ‘আমি এই এলাকার না, ব্যবসা করতে আসছি। এখানে তাঁত পল্লী হলে বিভিন্ন জায়গার লোকজন আসা-যাওয়া করবে। ব্যবসা-বাণিজ্যের মান বাড়বে। এলাকাটি গ্রাম থেকে শহরে পরিণত হবে। তাই আমি পাবনা থেকে এসেছি। অনেক দিন ধরেই ভাঙারির ব্যবসা করছি।

‘এখন তাঁত পল্লী ঘিরে নতুন ব্যবসার চিন্তা করছি। এখানে বিনিয়োগ হবে বুদ্ধিমানের। আমার মতো অনেকেই আসছেন, ঘুরে ঘুরে দেখছেন। এভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিনিয়োগকারীরা আসবেন। এলাকাটি হবে দর্শনীয় ও বাণিজ্যিক এলাকা।’

প্রকল্প সম্পর্কে জানতে চাইলে শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী শিল্পকে টিকিয়ে রাখার প্রয়াস। ফলে উন্নত হবে দেশের তাঁতশিল্প। জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে তাঁতিদের। ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটবে তাঁতিদের। একই সঙ্গে এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যোন্নয়ন ঘটবে। স্থানীয় মানুষের জন্য সৃষ্টি হবে নতুন নতুন কর্মসংস্থান।’

পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে পদ্মার এই পারে শুধু এই তাঁত পল্লীই নয়, হবে আইটি পার্কও। ইতিমধ্যে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় আইটি পার্কটি গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রকল্প বাস্তবায়নের অংশ হিসেবেই পদ্মাতীরবর্তী শিবচরে এই প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এর বাইরে আরও অনেক ছোট-বড় প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শেখ হাসিনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, শেখ রাসেল শিশু পার্ক, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব নার্সিং ইনস্টিটিউট অ্যান্ড কলেজ, আইএইচটি ভবন, ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, শিল্পকলা একাডেমি ভবন, মুক্তমঞ্চ ও অলিম্পিক ভিলেজ। সিঙ্গাপুরের আদলে গড়ে তোলা হবে বিসিক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক ও আইকন টাওয়ার।

আইটি পার্ক

ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ের পাশে শিবচরের কুতুবপুরের কেশবপুরে শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অফ ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি অ্যান্ড হাইটেক পার্ক নির্মাণে ৭০ দশমিক ৩৪ একর জায়গা নির্ধারণ করেছে আইসিটি মন্ত্রণালয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক অথরিটির অ্যাডমিন ও ফিন্যান্স বিভাগের পরিচালক এ এন এম শফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটার প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা হয়েছে। প্রস্তাবটা এখন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে আছে। আশা করছি, দু- এক মাসের মধ্যেই এটা একনেকে উঠবে। একনেকে প্রকল্পটা পাস হয়ে গেলেই আমরা কাজ শুরু করতে পারব।

‘ইতিমধ্যে ওই এলাকায় জায়গা নির্ধারণ হয়ে গেছে। প্রকল্প পাস হলেই ভূমি অধিগ্রহণ শুরু হবে। এই প্রকল্প বস্তবায়নের জন্য ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকার মতো খরচ হবে বলে আমরা অনুমান করেছি। একনেকে পাস হওয়ার পর খরচের মূল হিসাবটা পাওয়া যাবে।’

শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এই প্রকল্পটা বাস্তবায়ন হলে, ওই এলাকায় বিরাট পরিবর্তন আসবে। শুধু ওই এলাকায়ই না, পুরো দেশটাকে টার্গেট করে এই প্রকল্পটা বাস্তবায়ন করা হবে। মেধাবী সমাজ গঠনের যে কথা বলা হচ্ছে, এখানে সেই মেধাবী তৈরির কাজ হবে।

‘প্রযুক্তি নিয়ে রিসার্চ হবে। বিকেএসপি যেমন খেলোয়াড় তৈরি করে, তেমনি এখানে আগামী দিনের আইটি বিশেষজ্ঞ তৈরি হবে। এখানে হয়তো ১-২ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে। কিন্তু সেটা গুরুত্বপূর্ণ না, গুরুত্বপূর্ণ হলো এখান থেকে অসংখ্য আইটি বিশেষজ্ঞ বের হবে, তারা সারা দেশে ভূমিকা রাখবে।’

মহাযজ্ঞ বদলে দিচ্ছে চার জেলা

মাদারীপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে জেলার বিভিন্ন এলাকায় আরও অনেক উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছে।

সেগুলোর মধ্যে রয়েছে রেজাউল করিম তালুকদার টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ন্যাশনাল জুডিশিয়াল একাডেমি এবং সার্কেল এএসপি অফিস-কাম-বাসভবন, বেগম রোকেয়া কর্মজীবী মহিলা হোস্টেলসহ ট্রেনিং সেন্টার ও ডে-কেয়ার সেন্টার, শিবচর পৌর বাস টার্মিনাল, ট্রমা সেন্টার, শিবচর হাইওয়ে থানা, হাজি আবুল কাসেম উকিল ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র, চৌধুরী ফাতেমা বেগম ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং উপজেলা সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের সম্ভাব্য স্থানের তালিকায় এখনও শীর্ষস্থানে আছে শিবচরের নাম।

ইলিয়াস আহম্মেদ চৌধুরীর (দাদা ভাই) নামে শিবচর উপজেলায় ‘দাদা ভাই উপশহর’ হাউজিং প্রকল্পে ৮৭৮টি প্লট প্রস্তুতির কাজ ও বরাদ্দ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। ইতিমধ্যে কিছু বহুতল ভবন হয়েছে এবং সেগুলোতে মানুষ বসবাস করা শুরু করেছে। প্রায় ১০৫ একর জমিতে গড়ে ওঠা এই প্রকল্পে ১ লাখের বেশি মানুষের আবাসন হবে।

মাদারীপুর সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি খান মো. শহীদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পদ্মা সেতু মানুষের যোগাযোগব্যবস্থা সহজ করে দেবে। পদ্মায় ধরা মাছ যেমন সহজেই কারওয়ান বাজারে যাবে, তেমনি যেকোনো কৃষিপণ্য দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা যাবে। ফলে কৃষক, জেলেসহ সব পেশার মানুষ সরাসরি লাভবান হবেন।’

তিনি বলেন, ‘তাঁত পল্লী ও আইটি পার্কের মতো প্রকল্প এই জনপদের জন্য আশীর্বাদ। এসব প্রকল্পে যাতে অনিয়ম-দুর্নীতি না হয়, সেদিকে সরকারের কড়া নজরদারি থাকা উচিত। অন্যথায় এসব প্রকল্পের উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে পড়বে।’

সাজছে মুন্সিগঞ্জ

এই জেলার ওপর দিয়েই নান্দনিক ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে গেছে। অল্প সময়েই এখানকার মানুষ রাজধানী ঢাকায় যেতে পারছেন। বাড়িতে থেকেও অনেকে রাজধানীতে গিয়ে অফিস ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন।

এই এক্সপ্রেসওয়ে আর পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে সাজছে মুন্সিগঞ্জ। বেড়েছে এখানকার জমির দাম। হচ্ছে নতুন নতুন আধুনিক আবাসিক এলাকা। গড়ে উঠছে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, কলকারখানাসহ নানা অবকাঠামো। এই এলাকার অনেক লোকেরই কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে পদ্মা সেতুতে।

মহাযজ্ঞ বদলে দিচ্ছে চার জেলা

দৃষ্টি কেড়েছে ভাঙ্গা মোড়

পদ্মা সেতুর মতোই আরেক বিস্ময় হয়ে দেখা দিয়েছে ফরিদপুরের ভাঙ্গা গোলচত্বর। এখানকার বর্তমান দৃশ্য দেখলে মনে হয়, এটি উন্নত কোনো দেশের সড়ক জংশন, যা আসলে ভাঙ্গা উপজেলার গোলচত্বর।

এই গোলচত্বরের সৌন্দর্য দেখতে প্রতিদিনই অনেক মানুষ ভিড় করছেন।

[প্রতিবেদন তৈরিতে সহযোগিতা করেছেন মুন্সিগঞ্জের মঈনউদ্দিন সুমন ও শরীয়তপুরের কাজী মনিরুজ্জামান]

শেয়ার করুন

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

এক দিনের কষ্টের ঘটনা বর্ণনা করতে করতে খোকা সিকদার বলেন, ‘একবার লঞ্চে ফরিদপুরে বোনের বাসায় যাচ্ছি। পথে কেবিন থেকে লোকজন বলে উঠল- এই শালার পাগল পদ্মা নদীতে সেতু চায়! তারপর সবাই হো হো করে হেসে ওঠে।’

‘পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের ব্যানারে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা শহরে বিভিন্ন নেতার সঙ্গে কথা বলেছি। পদ্মার ভাঙন থেকে শুরু করে বিভিন্ন কষ্টের কথা বলেছি। সেসব কষ্ট লাঘবে পদ্মা সেতুর প্রয়োজনীয়তা তাদের কাছে তুলে ধরেছি। সবাই এই দাবির সঙ্গে স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন করেছেন। ওয়ার্ড থেকে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে সভা-সমাবেশ করেছি। ব্যানার-পোস্টার বানিয়েছি। পত্রিকায় নিউজ পাঠিয়েছি। তবে এসব কর্মকাণ্ড চলাকালে অনেক মানুষ টিটকারী করেছে, হাসি-তামাশা করেছে। অনেকেই পাগলও বলেছে।’

১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকেলে মোবাইল ফোনে নিউজবাংলাকে এসব কথা বলেন ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার। পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের এই প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এখন শরীয়তপুরে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপকালে পদ্মা সেতু নিয়ে নব্বই দশকের সেই আন্দোলন ও আন্দোলনের প্রেক্ষাপটের বিস্তারিত জানিয়েছেন খোকা সিকদার। তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের মূল প্রেরণা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তিনি নিজেই ডেকে নিয়ে আন্দোলনে উৎসাহ দিয়েছেন। তার নির্দেশনাতেই এই আন্দোলন গড়ে উঠেছিল।’

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

খোকা সিকদার জানান, এই আন্দোলনের কারণে চলতি পথে বিভিন্ন সময় বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে। একবার মাওয়া দিয়ে নৌকায় বাড়ি ফেরার সময় লোকজন তাকে ‘শালা পাগল হয়ে গেছে’ বলেও টিটকারী করেছিল।

তিনি জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রেরণায়ই ১৯৮৬ সালে তারা পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদ গঠন করেন। ২১ সদস্যের এই পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ইত্তেফাকের আব্বাস উদ্দিন আনসারী।

খোকা সিকদার বলেন, ‘হুসেইন মো. এরশাদের সময় যমুনা সেতুর কথা ওঠে। তখনই আমাদের কয়েকজনের উপলব্ধি আসে, আমরা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ এত কষ্ট করে নদী পার হই। নানা দুর্ভোগ পেরিয়ে যাতায়াত করি। এই অঞ্চলের মানুষের জন্য পদ্ম নদীর ওপর সেতু হলে এই কষ্ট দূর হতো।

‘সেই ভাবনা ও উপলব্ধি থেকেই আমি আর আব্বাস উদ্দিন আনসারী ভাইসহ কয়েকজন পদ্মা সেতুর প্রয়োজনীয়তার কথা সবার কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করি। ব্যানার-পোস্টার বানানো শুরু করি। ওয়ার্ডে-ওয়ার্ডে ঘুরে যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে কথা বলি।’

পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বলেন, “পরবর্তীতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে কষ্টার্জিত টাকা খরচ করে পোস্টার ছাপাই। ১৯৮৬ সালের সেই পোস্টারে লেখা ছিল, ‘২১ জেলার ৫ কোটি মানুষের প্রাণের দাবি পদ্মা সেতু চাই’।”

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

তিনি জানান, ১৯৮৬ সালে পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদ গঠনের পর তারা এ কার্যক্রম সবখানে ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন। খুলনা, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় গিয়ে পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের জেলাভিত্তিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। সেসব কমিটিতে সংশ্লিষ্ট জেলার দলীয় নেতা ছাড়াও বিভিন্ন এলাকার যুব ও ছাত্রনেতারা সক্রিয় হয়ে ওঠেন।

খোকা সিকদার বলেন, “‍এসব কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় ১৯৮৮ সালে আরও একটি পোস্টার করি আমরা। সেখানে লেখা ছিল- ‘পদ্মা সেতু কেন চাই?’ পরবর্তীতে আরেকটি পোস্টার করি, তাতে লেখা ছিল- ‘পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন চাই।”

তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের এই পুরো সময়ে জাতীয় পার্টি ও বিএনপি ক্ষমতায় ছিল। অনেকেই আমাদের দাবি নিয়ে হাসি-তামাশা করলেও বিভিন্ন জেলার মানুষকে এই দাবিতে একত্রিত করার কারণে পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন চাই স্লোগানটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

‘আমরা খুলনা, ফরিদপুর ও ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করি। তখন অনেক সাংবাদিকও বলেন, পদ্মা নদীতে সেতু চান? সেটা তাহলে কোথায় হবে? এমন প্রশ্ন করলে আমি বলি, এটা তো সরকারের পক্ষ থেকে ফিজিবিলিটি যাচাই করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। মাওয়া পয়েন্টেও হতে পারে। এখন সেই মাওয়া পয়েন্ট দিয়েই হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু, সেতু দিয়ে চলবে ট্রেনও।’

এক দিনের কষ্টের ঘটনা বর্ণনা করতে করতে খোকা সিকদার বলেন, ‘একবার লঞ্চে ফরিদপুরে বোনের বাসায় যাচ্ছি। পথে কেবিন থেকে লোকজন বলে উঠল- এই শালার পাগল পদ্মা নদীতে সেতু চায়! তারপর সবাই হো হো করে হেসে ওঠে।’

তিনি বলেন, ‘আরেকবার মাওয়া থেকে নৌকায় বাড়ি যাচ্ছি। উত্তাল পদ্মার বড় বড় ঢেউ দেখে সবাই ভয় পেল। আমিও ভয় পেয়ে গেছি। একটা পর্যায়ে নদীর শান্ত এলাকায় পৌঁছালে অনেকেই টিটকারী করতে শুরু করল। বলল, এই নদীতে নাকি সেতু হবে! অনেক সময় হেঁটে যাওয়ার পথেও লোকজন হাসাহাসি করত এই দাবি নিয়ে। বলত, শালা পাগল হয়ে গেছে।’

ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার বলেন, ‘তাদের এমন উপহাসে আমরা দমে যাইনি। এই সেতুর দাবি নিয়ে শরীয়তপুর, মাদারীপুর, খুলনা, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন জেলার মানুষের সঙ্গে কথা বলি। মতবিনিময়, সভা-সমাবেশে পদ্মা সেতুর দাবির কথা বলতে থাকি।

‘এই সময়ে লিয়াকত নামের একজন খুব হেল্প করেছিলেন। আমি আর ইত্তেফাকের আব্বাস উদ্দিন আনসারী ভাইয়ের নেতৃত্বে পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের ব্যানারে সারা দেশে আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করেছি।’

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

তিনি বলেন, ‘২০০১ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ভিত্তি স্থাপন করেন শেখ হাসিনা। তারপর বিএনপি সরকার এসে সেটা ভেঙে ফেলে। তারপরের ইতিহাস সবাই জানেন। সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে শেখ হাসিনা নিজের টাকা দিয়ে নিজেই পদ্মা সেতু করলেন।’

পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন পরিষদের এই প্রতিষ্ঠাতা বলেন, ‘সব শেষে একটা কথা বলতে চাই, যদি কেউ কোনো কাজ আন্তরিকভাবে করার চেষ্টা করেন, সততার সঙ্গে করার চেষ্টা করেন, সেটা সফল হবেই। আমি যদি এই আন্দোলন করার জন্য কিংবা পোস্টার-ব্যানার তৈরির জন্য চাঁদা তুলতাম, তাহলে হয়তো এই আন্দোলন করা সম্ভব হতো না। নানাজন নানাভাবে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতেন।

‘এখন আমার আর কোনো চাওয়া নেই। একটাই চাওয়া- ২০২২ সালের মধ্যে যেন এই পদ্মা সেতু দিয়ে যেতে পারি-আল্লাহ যেন আমাকে সে পর্যন্ত বাঁচিয়ে রাখেন- সবার কাছে সেই দোয়াই চাই।’

পদ্মা সেতু প্রকল্পটি ২০০৭ সালের আগস্টে অনুমোদন দেয় তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার, ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা। পরে সেতুর অর্থায়ন নিয়ে নানা নাটকীয়তা চলে। শেষে আওয়ামী লীগ সরকার নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরবর্তী সময়ে সেতুর সঙ্গে রেলপথও যুক্ত করা হয়। প্রকল্পটির সর্বশেষ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

‘পদ্মা সেতুর দাবি করায় অনেকে পাগলও বলেছে’

২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মূল সেতু ও নদী শাসন কাজ উদ্বোধন করেন। এর আগে ২০০৯ সালের ১৯ জানুয়ারি শুরু হয় নকশা ও পুনর্বাসন কাজ। গত ৩১ আগস্ট পর্যন্ত প্রকল্পের ৮৭.৭৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন শুধু দৃশ্যমান বাস্তবতাই নয়, যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়ার অপেক্ষাও কেবল স্বল্প সময়ের।

শেয়ার করুন