অস্ট্রেলিয়ায় সেরা শিক্ষক : বাংলাদেশের মোয়াজ্জেম হোসেন

অস্ট্রেলিয়ায় সেরা শিক্ষক : বাংলাদেশের মোয়াজ্জেম হোসেন

শিক্ষার্থীদের প্রত্যক্ষ মূল্যায়নে অস্ট্রেলিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে সেরা শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের তরুণ শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেন।

শিক্ষকতার ধরন এবং কর্মস্থলের উপযোগী পাঠদান পদ্ধতির জন্য তিনি ২০১৬, ২০১৮ ও ২০১৯ সালে মারডক বিজনেস স্কুলের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হয়েছিলেন।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ায় পেয়েছেন পিভিসি অ্যাওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স ইন টিচিং অ্যান্ড লার্নিং ২০২০।

অস্ট্রেলিয়ার মারডক ইউনিভার্সিটির সাসটেইনেবল অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড গভর্ন্যান্সের সহযোগী অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন।

গবেষণায় অবদান রাখার জন্য ২০১৮ সালেও পেয়েছিলেন রিসার্চ এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড। এখন অস্ট্রেলিয়ার সেরা শিক্ষকের খেতাব অর্জন মানেই যেন মোয়াজ্জেম হোসেন।


মোয়াজ্জেম হোসেন ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার পার্থের ও মারডক ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ কমিউনিটির জনপ্রিয় মুখ। মারডক ইউনিভার্সিটির বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের যে কোনো প্রয়োজনে পাওয়া যায় তাকে।

মোয়াজ্জেম হোসেন নিজের পাঠদান পদ্ধতি সম্পর্কে বলেন, 'আমি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে গবেষণাও করেছি। বের করেছি তাদের উপভোগ্য পাঠদান পদ্ধতি।

আমার কোর্সের ছাত্রছাত্রীরা ক্লাস উদযাপন করে। কোর্স শেষে তারা আমার জন্য ফুল নিয়ে আসে।'

এ ছাড়া নিজের শিক্ষক সত্তাকে সবচেয়ে বড় অর্জন মনে করেন মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি বলেন, 'একজন শিক্ষক মানুষের জীবন বদলে দিতে পারেন, বদলে দিতে পারেন পৃথিবী। আমি সেই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করতে পারছি!

আমার ক্লাসে প্রায় ৫৭ জাতিসত্তার শিক্ষার্থী আছে। আমি কাজ করি তাদের নানা দক্ষতার উন্নয়ন নিয়ে। এরা ছড়িয়ে যায় পৃথিবীব্যাপী; বিকশিত করে নিজেদের। আমি যে ওদের জন্য কিছু করতে পারছি, এটাই আমার অর্জন।'

মোয়াজ্জেম হোসেনের বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার রমজানপুর ইউনিয়নের উত্তর চর আইর কান্দি গ্রামে। এই গ্রামেই তার বেড়ে ওঠা।

গ্রামে এসএসসি পাস করে চলে আসেন ঢাকায়। ভর্তি হন ঢাকা কলেজে। এইচএসসি পরীক্ষায় মেধাতালিকায় ১৬তম স্থান অর্জন করেন।

এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং বিভাগ থেকে প্রথম শ্রেণি পেয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়া পাড়ি জমান।

পিএইচডি করেন বিখ্যাত কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ে। মোয়াজ্জেমের বাবা মফিজউদ্দিন সরদার ছিলেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। মা দেলোয়ার বেগম ছিলেন একজন আদর্শ গৃহিণী।

নবম শ্রেণির গণিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার পর বকুনি খান স্কুলশিক্ষক বাবার। জেদ চাপে মনে। শুরু করেন কঠোর অধ্যবসায়।

নিয়মিত অধ্যয়নের পর গণিতে ঢাকা বোর্ডে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্তদের তালিকায় ওঠে মোয়াজ্জেমের নাম।

ড. মোয়াজ্জেম 'কোলাবরেটিভ লার্নিং ইউজিং এডুকেশনাল টেকনোলজিস ইন ব্লেন্ডেড লার্নিং এনভায়রনমেন্ট'-এর একজন অভিজ্ঞ একাডেমিক।

তিনি রিসার্চ স্টুডেন্টদের সুপারভাইজার হিসেবেও জনপ্রিয়। বর্তমানে তার অধীনে দুই ছাত্র পিএইচডি করছেন।

এছাড়া তিনি অস্ট্রেলিয়ার মারডক বিশ্ববিদ্যালয়ের 'সাসটেইনেবিলিটি অ্যাকাউন্টিং ও গভর্ন্যান্স'-এর অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর। তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্কুলের জনপ্রিয় শিক্ষক।

প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে উঠে আসা মোয়াজ্জেম হোসেন নিজেকে নতুন উচ্চতায় তুলে ধরেছেন। তার এই অর্জনে আনন্দের বন্যা বইছে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার পার্থ শহরে।

একই সঙ্গে মারডক বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার সাফল্যে নতুন করে অনুপ্রেরণা পাবে লাল-সবুজের তরুণরা। মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে নিজের যোগ্যতায়।

শেয়ার করুন