× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Start trying to break the barrier of the floor?
hear-news
player
google_news print-icon

ফ্লোরের ‘বাধা’ ভাঙার চেষ্টা শুরু?

ফ্লোরের-বাধা-ভাঙার-চেষ্টা-শুরু?
এদিন দর বেড়েছে ১১৩টি কোম্পানির, কমেছে ৪১টির। অর্থাৎ ফ্লোরের বেশি দরে লেনদেন হয়েছে মোট ১৫৪টির দর। গত আট কর্মদিবসে ফ্লোরের বেশি দরে লেনদেন হওয়া কোম্পানির এই সংখ্যাটি সর্বোচ্চ। এদিন ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয়েছে ২১৬ কোম্পানির। ক্রেতা ছিল না ১৯ কোম্পানির। আগের দিন ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয় ২৩২টি। ক্রেতা ছিল না ৩০টির।

চেক ইস্যুর সমাধানের পর পুঁজিবাজারে সূচক, লেনদেন সবই বৃদ্ধির মধ্যে অস্বস্তি কাটার একটি ইঙ্গিত মিলেছে। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক কোম্পানির শেয়ার এদিনও ফ্লোর প্রাইসে লেনদেন হলেও কিছু কোম্পানি এই বৃত্ত ভেঙে বের হওয়ার চেষ্টা করেছে।

বুধবার দরবৃদ্ধি ও কমেছে এমন কোম্পানির সংখ্যাই কেবল বেশি ছিল না, একটিও শেয়ারও হাতবদল হয়নি, এমন কোম্পানির সংখ্যাও গত আট কর্মদিবসের মধ্যে সবচেয়ে কম ছিল।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে এদিন সার্বিক সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৩৫ পয়েন্ট, লেনদেন বেড়েছে ৫৫৮ কোটি টাকারও বেশি। হাতবদল হয়েছে ১ হাজার ৪৬১ কোটি ৫৭ লাখ ৫৯ হাজার টাকার, যা আগের দিন ছিল ৯০২ কোটি ৮৩ লাখ ১১ হাজার টাকা।

চেক জমা দিয়ে টাকা নগদায়নের আগে শেয়ার কেনা যাবে না বলে গত ১১ অক্টোবর বিএসইসির নির্দেশনা জারির পরেই কেবল নয়, গত ২৩ কর্মদিবসের মধ্যেই এটি সর্বোচ্চ লেনদেন।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর এর চেয়ে বেশি ১ হাজার ৪৮৪ কোটি ৪৫ লাখ ৩০ হাজার টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছিল।

চেক নির্দেশনা যে পাল্টাচ্ছে, সেটি গত রোববারই জানিয়েছিলেন বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম। তবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফের সঙ্গে বৈঠকের সময় নির্ধারিত হওয়ার পর সোমবার আতঙ্কে দরপতন হয়।

আইএমএফ ফ্লোর প্রাইস নিয়ে আপত্তি তোলে কি না, এই আতঙ্কে সেদিন পুঁজিবাজারে সূচক ও লেনদেনের পতন হয়। যদিও সেদিনই বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম নিশ্চিত করেন আলোচ্যসূচিতে ফ্লোর প্রাইস নেই। পরের দিনই আতঙ্ক থামে।

বিএসইসির চেক নির্দেশনা পাল্টে আনুষ্ঠানিক বিজ্ঞপ্তিটি আসে মঙ্গলবার। এর পর সব ধরনের সংশয় বা ‍গুঞ্জনের অবসান ঘটে।

গত ২৮ জুলাই সূচক ছয় হাজার পয়েন্টের নিচে নেমে যাওয়ার পর বিএসইসি করোনাকালের মতোই পতন ঠেকাতে ফ্লোর প্রাইস বেঁধে দেয়। পরদিন থেকে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়িয়ে উত্থানে ফেরার ইঙ্গিত দেয়।

তবে করোনাকালের মতো এবারের উত্থান ভারসাম্য মূল্য ছিল না। বড়জোর ৩০টি কোম্পানির শেয়ারের অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধির কারণে সূচক তরতর করে বাড়তে থাকলেও বেশির ভাগ কোম্পানি ফ্লোর প্রাইসেই গড়াগড়ি খেতে থাকে।

এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা যত বাড়ে, ফ্লোরের কোম্পানির সংখ্যা তত বেশি বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে সংখ্যাটি ছাড়িয়ে যায় পৌনে তিন শ।

এই তালিকায় উঠে আসে বহুজাতিক ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, গ্রামীণফোন, রেকিট বেনকিনজার, স্কয়ার ফার্মা, স্কয়ার টেক্সটাইল, ইউনাইটেড পাওয়ার, ব্র্যাক ব্যাংক, ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক, আইডিএলসি, ডিবিএইচ, পদ্মা-মেঘনা-যমুনা অয়েলের মতো শক্তিশালী মৌল ভিত্তির কোম্পানি। এমনকি বেক্সিমকো লিমিটেডও আগের বছরের চেয়ে দ্বিগুণ আয় করার তথ্য জানিয়ে শেয়ারপ্রতি ৫০ পয়সা লভ্যাংশ কম দেয়ার সিদ্ধান্ত জানানোর পর নেমে আসে ফ্লোর প্রাইসে।

এসব কোম্পানির মধ্যে বেক্সিমকো ও স্কয়ার ফার্মা এই বৃত্ত ভেঙেছে।

আগের দিন ফ্লোরে লেনদেন হওয়া বেক্সিমকো লিমিটেডে কেবল আট কোটি টাকা লেনদেন হয়েছিল। ফ্লোর ছেড়ে বেরিয়ে আসার পর লেনদেন লাফ দিয়ে হয়েছে ১৯৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

ফ্লোরের ‘বাধা’ ভাঙার চেষ্টা শুরু?
বুধবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণার পরও ফ্লোরে পড়ে থাকা স্কয়ার ফার্মাও বের হয়েছে এই বাধা থেকে। শেয়ারদর এক টাকা বাড়লেও এটি স্বস্তিকর এই কারণে যে গত ২১ সেপ্টেম্বর থেকে একটি দরেই হাতবদল হচ্ছিল শেয়ারটি।

এদিন ফ্লোর থেকে বের হয়েছে যেসব কোম্পানির শেয়ার তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিমা খাতের। এই খাতটিতে দারুণ দিন গেছে।

সাধারণ বিমার ৪২টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৩৮টির। আর আগের দিনের দরে লেনদেন হয়েছে চারটি। দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে ছিল এই খাতের চারটি কোম্পানি। জীবনবিমা খাতে নতুন তালিকাভুক্ত একটি কোম্পানিও ছিল।

আগের দিনের মতোই চাঙা ছিল তথ্যপ্রযুক্তি খাতও। এই খাতের ১১টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৯টির। কমেছে একটির আর একটির দর ছিল অপরিবর্তিত।

মিয়া আব্দুর রশিদ সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা শেখ ওহিদুজ্জামান স্বাধীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুই দিন থেকে মার্কেট আপওয়ার্ড ট্রেন্ডে আছে। আমার মনে হয় এর কারণ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বায় করছে।’

তিনি যোগ করেন, ‘চেক নগদায়ন ও আইএমএফ ইস্যু ছিল, কিন্তু সেটা মেজর ইস্যু নয়। আমাদের মার্কেটে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না। ফলে প্রাতিষ্ঠানিকরা শেয়ার না কিনলে ট্রানজেকশন কমে যায়। যেহেতু বেশিরভাগ শেয়ার ফ্লোরে হয়তো তারা চিন্তা করছেন এখন কেনা দরকার, কিনছেন। শেয়ারগুলো ফ্লোর থেকে বের হচ্ছে, যার কারণে সূচক ও ট্রানজেকশন বাড়ছে।’

ফ্লোরের বাইরে কত কোম্পানি

এদিন দর বেড়েছে ১১৩টি কোম্পানির, কমেছে ৪১টির। অর্থাৎ ফ্লোরের বেশি দরে লেনদেন হয়েছে মোট ১৫৪টির দর। ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয়েছে ২১৬ কোম্পানির। ক্রেতা ছিল না ১৯ কোম্পানির।

আগের দিন মঙ্গলবার ১১৬টি কোম্পানির দর বেড়েছিল, কমেছিল ১১টির। অর্থাৎ ফ্লোরের চেয়ে বেশি দরে হাতবদল হয় ১২৭টির। ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয় ২৩২টি। ক্রেতা ছিল না ৩০টির।

বিএসইসির সঙ্গে আইএমএফের বৈঠকের সময় নির্ধারিত হওয়ার পর আগের দিন সোমবার ফ্লোর প্রাইসের বেশি দরে হাতবদল হওয়া কোম্পানির সংখ্যাটি ছিল ১১৫টি। সেদিন দর বাড়ে ২৯টি কোম্পানির, কমে ৮৬টির। সেদিন ক্রেতা ছিল না ৪২টির।

সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস রোববার সার্কিট ব্রেকার তুলে দেয়া-সংক্রান্ত ভুলে দুই ঘণ্টা দেরিতে লেনদেন শুরু হওয়ার পর দর বাড়ে ৪৪টির, কমে ৯১টির। অর্থাৎ ফ্লোরের চেয়ে বেশি দরে হাতবদল হয় ১৩৫টি কোম্পানি। ক্রেতা ছিল না ২৩টির।

গত বৃহস্পতিবার ফ্লোরের বেশি দরে লেনদেন হয়েছে, এমন কোম্পানির সংখ্যা ছিল ১৩২। সেদিন সূচক বাড়ার পাশাপাশি দর বাড়ে ৭৩টি কোম্পানির, হারায় ৫৯টি। সেদিন ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয় ২৩১টির শেয়ার। অর্থাৎ ক্রেতা ছিল না ২৬টি কোম্পানির শেয়ারের।

তার আগের দিন ২৬ অক্টোবর দর বাড়ে ৭১টি কোম্পানির, হারায় ৪৬টি। ফ্লোরের বেশি দরে হাতবদল হয় ১১৭টি কোম্পানির। ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয় ২১৯ কোম্পানির শেয়ার, ক্রেতা ছিল না ৫৩টির।

২৫ অক্টোবরও কোম্পানির সংখ্যা ছিল একই সমান। সেদিন দর বাড়ে ২১টির, কমে ৮৬টির। সেদিন ফ্লোর প্রাইসে হাতবদল হয় ২১৯ কোম্পানির শেয়ার। ক্রেতা ছিল না ৩৫টির।

ফ্লোরে থাকা কোম্পানিগুলোতেও লেনদেন বেশি হয়েছে। আগের দিন ২৩২টি কোম্পানিতে ৫৩ কোটি টাকা লেনদেন হলেও এদিন ২১৬ কোম্পানিতে হাতবদল হয়েছে ৯২ কোটি ৪১ লাখ টাকা।

সূচকে প্রভাব যাদের

সবচেয়ে বেশি ৭ দশমিক ৩৩ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে বেক্সিমকো ফার্মা। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ৫ দশমিক ৬০ শতাংশ।

বসুন্ধরা পেপারের দর ৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ২ দশমিক ৭৬ পয়েন্ট।

ইস্টার্ন হাউজিং সূচকে যোগ করেছে ২ দশমিক ০৬ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে নাভানা ফার্মা, বেক্সিমকো লিমিটেড, জেনেক্স ইনফোসিস, স্কয়ার ফার্মা, এডিএন টেলিকম, কোহিনূর কেমিক্যাল ও জেএমআই হসপিটাল।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২৩ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ৩ দশমিক ৪০ পয়েন্ট সূচক কমেছে বিকন ফার্মার দরপতনে। প্রতিষ্ঠানটির দর কমেছে ২ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শূন্য দশমিক ৯৮ পয়েন্ট কমেছে আইপিডিসি ফাইন্যান্সের কারণে। শেয়ার প্রতি দাম কমেছে ২ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

ইউনিক হোটেলের দর ২ দশমিক ২০ শতাংশ কমার কারণে সূচক কমেছে শূন্য দশমিক ৮৩ পয়েন্ট।

এ ছাড়া জেএমআই সিরিঞ্জেস, সি-পার্ল, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, ডোরিন পাওয়ার, ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং, মীর আকতার ও তমিজউদ্দিন টেক্সটাইলের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক কমিয়েছে ৮ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট।

লেনদেনে সেরা বিবিধ খাত

৬টি খাতে শতকোটির ওপরে লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে একটির লেনদেন তিন শ কোটি ছাড়িয়েছে। সবচেয়ে বেশি দরবৃদ্ধি দেখা গেছে সাধারণ বিমা খাতে। আর বস্ত্র খাত সবেচেয়ে বেশি ৫১টি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

আগের দিন লেনদেনে বড় লাফ দিয়ে শীর্ষে উঠে এসেছিল প্রযুক্তি খাত। বুধবার চারগুণ লেনদেন বেড়ে শীর্ষে উঠে এসেছে বিবিধ খাত, যা আগের দিন তৃতীয় স্থানে ছিল। হাতবদল হয়েছে ৩১৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ৭৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা। তার আগের দিনে লেনদেন হয়েছিল ৮০ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

৪টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৭টির লেনদেন হয়েছে আগের দরে। দরপতন হয়েছে ২টির।

আগের দিন শীর্ষ থাকা প্রযুক্তি খাত দ্বিতীয় স্থানে নেমে এসেছে। লেনদেন হয়েছে ১৮৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা। গত দুই সপ্তাহে থেকে খাতটিতে ভালো লেনদেন হতে দেখা যাচ্ছে। সোমবার ৯৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা লেনদেন করে তৃতীয় স্থানে ছিল, সেখান থেকে মঙ্গলবার ১৫৪ কোটি টাকা লেনদনে করে শীর্ষে ছিল।

৯টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে একটির করে কোম্পানির লেনদেন হয়েছে আগের দরে এবং দর হারিয়ে।

তৃতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ওষুধ ও রসায়ন খাতে। হাতবদল হয়েছে ১৭৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা, যা গতকাল ছিল ১৩৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। ৬টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে ১৬টির লেনদেন হয়েছে আগের দরে। আর দরপতন হয়েছে ১০টির।

শত কোটি টাকার বেশি লেনদেন বেড়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে সাধারণ বিমা খাত। হাতবদল হয়েছে ১৬১ কোটি ৯০ লাখ টাকার, যা আগের দিন ছিল ৪৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

৩৮টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৪টির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

১১৭ কোটি ৮০ লাখ টাকা লেনদেন করে পঞ্চম স্থানে থাকা প্রকৌশল খাতের ১০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি, ২৩টির অপরিবর্তিত ও ৯টির লেনদেন হয়েছে দরপতনে।

এরপরেই কাগজ ও মুদ্রণ খাতে ১০৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ৩টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি, একটির অপরিবর্তিত ও দুটির লেনদনে হয়েছে দর কমে।

সেবা ও আবাসন খাতে লেনদেন হয়েছে ৬৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা, যা আগে দিন ছিল ৪২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা।

খাতটিতে তিনটি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে একটির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

জ্বালানি খাতে ৫৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা ছাড়া বাকি খাতের লেনদেন ছিল ৫০ কোটির নিচে। বাকি খাতের মধ্যে দরবৃদ্ধির হার বেশি ছিল জীবন বিমায়, ১১টি বা ৮৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়ে লেনদেন হয়েছে।

অন্যদিকে ব্যাংকের ২৮টি, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ১৫টি, মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ২৬টির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে।

দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০

শীর্ষ দশের একটির ১০ শতাংশ ও বাকি সবকটি কোম্পানির দর বেড়েছে ৯ শতাংশের বেশি। এ ছাড়াও ২০টির বেশি কোম্পানির দর বেড়েছে দিনের সর্বোচ্চ সীমার কাছাকাছি।

সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ দর বেড়ে দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪২ টাকা ৯০ পয়সায়, যা আগের দিনে লেনদেন হয়েছিল ৩৯ টাকায়।

তালিকার দ্বিতীয় স্থানে ছিল বিডি ওয়েল্ডিং। শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ২৬ টাকা ৫০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ২৪ টাকা ১০ পয়সা।

লুব-রেফ বাংলাদেশের দর ৯ দশমিক ৯৩ শতাংশ বেড়ে শেয়ারটি ৪৩ টাকা ৩০ পয়সা থেকে বেড়ে ৪৭ টাকা ৬০ পয়সা বেচাকেনা হয়েছে।

এ ছাড়া তালিকায় ছিল- নাভানা ফার্মা, জেনেক্স ইনফোসিস, ইস্টার্ন হাউজিং, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও ক্রিস্টাল ইন্স্যুরেন্স।

দরপতনের শীর্ষ ১০

সর্বোচ্চ ৫ দশমিক ১০ শতাংশ কমে জেএমআই সিরিঞ্জেসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৫৮ টাকা ৬০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৩৭৭ টাকা ৯০ পয়সা।

অ্যারামিট ইন্ডাস্ট্রিজের দর ৫ দশমিক ০৬ শতাংশ কমে ৩১৩ টাকা ২০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। যার দর ছিল ৩২৯ টাকা ৯০ পয়সা।

৪ দশমিক ৫০ শতাংশ দর কমে হাক্কানি পাল্পের শেয়ার বেচাকেনা হয়েছে ৭০ টাকায়। আগের দিনের দর ছিল ৭৩ টাকা ৩০ পয়সা।

শীর্ষ দশের মধ্যে ছিল ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং কোম্পানি, অ্যাপেক্স ফুডস, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, ফার্মা এইডস, রংপুর ফাউন্ড্রি, বিডি ল্যাম্পস ও বিকন ফার্মা।

আরও পড়ুন:
মুনাফায় ফিরে লভ্যাংশ বাড়াল ক্রেতাহীন শেফার্ড
লভ্যাংশ কমাল উড়তে থাকা বসুন্ধরা পেপার
মতিন স্পিনিংয়ের দুর্দান্ত বছর, সর্বোচ্চ লভ্যাংশ
আয়-লভ্যাংশে স্কয়ার টেক্সটাইলের চমক
স্কয়ার ফার্মার ইতিহাসে সর্বোচ্চ নগদ লভ্যাংশ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Demand for tax exemption on capital market dividends

পুঁজিবাজারের লভ্যাংশে করমুক্তির দাবি

পুঁজিবাজারের লভ্যাংশে করমুক্তির দাবি
এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে মঙ্গলবার পাঠানো চিঠিতে সই করেন সংগঠনটির সভাপতি ছায়েদুর রহমান এবং সেক্রেটারি জেনারেল রিয়াদ মতিন। পুঁজিবাজারকে গতিশীল করে সার্বিক অর্থনীতিতে অবদান বাড়ানোর লক্ষ্যে ৯টি বিষয় বিবেচনার প্রস্তাব দেয়া হয় এতে।

দেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়নের স্বার্থে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাছে লভ্যাংশ কর প্রত্যাহারসহ বেশ কিছু নীতি সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)।

এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে মঙ্গলবার পাঠানো চিঠিতে সই করেন সংগঠনটির সভাপতি ছায়েদুর রহমান এবং সেক্রেটারি জেনারেল রিয়াদ মতিন।

পুঁজিবাজারকে গতিশীল করে সার্বিক অর্থনীতিতে অবদান বাড়ানোর লক্ষ্যে ৯টি বিষয় বিবেচনার প্রস্তাব দেয়া হয়। এগুলো হলো-

১. লভ্যাংশের ওপর থেকে কর প্রত্যাহার করতে হবে। এর কারণ হিসেবে বিএমবিএর চিঠিতে বলা হয়, একটি প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানি করপোরেট কর পরিশোধের পর লভ্যাংশ প্রদান করে। সেই লভ্যাংশ থেকে আবার উচ্চহারে কর কর্তন দ্বৈত করের সামিল। তাই বিনিয়োগকারীদের মধ্যে লভ্যাংশ গ্রহণের প্রতি অনীহা। দীর্ঘ মেয়াদী বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য লভ্যাংশের কর প্রত্যাহার করা জরুরি।

২. তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির করপোরেট করহারের পার্থক্য বাড়াতে হবে। বিএমবিএর চিঠিতে বলা হয়, কর কমাতে বলছি না, কেবল তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির করের হারের ব্যবধান বাড়ানোর জন্য প্রস্তাব করছি।

তাহলে বৃহৎ বা ভালো প্রতিষ্ঠানসমূহ তালিকাভুক্তিতে আগ্রহী হবে এবং বাজারের আকৃতি ও গভীরতা বৃদ্ধি পাবে। এতে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড আরও গতিশীল হবে। বর্তমানে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হারের ব্যবধান উদ্যোক্তাদের তালিকাভুক্তির জন্য উৎসাহিত করতে পারছে না।

৩. বন্ড বাজারকে গতিশীল করা বা বিনিয়োগে উৎসাহিত করার জন্য কর কাঠামোতে পরিবর্তন আনতে হবে।

চিঠিতে বলা হয়, বন্ড থেকে প্রাপ্ত আয়ের ওপর স্পেশাল রেটে (৫ শতাংশ) কর আরোপ করা যেতে পারে, তাহলে বন্ডে বিনিয়োগে আগ্রহী হবেন বিনিয়োগকারীরা।

৪. লেনদেনের (ট্রেডিং) ওপর করহার কমিয়ে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ থেকে শূন্য দশমিক শূন্য এক পাঁচ শতাংশ নির্ধারণ করতে হবে। এতে বাজারে লেনদেনের পাশাপাশি সরকারের করের পরিমাণ বাড়বে।

৫. তালিকাভুক্ত কোম্পানির আয়কর নিষ্পত্তি সহজীকরণ করতে হবে।

৬. মিউচ্যুয়াল ফান্ডকে জনপ্রিয় করার লক্ষ্যে পলিসি প্রয়োজন এবং এর লভ্যাংশ করমুক্ত হতে হবে।

৭. ভালো/বৃহৎ/প্রতিষ্ঠান/এমএনসি/সরকারি লাভজনক প্রতিষ্ঠানগুলোকে তালিকাভুক্তির জন্য পলিসি করতে হবে।

চিঠিতে বলা হয়, ব্যবসার আকার বা ঋণ ও পুঁজির আকারের ভিত্তিতে তালিকাভুক্তির পলিসি করা প্রয়োজন। যত বেশি তালিকাভুক্ত কোম্পানি হবে সরকার তত বেশি কর পাবে।

৮. তালিকাভুক্ত কোম্পানির ভ্যাট হার ৫ শতাংশ কমানো যেতে পারে। এতে বৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলো তালিকাভুক্তির জন্য উৎসাহিত হবে।

৯. ট্রেডিং গেইন এবং ক্যাপিটাল গেইন একই সংজ্ঞায় সংজ্ঞায়িত না করে আলাদা কর কাঠামোয় আনতে হবে।

সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের দাবির যৌক্তিকতা উল্লেখ করে বিএমবিএর চিঠিতে বলা হয়, দেশের অর্থনীতিতে জিডিপির তুলনায় বাজার মূলধন অনুপাত অত্যন্ত নগণ্য (১৭ শতাংশ)। ১৭ থেকে ১৮ কোটি জনসংখ্যার দেশে কর্মসংস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

কর্মসংস্থান তৈরির জন্য শিল্পায়ন, ব্যবসা-বাণিজ্য তথা অর্থনৈতিক কর্মকান্ড বৃদ্ধি করা অত্যন্ত জরুরি। এ লক্ষ্যে অর্থের যোগান বাড়ানো গুরুত্বপূর্ণ। অব্যবহৃত ছোট ছোট সঞ্চয়সমূহকে উৎপাদনমুখী করার একমাত্র মাধ্যম হলো গতিশীল পুঁজিবাজার। পুঁজিবাজার গতিশীল না থাকলে এ ধরনের উদ্যোগ কার্যকর হয় না।

আরও পড়ুন:
৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড
জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল: সারাবিশ্বে বিডের যোগ্যতা অর্জন রেনাটার
‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
6 proposals of BMBA to central bank for capital market development

পুঁজিবাজার উন্নয়নে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বিএমবিএ’র ৬ প্রস্তাব

পুঁজিবাজার উন্নয়নে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বিএমবিএ’র ৬ প্রস্তাব
গভর্নরকে দেয়া চিঠিতে ২০১১ সাল থেকে পুঁজিবাজারে নানা প্রতিকূলতার উল্লেখ করে বিএমবিএ বলেছে, ‘এ বিষয়ে কোনো কোনো সময় আংশিক বা খণ্ডিত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তাতে সাময়িক কিছুটা ইতিবাচক অবস্থা দেখা গেলেও কয়েকদিনের মধ্যেই আবার ধারাবাহিক নিম্ন ধারায় চলে যায় এবং হতাশার তৈরি হয়।’

দেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার স্বার্থে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)। এ লক্ষ্যে এক চিঠিতে ৬টি প্রস্তাব সুপারিশ করেছে সংগঠনটি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছে মঙ্গলবার পাঠানো ওই চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন বিএমবিএ সভাপতি ছায়েদুর রহমান ও সেক্রেটারি জেনারেল রিয়াদ মতিন।

চিঠিতে ৬টি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। সেগুলো সমাধান করা হলে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নতুন মাত্রা পেতে পারে বলে মনে করেন বিএমবিএ নেতারা।

সুপারিশগুলো হলো-

১. সব ধরনের বন্ড ও ডিবেঞ্চার পুঁজিবাজার এক্সপোজারের বাইরে রাখা।

২. মিউচুয়াল ফান্ডকে জনপ্রিয় করার লক্ষ্যে পুঁজিবাজার এক্সপোজারের বাইরে রাখা।

৩. পুঁজিবাজার বিনিয়োগে নিজ সাবসিডিয়ারিকে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে সিঙ্গেল বোরোয়ার এক্সপোজার রিল্যাক্স করা।

৪. পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিলে ২ শতাংশ সাধারণ সঞ্চিতি রাখতে হয়। অথচ অন্য সব ঋণের ক্ষেত্রে সেটি ১ শতাংশ। তাই ব্যাংকগুলো পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে নিরুৎসাহিত হয় বা কোনো কোনো ক্ষেত্রে সুদের হার বেশি ধরা হয়। এ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে অন্যান্য ঋণের মতো সাধারণ সঞ্চিতি ১ শতাংশ ধরা হলে বাজারে অর্থের যোগান বাড়তে সাহায্য করবে।

৫. সমন্বিত পুঁজিবাজার এক্সপোজার হিসাব রিপোর্টিং স্থগিত করা প্রয়োজন। পুঁজিবাজারের আকার বৃদ্ধিতে এটি প্রতিবন্ধকতা।

৬. ভালো প্রতিষ্ঠান বা যারা ভালো ব্যবসা করেন তারা সহজে যে কোনো পরিমাণ ঋণ পায়। তারা জামানত দিয়ে সহজেই ঋণ পেয়ে যায় বলে পুঁজিবাজার থেকে পুঁজি সংগ্রহ করে না। বড় বা ভালো মানের প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্ত না হলে পুঁজিবাজারের গভীরতা বাড়বে না। তাই ওইসব প্রতিষ্ঠানের ঋণ, মূলধন বা ব্যবসার আকৃতির ওপর তালিকাভুক্তির একটি কাঠামো নির্ধারণ করা যেতে পারে।

বিএমবিএ মনে করে, বৃহৎ বা ভালো প্রতিষ্ঠানগুলোকে অর্থায়নের ক্ষেত্রে পুঁজিবাজারের সঙ্গে সম্পৃক্ত করা গেলে পুঁজিবাজার ও বিনিয়োগকারীরা লাভবান হবে। সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। কর্মসংস্থান বৃদ্ধির পাশাপাশি সার্বিক অর্থনীতিতেও ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

২০১১ সাল থেকে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে নানা প্রতিকূলতার উল্লেখ করে সংগঠনটির চিঠিতে বলা হয়, ‘এ বিষয়ে কোনো কোনো সময় আংশিক বা খণ্ডিত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তাতে সাময়িক কিছুটা ইতিবাচক অবস্থা দেখা গেলেও কয়েকদিনের মধ্যেই আবার ধারাবাহিক নিম্ন ধারায় চলে যায় এবং হতাশার তৈরি হয়।

গর্ভনর হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আব্দুর রউফ দ্রুতগতিতে কিছু পুরনো সমস্যার সমাধান করেছেন, যা পুঁজিবাজার ও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আশার সঞ্চার করেছে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল: বিএসইসি চেয়ারম্যান
খাদের কিনারে পুঁজিবাজার
পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই
ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের
৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The future of Bangladeshs capital market is bright BSEC Chairman

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল: বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল: বিএসইসি চেয়ারম্যান বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম। ফাইল ছবি
বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে রিটার্ন অন্যান্য পুঁজিবাজারের তুলনায় অনেক ভালো। গত এক যুগে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে ফান্ড রেইজিং ও ক্যাপিটালাইজেশন হয়েছে অভাবনীয়। আমাদের পুঁজিবাজারের অশেষ সম্ভাবনা ও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে এই উন্নয়নের অংশীদার হন।’

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল উল্লেখ করে বিদেশিদের বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম।

বাংলাদেশ ও জাপানের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে হাইব্রিড ফর্মে আয়োজিত ‘ইনভেস্টমেন্ট ফ্লাশ মব’ শিরোনামে অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএসইসি ও বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন সংস্থা (বিডা) যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

জাপানের টোকিওতে এএনএ ইন্টারন্যাশনাল হোটেলে মঙ্গলবার এ আয়োজনে দুই দেশের বিনিয়োগকারী, শিল্পতি, ব্যবসায়ী ও গণমাধ্যমকর্মীরা অংশ নেন।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে রিটার্ন অন্যান্য পুঁজিবাজারের তুলনায় অনেক ভালো। গত এক যুগে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে ফান্ড রেইজিং ও ক্যাপিটালাইজেশন হয়েছে অভাবনীয়। আমাদের পুঁজিবাজারের অশেষ সম্ভাবনা ও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে। বাংলাদেশ বিনিয়োগ করে এই উন্নয়নের অংশীদার হন।’

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা শক্তিশালী উল্লেখ করে অধ্যাপক শিবলী বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি অনেক ভালো অবস্থানে রয়েছে। জিডিপি এবং মাথাপিছু আয়ও বৃদ্ধি পাচ্ছে। রেমিট্যান্সের পরিমাণ বাড়ছে। অনেক দেশের তুলনায় এখানে মূল্যস্ফীতি অনেক কম।’

দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ইতিহাস তুলে ধরে জাপানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শিবলী রুবাইয়াত। বলেন, ‘বাংলাদেশ ও জাপানের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। জাপানে রপ্তানির পরিমাণও বাড়ছে। বিনিয়োগ ছাড়াও বাংলাদেশের উন্নয়নে জাইকা অসামান্য অবদান রেখেছে।’

এ ছাড়াও তিনি ‘ফিফটি ইয়ারস অব বাংলাদেশ: দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার’ শিরোনামে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল: বিএসইসি চেয়ারম্যান

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত ও শিল্পবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমেদ ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাসুদ বিন মোমেন।

এ ছাড়া বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া এবং বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ বিদেশি বিনিয়োগ আহ্বানের লক্ষ্যে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ২০২১ ও ২০২২ সালে দুবাই, নিউইয়র্ক, ওয়াশিংটন, লস অ্যাঞ্জেলেস, সান্তাক্লারা, জুরিখ, জেনেভা, লন্ডন, ম্যানচেস্টার এবং আবুধাবিতে বিনিয়োগ সম্মেলন করেছে।

আরও পড়ুন:
‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Capital market at the edge of the abyss

খাদের কিনারে পুঁজিবাজার

খাদের কিনারে পুঁজিবাজার ফাইল ছবি
গত আট কর্মদিবসের মধ্যে চার দিনই লেনদেন হলো ৩০০ কোটি টাকার ঘরে। বাকি চার দিনের মধ্যে তিন দিন ৪০০ কোটি ও এক দিন ৫০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে।

পতনের উপক্রম হয়েও শেষ পর্যন্ত সূচকে ১৪ পয়েন্ট যোগ হলেও খাদের কিনারে দাঁড়িয়েছে পুঁজিবাজার। তিন সপ্তাহ ধরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বা ডিএসইতে লেনদেন কমে দেড় বছরের সর্বনিম্ন অবস্থানে চলে এসেছে।

গত আট কর্মদিবসের মধ্যে চার দিনই লেনদেন হলো ৩০০ কোটি টাকার ঘরে। বাকি চার দিনের মধ্যে তিন দিন ৪০০ কোটি ও এক দিন ৫০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে।

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে লক্ষ্যে আগের দিন সোমবার ডিএসই ও ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে বৈঠক হয়। সেখান সিদ্ধান্ত হয়, বাজারের উন্নয়নে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও সরকারের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

ওইদিন ডিএসই থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ খবর জানানোর পরেও তা বিনিয়োগকারীদের আশাবাদী করতে পারেনি।

মঙ্গলবার হাতবদল হয়েছে ৩৩৪ কোটি ৩ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। এর চেয়ে কম লেনদেন হয়েছে গত বৃহস্পতিবার। সেদিন হাতবদল হয়েছিল ৩২৩ কোটি ৮০ লাখ ২৮ হাজার টাকা, যা গত দেড় বছরে সর্বনিম্ন।

এর চেয়ে কম লেনদেন হয় ২০২১ সালের ৪ এপ্রিল। এর পরদিন থেকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে চলাচলে বিধিনিষেধ বা লকডাউনের ঘোষণা ছিল।

ওইদিন হাতবদল হয়েছিল ২৩৬ কোটি ৬০ লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার। তবে লকডাউনেও লেনদেন চলবে, এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার পরদিন থেকেই ঘুরে দাঁড়ায় বাজার।

এরপর ৩০০ কোটি টাকার ঘরে লেনদেন হয়েছে হাতে গোনা কয়েকদিন। কিন্তু বৃহস্পতিবার ও মঙ্গলবারের চেয়ে কম লেনদেন সেবারও হয়নি।

এমনকি গত ২৪ অক্টোবর কারিগরি ত্রুটিতে কয়েক ঘণ্টা লেনদেন বন্ধ থাকার দিনও মঙ্গলবারের চেয়ে বেশি ছিল লেনদেন। সেদিন হাতবদল হয় ৩৩৪ কোটি ৭৬ লাখ ৭৩ হাজার টাকা।

পুঁজিবাজারে উত্থানের এক পর্যায়ে লেনদেন ছাড়িয়ে যায় ৩ হাজার কোটি টাকার ঘর। তবে গত বছরের সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে যে দর সংশোধন শুরু হয়, তা আর শেষ হওয়ার নাম নেই।

পুঁজিবাজারে এখনকার আতঙ্কের কারণ বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কার মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক চাপ। এখন সব শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য বেঁধে দেয়া আছে, এ কারণে প্রায় আড়াইশর মতো কোম্পানির শেয়ারের দর কমছে না। কিন্তু এই সর্বনিম্ন দরে ক্রেতাও নেই।

দরপতনের তুলনায় দরবৃদ্ধি চার গুণের বেশি হলেও ফ্লোর প্রাইসে পড়ে রয়েছে দুই শতাধিক কোম্পানি।

যে ৩৭০টি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে, তার মধ্যে দরপতন হয়েছে ১৪টির, বিপরীতে দরবৃদ্ধি হয়েছে ৬৩টির। আর আগের দরে লেনদেন হয়েছে ২৪০টি কোম্পানির, যার দুই-একটি বাদে প্রায় সবই ফ্লোর প্রাইসে গড়াগড়ি খাচ্ছে।

দরবৃদ্ধির সংখ্যা বেশি হওয়ায় ডিএসইর সূচক বেড়েছে, যদিও দিনের শুরুর দিকে পতনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল। বেলা ১১টা ৪৮ মিনিটেও আগের দিনের চেয়ে ২০ পয়েন্ট কমে গিয়েছিল সূচক। সেখান থেকে ধারাবাহিকভাবে দর বেড়ে দিন শেষে ১৪ পয়েন্ট যোগ হয়ে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স অবস্থান ৬ হাজার ২১২ পয়েন্টে।

সূচক বাড়লেও মঙ্গলবার ৭৩টি কোম্পানির একটি শেয়ারও হাতবদল হয়নি। বিপুল সংখ্যক বিক্রয়াদেশের বিপরীতে নগণ্য ক্রেতা ছিল দেড় শতাধিক কোম্পানির। এমন ১৫০টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে এক হাজারের নিচে।

১ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে মাত্র ৪৯টি শেয়ারের। এই লেনদেনের পরিমাণ ২৩৮ কোটি ১ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। বাকি ২৬৮টি কোম্পানিতেও ১০০ কোটি টাকা লেনদেন করতে পারেনি। হাতবদল হয়েছে মাত্র ৯৬ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা।

লেনদেনর বিষয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ফান্ড ইউজ করছেন না বিনিয়োগকারীরা। যারা শেয়ার বিক্রি করে ক্যাশ করতে পেরেছিলেন, তারা সবাই সাইডলাইনে রয়েছেন, বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন। আর যারা ক্যাশ করতে পারেননি, ফ্লোর প্রাইসে বা লোকসানের কারণে আটকে আছেন।

‘বিনিয়োগে না যাওয়ার পেছনে একটি আশঙ্কা কাজ করছে, তা হলো- বর্তমান অবস্থা থেকে বাজার যদি ঊর্ধ্বমুখী না হয়, আর নীতিনির্ধারকরা যদি ফ্লোর প্রাইস তুলে দেন, তাহলে পতনের আশঙ্কা করছেন বিনিয়োগকারীরা। ফলে তারা নিষ্ক্রিয় থাকছেন।’

সূচকে প্রভাব যাদের

সবচেয়ে বেশি ৮ দশমিক ২৩ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে বিকন ফার্মা। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ৫ দশমিক ২৬ শতাংশ।

বেক্সিমকো ফার্মার দর ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ২ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট।

সি-পার্ল সূচকে যোগ করেছে ২ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ, ওরিয়ন ফার্মা, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, ইস্টার্ন হাউজিং, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২০ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ৬ দশমিক ১০ পয়েন্ট সূচক কমিয়েছে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানির দর কমেছে ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

ওরিয়ন ইনফিউশনের ৭ দশমিক ৫০ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ২ দশমিক ১৩ পয়েন্ট।

সোনালী পেপারের কারণে সূচক হারিয়েছে ১ দশমিক ৬১ পয়েন্ট। এদিন কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে ২ দশমিক ৯০ শতাংশ।

এ ছাড়াও নাভানা ফার্মা, ইসলামী ব্যাংক, বসুন্ধরা পেপার, কোহিনূর কেমিক্যাল, যমুনা অয়েল, সিনোবাংলা ও প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক কমিয়েছে ১৪ দশমিক ২৬ পয়েন্ট।

দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০

সবচেয়ে বেশি ৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ দর বেড়ে অ্যাডভেন্ট ফার্মার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৬ টাকা ১০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ২৩ টাকা ৮০ পয়সায়।

এরপরেই ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ বেড়ে জুট স্পিনার্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৩১ টাকা ২০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ২১২ টাকা ৬০ পয়সা।

তালিকার তৃতীয় স্থানে ছিল মেট্রো স্পিনিং। ৬ দশমিক ২৬ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ৪৫ টাকা ৬০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ৪৩ টাকা ১০ পয়সা।

এ ছাড়া রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিকন ফার্মা ও সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ৫ শতাংশের ওপরে। আর ইস্টার্ন হাউজিং, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিডি ওয়েল্ডিং ও সি-পার্লের দর বেড়েছে ৪ শতাংশের বেশি।

দরপতনের শীর্ষ ১০

সবচেয়ে বেশি ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ দর কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের। প্রতিটি শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫২৪ টাকা ৪০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ৫৬৬ টাকা ৯০ পয়সা।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭ দশমিক ৩০ শতাংশ দর কমে সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৬২ টাকা ২০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ৬৭ টাকা ১০ পয়সা।

এরপরই দর কমেছে নাভানা ফার্মার। ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ কমে শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে ৯০ টাকা ৬০ পয়সায়। যা আগের দিন ছিল ৯৬ টাকা ২০ পয়সা।

এ ছাড়া তালিকায় পরের স্থানে ছিল সোনালী পেপার, বসুন্ধরা পেপার, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, কোহিনূর কেমিক্যাল, স্কয়ার ফার্মা, ইসলামী ব্যাংক ও যমুনা অয়েল।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই
ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের
৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
DSE will sit with BSEC to restore momentum in the capital market

পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই

পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে বিএসইসির সঙ্গে বসবে ডিএসই পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার জরুরি বৈঠক করে ডিএসই ও ডিবিএ। ছবি: নিউজবাংলা
ডিএসই ও ডিবিএ’র বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, পুঁজিবাজারের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে তারা কয়েকদিনের মধ্যেই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে বসবে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পুঁজিবাজার উন্নয়নের বিভিন্ন পলিসি নিয়ে সরকারের নীতি-নির্ধারণী মহলের সঙ্গে আলোচনারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার জরুরি বৈঠক করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (ডিবিএ)।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, কয়েকদিনের মধ্যে ডিএসই ও ডিবিএ বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে বসবে।

ডিএসই এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার ডিএসই ও ডিবিএ প্রতিনিধিদের জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ডিএসই চেয়ারম্যান মো. ইউনুসুর রহমান, পরিচালক মো. শাকিল রিজভী, মোহাম্মদ শাহজাহান, শরীফ আনোয়ার হোসেন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) এম. সাইফুর রহমান মজুমদার এবং ডিবিএ’র পক্ষে প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি রোজারিও, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সাজেদুল ইসলাম ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সাইফুদ্দিন এবং সদস্য এম. রাজিব আহসান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে পুঁজিবাজারের চলমান পরিস্থিতি গুরুত্বসহকারে আলোচনা করা হয় এবং সিদ্ধান্ত হয় যে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ডিএসই ও ডিবিএ’র প্রতিনিধিবৃন্দ বিএসইসির সঙ্গে বাজারের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করবেন।

বর্তমান দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পুঁজিবাজার উন্নয়নের বিভিন্ন পলিসি নিয়ে সরকারের নীতি-নির্ধারণী মহলের সঙ্গে আলোচনারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
BPML Orion Infusions prices drop at breakneck speed

ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের

ঝড়ের গতিতে দর কমছে বিপিএমএল-ওরিয়ন ইনফিউশনদের প্রতীকী ছবি
সোমবার প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় দ্বিগুণ ৩৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৬ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে। সূচকের অবস্থান এর চেয়ে কম ছিল পাঁচ কর্মদিবস আগে ২১ নভেম্বর। সেদিন ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ১৯০ পয়েন্টে।

আগের দিন সূচক ১৭ পয়েন্ট ও লেনদেন সামান্য বাড়লেও হতাশা কাটাতে না পারা পুঁজিবাজারে এক দিন পরই দ্বিগুণ পতন হলো।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সোমবার দরপতনের কারণ ফ্লোর প্রাইস কার্যকরের পর উড়তে থাকা কোম্পানিগুলো দরপতন। কারণ ওই সব কোম্পানির দর কমছে ঝড়ের গতিতে।

প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় দ্বিগুণ ৩৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৬ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে। সূচকের অবস্থান এর চেয়ে কম ছিল পাঁচ কর্মদিবস আগে ২১ নভেম্বর। সেদিন ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ১৯০ পয়েন্টে।

সূচক পতনে ভূমিকা রেখেছে লাফিয়ে দর বাড়া বিকন ফার্মা, বসুন্ধরা পেপার, ওরিয়ন ইনফিউশন, ওরিয়ন ফার্মা ও ইস্টার্ন হাউজিংয়ের মতো কোম্পানিগুলো। গত ৩১ জুলাই ফ্লোর প্রাইস আরোপের পর ৩০টি শেয়ারের দরবৃদ্ধির ওপর ভর করে পুঁজিবাজারে যে উত্থান দেখা দেয়, ওই দরবৃদ্ধির তালিকায় রয়েছে এসব কোম্পানির শেয়ার।

সেই উত্থানে সামগ্রিক পুঁজিবাজার লাভবান না হলেও বর্তমানে সেসব শেয়ারের দরপতনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে শেয়ারবাজারে।

আজ ওরিয়ন গ্রুপের বিকন ফার্মার দর ৫ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ৭ দশমিক ৩৮ শতাংশ। বসুন্ধরা পেপার কমিয়েছে ৩ দশমিক ২৯ শতাংশ। বহুল আলোচিত ওরিয়ন ইনফিউশন ও ওরিয়ন ফার্মা যথাক্রমে ২ দশমিক ০৩ ও ২ দশমিক ২৯ পয়েন্ট করে সূচক কমিয়েছে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, জেনেক্স ইনফোসিস, সামিট পোর্ট অ্যালায়েন্স, ইস্টার্ন হাউজিং, লাফার্জ হোলসিম, জেএমআই হসপিটালের দরপতনে সূচক কমেছে। এ ১০টি কোম্পানি ২৫ দশমিক ১৯ পয়েন্ট সূচক কমিয়েছে।

ডিএসইতে শেয়ার হাতবদল হয়নি ১০১টি কোম্পানির। এর মধ্যে রেকর্ড ডেটের কারণে ১১টি কোম্পানির লেনদেন বন্ধ ছিল।

বাকি যে ২৮৯টি কোম্পানির লেনদেন হয়, তার মধ্যে ২০৬টির শেয়ার হাতবদল হয় সর্বনিম্ন মূল্যস্তর বা ফ্লোর প্রাইসে। আর দরবৃদ্ধির তুলনায় দরপতনের সংখ্যা সাত গুণের বেশি। এদিন ১০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে দরপতন হয় ৭৩টির।

আগের দিনের মতো আজও লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। দিনভর হাতবদল হয়েছে ৪১৬ কোটি ৭৫ লাখ ২৫ হাজার টাকার, যা আগের দিনের তুলনায় ৭৭ কোটি ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা বেশি। রোববার লেনদেন হয়েছিল ৩৩৯ কোটি ৭৩ লাখ ৭০ হাজার টাকার।

১১৪টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ১ থেকে ১ হাজারের মধ্যে। কোটি টাকার বেশি শেয়ার লেনদেনে হয়েছে মাত্র ৫১টি কোম্পানির। এ লেনদেনের পরিমাণ ২৮৮ কোটি ২১ লাখ ৩ হাজার টাকার। বাকি ২৩৮টি কোম্পানিতে লেনদেন হয় ১২৮ কোটি ৫৪ লাখ ২২ হাজার টাকার।

যেভাবে কমছে দর

তুমুল আলোচিত ওরিয়ন ইনফিউশনের দর কমছে ধারাবাহিকভাবেই। ২৮ জুলাইয়ে ১০৪ টাকা ৭০ পয়সা লেনদেন হওয়া শেয়ারটি ফ্লোর প্রাইস কার্যকরের পর উড়তে শুরু করে। ২৭ অক্টোবর এর দর সর্বোচ্চ ৯৭৩ টাকা ৯০ পয়সায় ঠেকে। মাঝেমধ্যে বাড়লেও ক্রমাগত দর হারাচ্ছে কোম্পানিটি। ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ দর কমে সোমবার শেয়ারটি হাতবদল হয় ৫৬৬ টাকা ৯০ পয়সায়।

জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে ৭৮ টাকায় লেনদেন হওয়া গ্রুপের আরেক কোম্পানি ওরিয়ন ফার্মার দর সেপ্টেম্বরে ১৪৯ টাকায় ঠেকে। সোমবার ৫ দশমিক ১২ শতাংশ কমে শেয়ার হাতবদল হয় ৮৩ টাকা ৪০ পয়সায়।

ওই গ্রুপেরই বিকন ফার্মার দর কমে ৫ দশমিক ০৬ শতাংশ। জুলাইয়ে এ কোম্পানির দর ছিল ২৪০ টাকার মতো। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহেই তা ৩৮০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। সোমবার সেটি হাতবদল হয় ২৭৫ টাকা ৮০ পয়সায়।

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহেও বসুন্ধরা পেপারের লেনদেন হয়েছিল ৭০ টাকার নিচে। ১৫ দিনের ব্যবধানে শেয়ারটির দর গিয়ে দাঁড়িয়েছিল ১২১ টাকার ওপরে। এরপর মাঝে মাঝে বাড়লেও প্রায় প্রতিদিনই দর কমছে।

সোমবার ১০ শতাংশ কমে শেয়ারটি হাতবদল হয় ৭৮ টাকা ৩০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৮৭ টাকা।

দর দ্বিগুণ বেড়ে ১১৬ টাকায় উঠেছিল জেনেক্স ইনফোসিসের শেয়ারদর। এরপরই উল্টো পথে ছুটতে দেখা গেছে শেয়ারটি। আজ ৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ কমে শেয়ার লেনদেন হয় ৯০ টাকা ৪০ পয়সা।

সামিট পোর্ট অ্যালায়েন্সের দর উঠেছিল ৩৮ টাকা ২০ পয়সায়, যা ৯ দশমিক ৭০ শতাংশ কমে লেনদেন হয় ৩০ টাকায়।

সেপ্টেম্বরে ৭৬ টাকায় লেনদেন হওয়া ইস্টার্ন হাউজিং অক্টোবরে ১৪০ টাকায় গিয়ে ঠেকে। সেখান থেকে কমতে কমতে আজ হাতবদল হয় ৭৬ টাকা ৮০ পয়সায়। দর কমেছে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

একই সময়ে বিডি কমের দর ৩২ টাকা ৭৫ টাকায় ঠেকেছিল। বর্তমানে দর দাঁড়িয়েছে ৩৪ টাকা ৪০ পয়সা। দর কমেছে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

লেনদেনের বিষয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ করকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাজারের বর্তমান অবস্থায় ফান্ড অ্যাক্টিভ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। যারা শেয়ার বিক্রি করে ক্যাশ করতে পেরেছিলেন, তারা সবাই সাইডলাইনে রয়েছেন, বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন। আর যারা ক্যাশ করতে পারেননি, ফ্লোর প্রাইসে বা লোকসানের কারণে আটকে আছেন তাদের থেকে অ্যাক্টিভিটি আসা করা যায় না।’

সূচক বাড়ানোর চেষ্টায় যারা

সবচেয়ে বেশি ১ দশমিক ১৪ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে সোনালী পেপার। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ২ দশমিক ৩৮ শতাংশ। বেক্সিমকো সুকুকের দর শূন্য দশমিক ৫৭ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে শূন্য দশমিক ৬৫ পয়েন্ট। পূবালী ব্যাংক সূচকে যোগ করেছে শূন্য দশমিক ৪৫ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে যমুনা অয়েল, পেপার প্রসেসিং, মুন্নু অ্যাগ্রো, কে অ্যান্ড কিউ, জুট স্পিনার্স, সোনালী আঁশ ও বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স। সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২ দশমিক ৯২ পয়েন্ট।

দরবৃদ্ধির যেমন

যে ১০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি হয়েছে তার মধ্যে সর্বোচ্চ ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ দর বেড়ে জুট স্পিনার্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২১২ টাকা ৬০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ১৯৭ টাকা ৮০ পয়সায়।

এরপরই ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ বেড়ে মুন্নু অ্যাগ্রোর শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫৯৯ টাকা ৮০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ৫৭৯ টাকা। তালিকার তৃতীয় স্থানে ছিল পেপার প্রসেসিং। ৩ দশমিক ১৮ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ১৯৭ টাকা ৭০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ১৯১ টাকা ৬০ পয়সা।

এর পর কে অ্যান্ড কিউ এবং সোনালী পেপারের দর বেড়েছে ২ শতাংশের বেশি। এর বাইরে সোনালী আঁশ, পূবালী ব্যাংক, যমুনা অয়েল, বেঙ্গল উইন্ডসর ও বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ১ শতাংশের কম।

আরও পড়ুন:
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি
ফেসবুকে পুঁজিবাজার নিয়ে ভীতি ছড়িয়ে মামলার আসামি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
55 companies are getting ICMAB Best Corporate Award

৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড

৫৫ কোম্পানি পাচ্ছে আইসিএমএবি বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড বিজয়নগরে ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের কার্যালয়ে সোমবার মিট দ্য প্রেসে আয়োজকরা। ছবি: নিউজবাংলা।
করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর বার্ষিক প্রতিবেদন ও নিরীক্ষিত হিসাবসহ সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সামাজিক দায়দায়িত্ব প্রতিপালনের বিষয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করে প্রতিবছর বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে ইনস্টিটিউট এই পুরস্কার দিয়ে আসছে।

পাবলিক ও প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিগুলোর ২০২১ সালের গভর্ন্যান্স, ট্রান্সপারেন্সি ও পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেবে ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি)।

আগামী ১ ডিসেম্বর রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে এক আয়োজনের মাধ্যমে এই পুরস্কার দেয়া হবে।

বিজয়নগরে পুঁজিবাজার নিয়ে কাজ করা সাংবাদিকদের সংগঠন ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের (সিএমজেএফ) কার্যালয়ে সোমবার মিট দ্য প্রেসে এই তথ্য জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আইসিএমএবির সভাপতি মামুনুর রশিদ, সাবেক সভাপতি ও বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, ইনস্টিটিউটের সেক্রেটারি একেএম কামরুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ আলী হায়দার চৌধুরী এবং সাফা উপদেষ্টা ও সাবেক সাফা প্রেসিডেন্ট এ কে এম দেলোয়ার হোসেন।

বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ জানান, ১ ডিসেম্বরের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার দেবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বিশেষ অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম, বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ ও ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) সভাপতি জসীম উদ্দীন।

করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর বার্ষিক প্রতিবেদন ও নিরীক্ষিত হিসাবসহ সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সামাজিক দায়দায়িত্ব প্রতিপালনের বিষয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করে প্রতিবছর বেস্ট করপোরেট অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে ইনস্টিটিউট এই পুরস্কার দিয়ে আসছে।

এবার ১৬৫টি প্রতিষ্ঠান প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ২৮টি মানদণ্ডের ভিত্তিতে ১৭ বিভাগে তিনটি করে (গোল্ডেন, সিলভার, ব্রোঞ্জ) মোট ৫৫ প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেয়া হবে।

জুরিবোর্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন। সদস্য হিসেবে ছিলেন বেসরকারি ব্যাংক নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ও বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন আহমেদ।

আইসিএমএবি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রাণাধীন পেশাগত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশে কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টিং পেশার উন্নয়ন, নিয়ন্ত্রণ ও প্রসারের লক্ষ্যে দেশের সর্বোচ্চ ডিগ্রি প্রদান এবং এসব বিষয়ে গবেষণা ও প্রশিক্ষণ প্রদানকারী সংস্থা।

আইসিএমএবির সভাপতি মামুনুর রশিদ বলেন, ‘আইসিএমএবি করপোরেট ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা, জবাবদিহি এবং সুশাসনের প্রচারের জন্য প্রতিবছর দেশের যোগ্য করপোরেট সংস্থাগুলোকে পুরস্কৃত করে। এই অ্যাওয়ার্ড একটি মর্যাদাপূর্ণ ইভেন্ট, যা পুঁজিবাজারকে চাঙা করতে এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ’

আরও পড়ুন:
জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল: সারাবিশ্বে বিডের যোগ্যতা অর্জন রেনাটার
‘যেভাবে চলতে পারে না’, সে বৃত্তেই পুঁজিবাজার
চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা

মন্তব্য

p
উপরে