পিপলস লিজিং পুনর্গঠিত হবে কি না সিদ্ধান্ত ২৮ জুন

পিপলস লিজিং পুনর্গঠিত হবে কি না সিদ্ধান্ত ২৮ জুন

২০১ জন আমানতকারী পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড পুনর্গঠন আবেদন করেন। পরে আদালত তাদের বক্তব্য শোনে। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষের আইনজীবী তানজীব উল আলম আদালতকে বলেন, এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বক্তব্য রয়েছে। তখন আদালত আগামী ২৮ জুন দিন ঠিক করে দেন জবাব দাখিলের জন্য।

বিদেশে পলাতক পিকে হালদার কাণ্ডে আলোচনায় আসা আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড পুনর্গঠন হবে কি না সে বিষয়ে আগামী সোমবার আদেশের জন্য দিন ঠিক করেছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এ দিন ঠিক করে দেয়।

আদালত ২৮ জুন বাংলাদেশ ব্যাংকের বক্তব্য শুনবে বলেও জানিয়েছেন আইনজীবী মেজবাহুর রহমান।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, আজকে ২০১ জন আমানতকারী পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড পুনর্গঠন আবেদন করেন। পরে আদালত তাদের বক্তব্য শোনে। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষের আইনজীবী তানজীব উল আলম আদালতকে বলেন, এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বক্তব্য রয়েছে। তখন আদালত আগামী ২৮ জুন দিন ঠিক করে দেয় জবাব দাখিলের জন্য।

হাইকোর্টে আমানতকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আহসানুল করিম।

পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস লিমিটেড (পিএলএফএসএল)-এর সাময়িক অবাসায়ক (প্রবেশনাল লিক্যুডেটর) মো. আসাদুজ্জামানের পক্ষে ছিলেন মেজবাহুর রহমান।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড থেকে ঋণগ্রহীতাদের তলব করে ২১ জানুয়ারি আদেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট।

এরপর কয়েক দফায় ঋণখেলাপিরা আদালতে হাজির হয়ে হলফনামা দাখিল করেন এবং ঋণ পরিশোধের কথা জানান। এরপর প্রতিষ্ঠানটিকে বাঁচাতে গত ৯ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ও সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যানের বক্তব্য শো নে হাইকোর্ট। আদালতের নির্দেশে হাজির না হওয়ায় ওই দিনই ১২২ জনের দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন:
পিপলস লিজিং: ঋণখেলাপি ১২২ জনের দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা
হাজিরা অব্যাহতি চান পিপলস লিজিংয়ের ১৪৩ মার্জিন ঋণগ্রহীতা
আগে কিস্তি, পরে কথা: ঋণখেলাপিদের হাইকোর্ট
পিপলস লিজিং বাঁচাতে উপায় খুঁজছে হাইকোর্ট

শেয়ার করুন

মন্তব্য