বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ নিয়ে শঙ্কা কাটল

বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ নিয়ে শঙ্কা কাটল

ফাইল ছবি

জিম্বাবুয়ের স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশন এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করে। বার্তায় বলা হয়, চলমান মহামারির মধ্যে বিশেষ ভাবে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট, রাগবি ইউনিয়ন, ফুটবল, শুটিং, অ্যাথলেটিকস, গলফ, সুইমিং ও ভলিবল ফেডারেশনের কয়েকটি সিরিজ সম্পন্ন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক সূচি অনুযায়ী জুনের শেষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়ে যাওয়ার কথা বাংলাদেশের। তবে দেশটিতে করোনাভাইরাস মহামারির কারণের চলমান লকডাউনের জন্য দুই দেশের সিরিজটি হুমকির মুখে পড়ে।

মঙ্গলবার রাতে দূর হয়েছে সেই আশঙ্কা। জিম্বাবুয়ের ক্রীড়া মন্ত্রনালয় শর্ত সাপেক্ষে বেশ কয়েকটি খেলার কয়েকটি সিরিজকে অনুমোদন দিয়েছে যার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ।

জিম্বাবুয়ের স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশন এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করে। বার্তায় বলা হয়, চলমান মহামারির মধ্যে বিশেষ ভাবে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট, রাগবি ইউনিয়ন, ফুটবল, শুটিং, অ্যাথলেটিকস, গলফ, সুইমিং ও ভলিবল ফেডারেশনের কয়েকটি সিরিজ সম্পন্ন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এর আগে, করোনাভাইরাস মহামারির পরিস্থিতি খারাপ হওয়াতে ১৪ জুন জিম্বাবুয়েতে নতুন করে লকডাউন দেয় দেশটির সরকার। স্থগিত করা হয় যেকোনো ধরনের আউটডোর ইভেন্ট। যার মধ্যে ছিল ক্রীড়া ইভেন্টও।

হারারতে চলতে থাকা জিম্বাবুয়ে-এ ও সাউথ আফ্রিকা-এ দলের মধ্যেকার আনঅফিশিয়াল টেস্ট ম্যাচটিও বাতিল করা হয়।

এই মাসের শেষে ডিপিএলের পর ২৯ অথবা ৩০ জুন জিম্বাবুয়েতে যাওয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। সাত জুলাই থেকে শুরু হওয়া সিরিজে একটি টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলবে দুই দল।

টেস্ট ম্যাচের আগে ৩ ও ৪ জুলাই একটি দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ৭ জুলাই প্রথম টেস্ট শুরু হবে হারারেতে।

ওয়ানডে সিরিজ শুরু ১৬ জুলাই। তার আগে ১৪ জুলাই এক দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। ১৬, ১৮ ও ২০ জুলাই হবে তিনটি ম্যাচ। সবগুলো ম্যাচই হবে হারারেতে।

একই ভেন্যুতে দুই দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হচ্ছে ২৩ জুলাই। ২৫ ও ২৭ জুলাই হবে পরের ম্যাচ দুটি।

আরও পড়ুন:
মে মাসে আইসিসির সেরা তিনে মুশফিক
জিম্বাবুয়ের টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে ছুটি চান মুশফিক
জিম্বাবুয়েতে এক সপ্তাহ কোয়ারেন্টিন বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

মন্তব্য