শেরপুরে ট্রলিচালকের পুরুষাঙ্গ কর্তন

শেরপুরে ট্রলিচালকের পুরুষাঙ্গ কর্তন

এলাকাবাসীর দাবি, পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে এক প্রবাসীর স্ত্রী এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। তবে যুবকের স্বজনদের দাবি, পূর্ব শত্রুতার জেরে স্থানীয় কয়েকজন যুবক ওই ট্রলিচালকের পুরুষাঙ্গ কেটে দেন।

শেরপুরে এক যুবকের পুরুষাঙ্গ কর্তনের ঘটনা ঘটেছে। এলাকাবাসীর দাবি, পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে এক প্রবাসীর স্ত্রী এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

তবে যুবকের স্বজনদের দাবি, পূর্ব শত্রুতার জেরে স্থানীয় কয়েকজন যুবক ওই যুবকের পুরুষাঙ্গ কেটে দেন। তিনি পেশায় একজন ট্রলিচালক।

সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে সদর উপজেলার একটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ট্রলিচালকের বাড়ি রৌহা ইউনিয়নের একটি গ্রামে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, এক প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে ওই ট্রলিচালক যুবকের ঘনিষ্ঠতা হয়। এই সুবাদে ওই গৃহবধূর কাছ থেকে তিনি নানা অজুহাতে অনেক টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেন। এ টাকার জন্যই সম্প্রতি তাদের সম্পর্কের অবনতি হয়। একপর্যায়ে যুবকের প্রতি ক্ষুব্ধ হন ওই গৃহবধূ।

এই প্রেক্ষাপটে সোমবার রাতে যুবককে খবর দিয়ে নিজের বাড়িতে ডেকে আনেন ওই গৃহবধূ। পরে কৌশলে তার পুরুষাঙ্গ কেটে দেন। চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে যুবককে উদ্ধার করেন। পরে তাকে শেরপুর ২৫০ শয্যার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

জেলা হাসপাতালের আরএমও খায়রুল কবীর সুমন জানান, যুবকের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

তবে যুবকের বড় ভাই বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তাকে স্থানীয় বাজার থেকে ডেকে পাশের একটি মাঠে নিয়ে কয়েকজন যুবক এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনসুর আহাম্মদ বলেন, ‘ঘটনাটি শোনার পরপরই ওই এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়। প্রাথমিক তদন্তের কাজ শুরু হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
পুরুষাঙ্গ কেটে নিল স্ত্রী
‘প্রেমিকের’ পুরুষাঙ্গ কর্তন, আটক তরুণী

শেয়ার করুন

মন্তব্য