ভাতার ৫০০ টাকায় কী হয়?

ভাতার ৫০০ টাকায় কী হয়?

ভাতার কার্ড হাতে বরিশালের আনোয়ার বেগম। ছবি: নিউজবাংলা

নতুন বাজেটে এক কোটি ছাড়িয়ে যাবে সরকারের ভাতাভোগীর সংখ্যা। কিন্তু যে গরিব, অসহায় মানুষদের জন্য ভাতা দেয়া হয়, মাসে ৫০০ টাকা কতটা কাজে লাগে তাদের? কী করেন তারা এ ভাতা দিয়ে?

সরকারের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় বয়স্ক, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা নারীরা মাসে ৫০০ টাকা ভাতা পান। তিন বছর ধরে এই একই পরিমাণ ভাতা পাচ্ছেন তারা।

এই তিন বছরে গড়ে সাড়ে ৫ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে। কিন্তু ভাতার পরিমাণ বাড়েনি। এমনকি করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও তাদের ভাতার অঙ্ক বাড়ায়নি সরকার।

অনেকেই আশায় ছিলেন, এবারের বাজেটে ভাতা বাড়ানো হবে। কিন্তু ৩ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল যে বাজেট প্রস্তাব সংসদে উপস্থাপন করেছেন, তাতে তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। এত দিন যে ভাতা পেতেন, সেই ভাতাই পাবেন তারা।

তবে ভাতাভোগীর সংখ্যা আরও ১৫ লাখ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

সরকারি হিসাবেই বাজারে মোটা চালের কেজি এখন ৫০ টাকা। গ্রামের মানুষ সাধারণত তিন বেলা ভাত খায়। সে ক্ষেত্রে একজনের জন্য প্রতিদিন প্রায় এক কেজির মতো চাল লাগে।

এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, একজন বয়স্ক, বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতা নারী মাসে সরকারের কাছ থেকে যে ভাতা পান, ১০ কেজি চাল কিনতেই তা শেষ হয়ে যায়। অর্থাৎ একজনের ১০ দিনের চালের খরচও হয় না এই টাকা দিয়ে।

যাদের অন্য কোনো আয় নেই; কাজ করতে পারেন না, তাদের এই অল্প টাকা দিয়ে আসলে কিছুই হয় না।

কঠিন এই বাস্তবতায় এসব ভাতার পরিমাণ কমপক্ষে ১ হাজার টাকা করার দাবি উঠেছে সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে।

দেশের চার জেলায় যারা ভাতা পান, তাদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম। তারা তাদের নিদারুণ কষ্টের কথা জানিয়ে ভাতা বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

তবে এই মুহূর্তে সরকার ভাতা বাড়াতে চায় না। ভাতাভোগীর সংখ্যা ব্যাপক হারে বাড়াতে চায়।

এ বিষয় নিয়ে সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের সঙ্গে কথা বলতে তার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে কলটি রিসিভ হয়নি। এসএমএস করা হলেও কোনো জবাব আসেনি।

পরে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকার আসলে আপাতত ভাতার পরিমাণ বাড়াতে চায় না। গ্রামে একজন বয়স্ক মানুষের কাছে ৫০০ টাকা অনেক। আমাদের সরকারের এই মুহূর্তে প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে, আগে সবাই পাক। তারপর ভাতার টাকা বাড়ানোর কথা ভাবা যাবে।

‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের এমন নির্দেশনাই দিয়েছেন। আমরা সে মোতাবেকই কাজ করছি। নতুন বাজেটে আরও ১৫০ উপজেলার সব বয়স্ক এবং বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে ভাতার আওতাভুক্ত করা হবে।’

বিদায়ি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে ১১২টি উপজেলার সব বয়স্ক এবং বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ভাতার আওতাভুক্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়। বর্তমানে সারা দেশে ৪৯ লাখ বয়স্ক নাগরিককে মাসে ৫০০ টাকা করে ভাতা দেয় সরকার।

ভাতার ৫০০ টাকায় কী হয়?

নতুন বাজেটে আরও ১৫০ উপজেলায় সব বয়স্ককে ভাতার আওতাভুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এতে নতুন করে ৮ লাখ সুফলভোগী যোগ হবে। সব মিলিয়ে মোট ভাতাভোগীর সংখ্যা হবে ৫৭ লাখ।

২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে আরও ১৫০টি উপজেলায় সোয়া ৪ লাখ বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা নারীকে নতুন করে ভাতার আওতায় আনার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। বর্তমানে ১১২টি উপজেলায় ২০ লাখ ৫০ হাজার নারীকে এই ভাতা দেয়া হয়।

এ ছাড়া নতুন বাজেটে অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীর সংখ্যা ২ লাখ ৮ হাজার জন বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

করোনাভাইরাস সংকটের মধ্যে নতুন অর্থবছরের বাজেটে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা খরচের যে পরিকল্পনা অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল সাজিয়েছেন, তার মধ্যে ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি বরাদ্দ রেখেছেন সামাজিক নিরাপত্তা খাতে।

এই অঙ্ক মোট বাজেটের প্রায় ১৮ শতাংশ। আর মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৩ দশমিক ১১ শতাংশ।

নতুন বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় বিভিন্ন ভাতাভোগীর সংখ্যা ব্যাপকভাবে সম্প্রসারণ করা হলেও ভাতার অঙ্ক একই আছ। সব মিলিয়ে আরও প্রায় ১৫ লাখ গরিব মানুষ সরকারের সহায়তা পাবে।

এতদিন এই ভাতা পাচ্ছিলেন ৮৮ লাখ গরিব, অসহায় মানুষ। নতুন করে সুবিধাভোগীর সংখ্যা যোগ হলে ভাতা পাওয়া গরিবের সংখ্যা ১ কোটি ছাড়িয়ে যাবে।

বয়স্ক ভাতা পেতে হলে পুরুষের বয়স কমপক্ষে ৬৫ এবং নারীর ৬২ বছর হতে হয়। এই ভাতা পেতে হলে মাসে আয় ১০ হাজার টাকার কম হতে হবে।

কেমন আছেন বরিশালের ভোতাভোগীরা

বরিশাল শহরের ৬ নং ওয়ার্ডের মাদ্রাসা রোডের বাসিন্দা আম্বিয়া খাতুন। বয়স ৬৯ বছর। চার বছর ধরে পান ভাতা। কিন্তু এই টাকা দিয়ে কিছুই হয় না তার।

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপকালে আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘স্বামী নাই আর পোলাও নাই। দুই মাইয়া আল্লে হেয়া বিয়া দিয়া দিছি মেলা আগে। হেরা বছ্ছরে একবার পারলে সাহায্য করে, না পারলে করে না। মোর ভরসা ওই বয়স্ক ভাতাডাই।

‘৪ বছর ধইরা পাই। যা পাই, ওয়া দিয়া ঘরের ল্যাম্পও জ্বালান যায় না, হেইরপরও ওইটাই ভরসা। ওইয়া দিয়াই চলতে হয়। অনেক সময় আশপাশের মানু মেলাভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করে।’

ভাতার ৫০০ টাকায় কী হয়?
ভাতার কার্ড হাতে বরিশালের আম্বিয়া খাতুন। ছবি: নিউজবাংলা

নানা অভিযোগ অনুযোগ করে আম্বিয়া বলেন, ‘তিন মাস পরপর কাউন্সিলর অফিসে যাইয়া ১৫০০ টাহা আনতে হয়। আমনেরাই কন, এই দিয়া কিছু হয়? পেট তো চালান লাগে।

‘ছোডো একটু ঘরে থাহি। এক বেলা রাইন্দা দুই দিন খাই। টাহা তো লাগবে খাইতে। আর দোহানদাররা তো বাহিও দেতে চায় না মোরে। মুই তো হেয়া শোধ করতে পারমু না। সরকার যদি মোগো এই বয়স্ক ভাতার টাহাডা বাড়াইয়া দিত তাইলে অনেক ভালো হইত। এক হাজার টাহা দেলেও হেলে দুই বেলা তো খাইতে পারতাম একটু।’

একইভাবে ভাতা টাকা বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন শহরের কসাইখানা এলাকার বাসিন্দা আনোয়ারা বেগম।

তিনি বলেন, ‘৭৪ বছর বয়স হইছে মোর। এহন চলতে ফেরতে কষ্ট হয় অনেক। কয়েক বছর ধইরা ভাতা পাই। হেয়া একটাহাও বাড়ে নাই। জিনিসপত্রের দামও তো অনেক বাড়ছে। হেইয়ার হিসেবে এহন যে তিন মাস পরপর ১৫০০ টাহা কইরা দেয় হেতে কি কিছু হয়?

‘মোর চক্ষুতে অনেক সমস্যা। ঠিকমতো চোহে দেহি না। কেমনে যে চলি আল্লাহই জানে। মাইয়ারে বিয়া দেওয়ার পর হে কি খালি বছরে কাপড় দেয়। আর পোলার চায়ের দোহানে এক ঘণ্টা সময় দেতে হয়। হেই পারপাস আমারে দেহাশুনা করে পোলায়।’

আনোয়ারা বেগম বলেন, ‘আগে চাউলের কেজি যে টাহা ছিল, হেই টাহা তো এহন আর নাই। সবকিছুর দাম বাড়ছে। কয়দিন পর দেখমু পানিটাও কিন্না খাওয়া লাগতে আছে। এইয়ার মধ্যে মোগো যে ভাতা দেতে আছে হেয়া তো বাড়ে না, মোগো আগের টাহাই দেতে আছে।

‘মালের দাম বাড়ার লগে লগে মোগো টাহাও যদি বাড়াইয়া দেয়, তাইলে অনেক ভালো হয়। নাইলে মোর চলতে অনেক সমস্যা। ওষুধপত্রসহ পোলার সংসারে তিনমাস পর পর ওই টাহা দেতে হয়। এই যুগে কী হয় ১৫০০ টাহায়?’

আম্বিয়া খাতুন, আনোয়ারা বেগমের মতো বয়স্কভাতা বাড়ানোর দাবি করেছেন বিএম কলেজ রোড এলাকার বৃদ্ধা ময়নামতি দাস, পলাশপুরের সোনা খাতুনসহ অনেকে।

গাইবান্ধা

তিন বছর ধরে বিধবা ভাতা পেয়ে আসছেন গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের উত্তর মরুয়াদহ গ্রামের বিধবা রোকেয়া বেওয়া। স্বামী পরিত্যক্তা মেয়ে কাছমতি বেগমকে নিয়ে তার সংসার।

মা-মেয়ে অন্যের বাড়িতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। তারপরও তাদের মুখে খানিকটা হাসি এনে দিয়েছে সরকারের দেয়া বিধবা ভাতার মাসিক ৫০০ টাকা।

ভাতার ৫০০ টাকায় কী হয়?
গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের উত্তর মরুয়াদহ গ্রামের বিধবা রোকেয়া বেওয়া

এই টাকা দিয়ে কী করেন জানতে চাইলে রোকেয়া বেওয়া বলেন, ‘টেকা তুলি বাজারঘাট করি। চাউল কিনি। ১৫০০ টেকা হামার কাছে মেলা টেকা। এই টেকা না দিলি বাঁচনো না হয় বাবা। না খায়া মনো হয়।’

এই টাকায় সংসার চলে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ। আর টেকা পামো কোনটে? এই টেকাই চলি ফিরি খাই। মানষের বাড়িত থাকি এনা-ওনা আনি। এগলে দিয়েই মিলিধিলি চলি বাবা।

‘কষ্ট হয় চলতি। তাও করিধরি বাঁচি আছি। আর এনা বেশি টেকা পালে ভালই চলবের পানো হয়। মানষের বাড়িত কাম করা নাগিল নে হয়।’

একই উপজেলার উত্তর দামোদরপুর গ্রামের বয়স্ক ভাতাভোগী মোন্তাজ আলী প্রামানিক বলেন, ‘ছয় মাস পর ঈদের আগত টেকা পাচি ৩ হাজার। টেকা তুলি বাড়িত যাবার পাই নাই। তার আগে শেষ। দোকানত বাকিবুকি। বাজারত বাকি সোগ শোধ কচ্চি।

‘পত্তি ওষুধপাতি খাম। টেকার জন্যি ওষুধ পামো না। বিছনেত পড়ি আছম। যে টেকা পামো, তাক দিয়ে এখান-ওখান হয়; পেটত ভাত দিবের পাম না।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাসে একটা হাজার টেকা পালি যেন হলি হয়। ডাল-ভাত, ওষুধপাতি খাবার পানো হয়। ৫০০ টেকা দিয়ে কিছু হয় না রে বাপ।’

হবিগঞ্জ

হবিগঞ্জ পৌরসভার কামড়াপুর এলাকার মৃত তুফায়েল আলীর স্ত্রী খুদেজা খাতুন। দুই ছেলে এবং চার মেয়ে। মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন, ছেলেরাও বিয়ে করে আলাদা থাকেন। তার ভরণ-পোষণের জন্য ছেলেরাই মাস খরচ দেন।

তিনি বলেন, ‘সরকার আমরারে বয়স্ক ভাতা দেয় মাসে ৫০০ টেকা কইরা। তিন মাস পরপর এই টেকা তুলতা পারি। সরকারি কর্মকর্তারার বেতন বাড়ছে, জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে, কিন্তু আমরার ভাতা বাড়তাছে না।’

দুঃখ করে তিনি বলেন, ‘মাসে ৫০০ টেকা দিয়ে একজন মানুষ চলত পারে? ৫০০ টেকা দিয়া এখন ১০ কেজি চাউলও পাওয়া যায় না।’

তেঘরিয়া গ্রামের আবু মিয়া। তিন ছেলে দুই মেয়ে। তিনিও ছেলে মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন। ছেলেরা কেউ কেউ রিকশা চালান, কেউ শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। অভাব-অনটনের সংসারে অসুস্থ আবু মিয়া যেন ছেলের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘সংসার চালাইতে পুলাইনতের (ছেলেদের) অনেক কষ্ট হয়। এর মাঝে আমি অসুস্থ হওয়ার কারণে কয়দিন পরপর ওষুদ লাগে। এখন লকডাউনের লাইগা রিকশা চালাইত পারে না, অন্য কোনো কামও পায় না। অনেক কষ্টে আছি আমরা।

‘সরকার আমারে যে ভাতা দেয়, ইডা দিয়া আমার ওষুদের খরচই হয় না। এই ভাতা আরও বাড়ানো দরকার।’

সরকার ভাতা না বাড়িয়ে নতুন লোকদের ভাতার আওতায় আনতে চাচ্ছে। বিষয়টিকে কীভাবে দেখেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যারা বুড়া হইছে, সবাইকেই ভাতা দেয়া উচিত। কিন্তু এত কম টেকা দিলে অইব কেমনে। আরও বেশি দিতইব।’

নীলফামারী

নীলফামারী শহরের নিউ বাবুপাড়া মহল্লার বাসিন্দা পলাশ হোসেন। ২০১০ সাল থেকে প্রতিবন্ধী ভাতা পেয়ে আসছেন। সেখানকার আশরাফ হোসেন দুলাল ও শাবানা বেগম ছালেহার সন্তান পলাশ।

সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির আওতায় মাসিক সাড়ে ৭০০ টাকা পাচ্ছেন পলাশ।

সরকারি ভাতা পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে পলাশ বলেন, ‘যে টাকা পাচ্ছি এ জন্য ধন্যবাদ জানাই তাকে। তবে এই সময়ে এসে মাসে সাড়ে ৭০০ টাকা কাজে আসে না।

‘চলাফেরা এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ভাতার পরিমাণ হিসাব করলে যৎসামান্য। আমি দাবি জানাই, যেন এর পরিমাণ বাড়ানো হয়।’

মিলন পল্লী এলাকার প্রয়াত বিষাদু মামুদের স্ত্রী ছাবিয়া বেগম। ১৬ বছরেরও বেশি সময় ধরে বয়স্ক ভাতা ভোগ করে আসছেন তিনি। নানা রোগ আষ্টেপৃষ্ঠে ধরেছে তাকে। প্রতি মাসে শুধু ওষুধই কিনতে হয় ১ হাজার ২০০ টাকার।

ছাবিয়া বেগম বলেন, ‘এই ভাতার পরিমাণ বাড়ানো হলে উপকৃত হবেন আমার মতো দেশের লাখ লাখ অসহায় বয়স্ক মানুষরা।’

একই দাবি গাছবাড়ি মহল্লার খোঁচা মামুদের স্ত্রী আমিনা বেগমেরও। একমাত্র সন্তানের উপার্জনে সংসার চালাতে হয় পাঁচজনের খরচ। অভাব অনটন লেগেই থাকে।

আমিনা বেগম বলেন, ‘শরীরে ব্যথা লেগেই রয়েছে। সঠিক চিকিৎসা করাতে পারছি না। নানা রোগ শরীরে ধরেছে। আমাদের ভাতার টাকা যদি বাড়ানো হয় তাহলে কিছুটা উপকৃত হতাম।’

৯৮ সাল থেকে শুরু বয়স্ক ভাতা

অবহেলিত বয়স্ক জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতির লক্ষ্যে ১৯৯৮-৯৯ অর্থবছর থেকে চালু হয় বয়স্ক ভাতা। সে সময় ভাতার পরিমাণ ছিল ১০০ টাকা। ৪ লাখ ৪ হাজার জন পেতেন ভাতা। বাজেটে এ বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছিল ৪৮ হাজার ৫০ লাখ টাকা।

২০০৬-০৭ অর্থবছর ভাতার পরিমাণ বাড়িয়ে ২০০ টাকা করা হয়। ভাsতাভোগীর সংখ্যা বেড়ে হয় ১৬ লাখ।

২০০৯-১০ অর্থবছরে ভাতার অঙ্ক বাড়িয়ে করা হয় ৩০০ টাকা। সুবিধাভোগীর সংখ্যা হয় ২২ লাখ ৫০ হাজার।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে ভাতার পরিমাণ বাড়িয়ে ৫০০ টাকা করে সরকার। ভাতাভোগীর সংখ্যা বাড়িয়ে করা হয় ৪০ লাখ।

৩০ জুন শেষ হতে যাওয়া ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটেও ভাতার অঙ্ক সেই ৫০০ টাকাই আছে। তবে সুবিধাভোগীর সংখ্যা ৪৯ লাখ হয়েছে। বাজেটে বরাদ্দ বেড়ে হয়েছে ২ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা।

বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা শুরু ১৯৯৯ সাল থেকে

এই ভাতাও ১০০ টাকা দিয়ে শুরু হয়েছিল। বিভিন্ন সময়ে বেড়ে ৫০০ টাকায় ঠেকেছে। বর্তমানে ২০ লাখ ৫০ হাজার নারী এই ভাতা পাচ্ছেন। বাজেটে বরাদ্দ আছে এক হাজার ২৩০ কোটি টাকা।

এ ছাড়া সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ৭ লাখ ৭০ হাজার দরিদ্র মায়েদের মাতৃত্বকালীন ভাতা দেয়া হচ্ছে। ১৮ লাখ অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীকে মাসে ৭৫০ টাকা করে ভাতা দিচ্ছে সরকার।

এসব ভাতা বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক মঞ্জুর হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন কঠিন সময়। মহামারির এই সময়ে বাজেটের আকার, ঘাটতি বা জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে খুব বেশি মাথা ঘামানোর প্রয়োজন আমি দেখছি না।

‘কোভিডের মধ্যে চলতি অর্থবছরে চার-সাড়ে চার শতাংশ প্রবৃদ্ধি হলেও যথেষ্ট। আগামী অর্থবছরে ৫ শতাংশ হলেও ভালো। সরকার নতুন বাজেটে এসব ভাতা যাতে আরও বেশিসংখ্যক মানুষ পায়, সে ব্যবস্থা নিয়েছে। এটা খুবই ভালো। তবে একই সঙ্গে আমি ভাতার পরিমাণটা বাড়ানোরও অনুরোধ করছি। কেননা এই বাজারে ৫০০ টাকা দিয়ে আসলেই তেমন কিছু হয় না।’

[সহযোগী প্রতিবেদক: বরিশাল প্রতিনিধি তন্ময় তপু, গাইবান্ধা প্রতিনিধি পিয়ারুল ইসলাম, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি কাজল সরকার এবং নীলফামারী প্রতিনিধি নূর আলম]

আরও পড়ুন:
অন্তঃসত্ত্বা না হয়েও মাতৃত্বকালীন ভাতা
‘এডা টেহার কাট’ চান ৭৫ বছরের ফুলেছা
৮৮ লাখ ভাতাভোগীর তথ্যভান্ডার তৈরি
ঈদে এক কোটি পরিবারকে ৪৫০ কোটি টাকা
ভাতা বাড়িয়ে হাজার টাকা করতে চান মন্ত্রী

শেয়ার করুন

মন্তব্য