শিল্পী হাশেমের জন্মজয়ন্তী উদযাপন

প্রয়াত শিল্পী মোহাম্মদ হাশেমের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ।

শিল্পী হাশেমের জন্মজয়ন্তী উদযাপন

মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের যুগ্ম আহ্বায়ক এমদাদ হোসেন কৈশরের সঞ্চালনায় আলোচনা করেন ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব, মোহাম্মদ হাশেমের জ্যেষ্ঠপুত্র সাংবাদিক মুস্তফা মনওয়ার সুজন, সাংবাদিক মাহম্মদুল হক ফয়েজ, নাট্যকার সাজ্জাদ রহমান, কবি-অধ্যাপক শিরিন আক্তার প্রমুখ।

গীতিকার, সুরকার ও দেশবরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী প্রয়াত অধ্যাপক মোহাম্মদ হাশেমের জন্মজয়ন্তী উদযাপিত হয়েছে নোয়াখালীতে।

রোববার বিকেল পৌনে ৩টায় জেলা শহরের মাইজদী কোর্ট মসজিদ সংলগ্ন মোহাম্মদ হাশেমের সমাধিতে ফাতেহা পাঠ ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে থেকে বের করা হয় র‍্যালি।

মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে জেলা শিল্পকলা অ্যাকাডেমিতে হয় আলোচনা সভা, তথ্যচিত্র প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

সভায় মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক, কবি, প্রবন্ধকার কাজী মানসুরুল হক খসরুর সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আল হেলাল মো. মোশাররফ।

মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের যুগ্ম আহ্বায়ক এমদাদ হোসেন কৈশরের সঞ্চালনায় আলোচনা করেন ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব, মোহাম্মদ হাশেমের জ্যেষ্ঠপুত্র সাংবাদিক মুস্তফা মনওয়ার সুজন, সাংবাদিক মাহম্মদুল হক ফয়েজ, নাট্যকার সাজ্জাদ রহমান, কবি-অধ্যাপক শিরিন আক্তার প্রমুখ।


শিল্পকলায় মোহাম্মদ হাশেমের জীবন নিয়ে নির্মিত তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। গান পরিবেশন করেন শিল্পী শাহনাজ হাশেমসহ হাশেম পরিবারের সদস্য ও জেলার বিশিষ্ট শিল্পীরা।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সমন্বয় করেন মোহাম্মদ হাশেমের কনিষ্ঠ পুত্র সংগীত শিল্পী রায়হান কায়সার হাশেম।

১৯৪৭ সালের ১০ জানুয়ারি নোয়াখালী সদর উপজেলার শ্রীকৃষ্ণপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মোহাম্মদ হাশেম। তিনি একাধারে নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষায় সহস্রাধিক গানের রচয়িতা, সুরকার, গায়ক ও অধ্যাপক ছিলেন।

২০২০ সালের ২৩ মার্চ তিনি মৃত্যুবরণ করেন। এই গুণী শিল্পীর স্মৃতি সংরক্ষণ ও তার গানের চর্চা অব্যাহত রাখার জন্য গঠন করা হয়েছে ‘মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশন’।

শেয়ার করুন

মন্তব্য